রবিবার| জানুয়ারি ২৬, ২০২০| ১৩মাঘ১৪২৬

টেলিকম ও প্রযুক্তি

অ্যালফাবেট

ব্যবস্থাপনা থেকে সরে দাঁড়ালেন ল্যারি পেজ ও সের্গেই ব্রিন

বণিক বার্তা ডেস্ক

বৈশ্বিক সার্চ জায়ান্ট গুগলের প্যারেন্ট কোম্পানি অ্যালফাবেট ইনকরপোরেশনের ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন গুগলের দুই সহপ্রতিষ্ঠাতা ল্যারি পেজ সের্গেই ব্রিন। প্রতিষ্ঠানটিতে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) প্রেসিডেন্টের দায়িত্বে রয়েছেন যথাক্রমে ল্যারি পেজ সের্গেই ব্রিন। গত মঙ্গলবার এক ব্লগ পোস্টে আকস্মিক ঘোষণা দেন ৪৬ বছর বয়সী দুই প্রযুক্তি মহারথী। খবর বিবিসি।

যৌথ বিবৃতিতে ল্যারি পেজ সের্গেই ব্রিন জানান, অ্যালফাবেটের গুরুত্বপূর্ণ দুই পদ থেকে সরে দাঁড়ালেও পরিচালনা পর্ষদ সদস্য, শেয়ার অংশীদার সহপ্রতিষ্ঠাতা হিসেবে সক্রিয় থাকবেন। জায়ান্ট প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা কাঠামো আরো সহজ করার জন্য তারা দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

১০৯৮ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণার প্রকল্প হিসেবে গুগল প্রতিষ্ঠা করেছিলেন দুই সহপাঠী ল্যারি পেজ সের্গেই ব্রিন। বৈশ্বিক সার্চ খাতে আধিপত্য বিস্তারে এরপর খুব বেশি সময় লাগেনি প্রতিষ্ঠানটির। বৈশ্বিক সার্চ খাতে এখন একচ্ছত্র আধিপত্য ধরে রেখেছে প্রতিষ্ঠানটি।

ল্যারি পেজ সের্গেই ব্রিন জানান, প্রতিষ্ঠান চালানোর ভালো উপায় থাকার পরও পদ ধরে রাখতে চাই না। এছাড়া অ্যালফাবেট গুগলের জন্য পৃথক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা প্রেসিডেন্ট দরকার নেই। আমাদের এখন গর্বিত অভিভাবকের দায়িত্ব পালনের সময় হয়েছে। গুগল অ্যালফাবেটকে ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে নেয়ার জন্য সুন্দর পিচাইয়ের ভালো বিকল্প নেই।

অ্যালফাবেটের সিইওর দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত সুন্দর পিচাই। গুগলের পাশাপাশি তিনি অ্যালফাবেটের সিইওর দায়িত্বও পালন করবেন।

২০১৫ সালে গুগলের কার্যক্রম আরো স্বচ্ছ করতে অ্যালফাবেট ইনকরপোরেশন নামে প্যারেন্ট কোম্পানি গঠন করেন ল্যারি পেজ সের্গেই ব্রিন। গুগলের সব কার্যক্রম এখন অ্যালফাবেটের অধীনে পরিচালিত হয়। অ্যালফাবেট গঠনের পর সিইওর দায়িত্ব নেন ল্যারি পেজ প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নিয়েছিলেন সের্গেই ব্রিন। অ্যালফাবেটের নিয়ন্ত্রণে থাকে অ্যান্ড্রয়েড, সার্চ, ডিজিটাল বিজ্ঞাপন বিভাগ, ইউটিউব, ম্যাপসেবার মতো ব্যবসা বিভাগ। একই সময় গুগলের সিইওর দায়িত্ব পান সুন্দর পিচাই।

গুগলের সিইওর দায়িত্ব নেয়ার আগে প্রতিষ্ঠানটির পণ্য বিভাগের জ্যেষ্ঠ ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে কাজ করছিলেন সুন্দর পিচাই। ৪৭ বছর বয়সী প্রযুক্তি কর্মকর্তার জন্ম ভারতের তামিলনাড়ুতে। তিনি ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (আইআইটি) খড়গপুর থেকে প্রকৌশল বিষয়ে স্নাতক সম্পন্ন করেন। এরপর যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করেন। ২০০৪ সালে গুগলে যোগ দেয়ার আগে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে থেকে এমবিএ সম্পন্ন করেছিলেন।

বিবৃতিতে সুন্দর পিচাই বলেন, পরিবর্তনের বিষয়টি নিয়ে তিনিরোমাঞ্চিত ল্যারি পেজ সের্গেই ব্রিনের সিদ্ধান্তের প্রশংসা করেন তিনি। বৈশ্বিক প্রযুক্তি খাতে ভূমিকা রাখতে গুগলের প্রতিষ্ঠাতাদ্বয় আমাকে দারুণ একটি সুযোগ দিয়েছেন। তাদের ধন্যবাদ যে একটি নিরন্তর কর্মযজ্ঞ, স্থায়ী মূল্যবোধ এবং পারস্পরিক সহযোগিতার সংস্কৃতি অন্বেষণের মধ্যে রয়েছি। যে কারণে প্রতিদিন কাজে আসার বিষয়টি আমাদের কাছে আরো রোমাঞ্চকর হয়ে ওঠে।

গুগল প্রতিষ্ঠার পর শীর্ষ নেতৃত্বে এবারই প্রথম বড় ধরনের পরিবর্তন আনা হলো। এবারই প্রথম ল্যারি পেজ সের্গেই ব্রিন নিজ হাতে গড়ে তোলা প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ ব্যবস্থাপনা পদে থাকছেন না।

গুগলের ব্যবসায় কার্যক্রমে কিছুদিন ধরেই পরিবর্তন দেখা যাচ্ছিল। সার্চ জায়ান্টটির মুখপাত্র হিসেবে দিন দিন সুন্দর পিচাই আরো গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছিলেন।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, ব্যবস্থাপনার গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব ছাড়লেও প্রতিষ্ঠানে ল্যারি পেজ সের্গেই ব্রিনের ক্ষমতা কমছে না। অ্যালফাবেট পরিচালনা পর্ষদের ৫১ শতাংশ ভোটাধিকার তাদের হাতেই থাকছে। প্রকৃত অর্থে গুগল অ্যালফাবেটের অভিভাবকের দায়িত্বই নিচ্ছেন ল্যারি পেজ সের্গেই ব্রিন। অর্থাৎ তারা প্রয়োজন মনে করলে সুন্দর পিচাইয়ের গৃহীত যেকোনো সিদ্ধান্ত পাল্টে দিতে পারবেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন