শুক্রবার| জানুয়ারি ২৪, ২০২০| ১১মাঘ১৪২৬

শেষ পাতা

অনলাইন নিউজ পোর্টালের নিবন্ধন আগামী সপ্তাহ থেকে —তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

সরকার আগামী সপ্তাহে অনলাইন নিউজ পোর্টালের নিবন্ধন শুরু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী . হাছান মাহমুদ। গতকাল সচিবালয়ে তার কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, যারা নিবন্ধন পাবে না, তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়া হবে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কয়েকশ অনলাইন নিউজ পোর্টালের কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করে দেখেছে। সরকার সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র পরীক্ষা করে দেখে আগামী সপ্তাহে  অনলাইন নিউজ পোর্টালের নিবন্ধন দেয়া শুরু করবে।

মোট হাজার ৫৯৫টি নিউজ পোর্টাল আবেদন করেছে জানিয়ে . হাছান মাহমুদ বলেন, আবেদনকারীদের দেয়া তথ্য কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করার জন্য সব আবেদনপত্র স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছিল। আমরা স্বরাষ্ট্র, টেলিযোগাযোগ তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেছি। এসব আবেদনপত্রের সঙ্গে দেয়া কাগজপত্র যাচাই করে দেখতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অনুরোধ জানাই।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ভবিষ্যতে যথাযথ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে অনলাইন মিডিয়া চালু করা হবে। নিবন্ধন ছাড়া কেউ অনলাইন নিউজ পোর্টাল চালাতে পারবে না। সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ অনুযায়ী ইলেকট্রনিক মিডিয়া সেক্টরে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করা হবে। সেক্টরে কোনো ধরনের অনিয়ম দেখলে সরকার ব্যবস্থা নেবে।

কয়েকটি টিভি চ্যানেল বিদেশী টিভি সিরিয়াল বাংলায় ডাবিং করে সম্প্রচার করছে জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ডাবিংকৃত অনুষ্ঠান সম্প্রচারের জন্য সরকারের কাছ থেকে অনুমোদন নিতে হবে। পুরো বিষয়টি দেখভালের জন্য একটি রিভিউ কমিটি গঠন করা হয়েছে। একজন অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে গঠিত কমিটিতে বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মামুনুর রশীদ সারা যাকের, বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক অথবা বাংলাদেশ টেলিভিশনের একজন প্রতিনিধি, জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক, টেলিভিশন চ্যানেল মালিক পরিচালক অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধি এবং অভিনয়শিল্পী সংস্থার প্রতিনিধি থাকবেন।

বিদেশী চ্যানেলে বাংলাদেশী বিজ্ঞাপন সম্প্রচার বন্ধ রয়েছে জানিয়ে . হাছান মাহমুদ বলেন, পাশাপাশি কেবল অপারেটররা বাংলাদেশী টিভি চ্যানেলের সিরিয়াল বজায় রেখেছে।

তিনি বলেন, গণমাধ্যমের ভালোর জন্য আমরা এরই মধ্যে পদক্ষেপ নিয়েছি। এসব পদক্ষেপের অধিকাংশই টিভি চ্যানেলগুলো মেনে চলছে।

অন্য এক প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, সরকার মোবাইল কোম্পানিগুলোকে লাইসেন্স দিয়েছে শুধু মোবাইল নেটওয়ার্ক পরিচালনার জন্য। অথচ তারা এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের জন্য বিজ্ঞাপনের পাশাপাশি ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করছে, যা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। সরকার বিজ্ঞাপনের পাশাপাশি কাউকে ভিডিও কনটেন্ট করার লাইসেন্স দেয়নি। আমরা এরই মধ্যে এসব বন্ধ করার জন্য টেলিকমিউনিকেশন মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছি। আমরা সেক্টরে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং বিষয়ে আইগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এক প্রশ্নের উত্তরে . হাছান মাহমুদ বলেন, অনেক সংবাদপত্র, অনলাইন নিউজ পোর্টাল টেলিভিশন চ্যানেল তাদের নিজস্ব অনলাইন মিডিয়ার মাধ্যমে ভিডিও কনটেন্ট দেখাচ্ছে। এটিও গ্রহণযোগ্য নয়। আমরা এসব আইনের আওতায় আনার চেষ্টা করছি।

খালেদা জিয়ার মুক্তি সম্পর্কিত এক প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি হতে পারে একমাত্র আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে। খালেদা জিয়া একটি দুর্নীতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে এখন কারাগারে বন্দি আছেন। তাকে কেবল আদালত মুক্তি দিতে পারেন। বিএনপি সবসময় খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনের হুমকি দিয়ে আসছে। তার মুক্তির বিষয়টি সম্পূর্ণ আদালতের হাতে। এখানে অন্য কোনো পথ খোলা নেই।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন