শনিবার | ডিসেম্বর ১৪, ২০১৯ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

আন্তর্জাতিক ব্যবসা

ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার ইস্পাত ও অ্যালুমিনিয়ামে শুল্ক ঘোষণা ট্রাম্পের

ফ্রান্সের ২৪০ কোটি ডলারের পণ্যে শুল্কারোপ হতে পারে

বণিক বার্তা ডেস্ক

ব্রাজিল আর্জেন্টিনার ইস্পাত অ্যালুমিনিয়ামের ওপর শুল্কারোপের ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। দেশ দুটিরঅন্যায্যনীতির কারণে সিদ্ধান্ত নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। অন্যদিকে মার্কিন প্রশাসন জানিয়েছে, ফ্রান্সের ২৪০ কোটি ডলারের শ্যাম্পেন, হ্যান্ডব্যাগ, পনির অন্যান্য পণ্যের ওপর শতভাগ পর্যন্ত শুল্ক আরোপ করতে পারে তারা। যুক্তরাষ্ট্র দাবি করছে, ফ্রান্সের নতুনডিজিটাল সার্ভিস ট্যাক্সমার্কিন প্রযুক্তি কোম্পানিগুলোর ক্ষতি করতে পারে। এরই পাল্টা জবাব হিসেবে শুল্ক আরোপ করতে পারে তারা। খবর রয়টার্স।

ট্রাম্পের শুল্কারোপের ঘোষণা ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বলসোনারোর জন্য বড় ধাক্কা, কেননা তিনি বরাবরই নিজেকে মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছের লোক বলে জাহির করে এসেছেন। ব্রাজিলের শিল্পোদ্যোক্তারা সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

এক টুইট বার্তায় ট্রাম্প বলেন, ব্রাজিল আর্জেন্টিনা ইচ্ছাকৃতভাবে নিজেদের মুদ্রার বড় অবমূল্যায়ন করেছে, যা মার্কিন কৃষকদের ক্ষতি করছে। দেশ দুটি থেকে যুক্তরাষ্ট্রে আসা ইস্পাত অ্যালুমিনিয়ামের ওপর পুনরায় শুল্ক আরোপ করলাম এবং এটি এখন থেকেই কার্যকর হবে।

গত বছর আর্জেন্টিনা, ব্রাজিলসহ বেশ কয়েকটি দেশ বাদে বাকিদের ইস্পাতের ওপর ২৫ শতাংশ অ্যালুমিনিয়ামের ওপর ১০ শতাংশ শুল্ক আরোপের ঘোষণা দিয়েছিলেন ট্রাম্প।

ব্যাপারে ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলবেন বলে জানিয়েছেন বলসোনারো। ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট বলছেন, তিনি আশা করছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট তাদের বিষয়টি বুঝবেন। স্থানীয় রেডিওতে দেয়া এক সাক্ষাত্কারে বলসোনারো বলেন, আমি আশা করছি ট্রাম্প বিষয়টি বুঝতে পারবেন এবং আমাদের ওপর শুল্ক আরোপ করবেন না। ব্রাজিলের নেতা আরো বলেন, তিনি আত্মবিশ্বাসী যে ট্রাম্পের কাছ থেকে ইতিবাচক বার্তা পাবেন।

অন্যদিকে আর্জেন্টিনার শ্রম উৎপাদন মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, তারা ঘোষণার বিষয়ে পরিষ্কারভাবে যুক্তরাষ্ট্রেকে জানাতে বলেছে। এবং নিয়ে ব্রাজিলের সঙ্গে যৌথ বিবৃতি দিতে পারে তারা।

ব্রাজিলের স্টিল ইনস্টিটিউট জানিয়েছে, ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত তাদের অবাক করেছে। সংস্থাটি বলছে, দুই দেশের মধ্যে যে সম্পর্ক রয়েছে, তার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সিদ্ধান্ত সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। সিদ্ধান্তে দিন শেষে মার্কিন ইস্পাত শিল্পই ক্ষতিগ্রস্ত হবে, কেননা তাদের কারখানা চালানোর জন্য ব্রাজিলেরসেমি-ফিনিশডপণ্যের প্রয়োজন রয়েছে।

কানাডার পর যুক্তরাষ্ট্রের বাজারের দ্বিতীয় বৃহৎ ইস্পাত সরবরাহকারী দেশ ব্রাজিল। অন্যদিকে চীনের সঙ্গে বাণিজ্যযুদ্ধের কারণে ব্রাজিল আর্জেন্টিনা লাভবান হচ্ছে।

মার্কিন ট্রেড রিপ্রেজেন্টটেটিভ অফিস (ইউএসটিআর) জানিয়েছে, ‘সেকশন ৩০১তদন্তে তারা দেখতে পেয়েছে যে ফ্রান্সের ডিজিটাল শুল্ক বিদ্যমান আন্তর্জাতিক শুল্কনীতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় এবং গুগল, ফেসবুক, অ্যাপল অ্যামাজনের মতো মার্কিন প্রযুক্তি কোম্পানিগুলো এতে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

মার্কিন বাণিজ্য প্রতিনিধি রবার্ট লাইটহাইজার জানিয়েছেন, অস্ট্রিয়া, ইতালি তুরস্কের ডিজিটাল সার্ভিস ট্যাক্স নিয়েও একই ধরনের তদন্ত শুরুর কথা ভাবছে মার্কিন প্রশাসন।

লাইটহাইজার বলেন, ইইউ সদস্য দেশগুলোয় বাড়তে থাকা সুরক্ষাবাদ নিয়ে কাজ করছে ইউএসটিআর। কারণ এটি মার্কিন কোম্পানিগুলোকে অন্যায্যভাবে লক্ষ্যবস্তু বানাচ্ছে। তবে লাইটহাইজার কানাডা বা ব্রিটেনের প্রস্তাবিত ডিজিটাল ট্যাক্স নিয়ে কোনো কথা বলেননি। অন্যদিকে শুল্ক আরোপের কথা বললেও কবে নাগাদ তা কার্যকর করা হবে তা জানানো হয়নি।

শুল্ক আরোপের মার্কিন সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়েছে ফ্রান্স ইউরোপীয় ইউনিয়ন। ফ্রান্স সরকারের মন্ত্রীরা জানিয়েছেন, ফ্রান্সের পণ্যের ওপর শুল্ক আরোপ যে হুমকি যুক্তরাষ্ট্র দিয়েছে, তার পাল্টা জবাব দিতে ফ্রান্স ইইউ প্রস্তুত রয়েছে।

মার্কিন ঘোষণাকে অগ্রহণযোগ্য বলে আখ্যায়িত করেছেন ফ্রান্সের অর্থমন্ত্রী ব্রুনো মা। তিনি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র যদি নতুন করে শুল্কারোপ করে, তাহলে ইইউ জবাব দিতে প্রস্তুত রয়েছে। ফ্রান্সের সরকার আরো জানিয়েছে, তারা বিষয় নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনা করবে এবং সঙ্গে এও জানিয়েছে, তারা নিজেদের ডিজিটাল ট্যাক্স প্রত্যাহার করবে না।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন