শনিবার | ডিসেম্বর ০৭, ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

শেষ পাতা

পণ্য পরিবহন শুরু, স্বাভাবিক হয়নি বাস চলাচল

নিজস্ব প্রতিবেদক

সড়ক পরিবহন আইন সংশোধনের দাবিতে দুদিন ধর্মঘট পালনের পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর আশ্বাসে ফের কাজে যোগ দিয়েছেন ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান মালিক-শ্রমিকরা। গতকাল রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন বন্দর, গুরুত্বপূর্ণ বিভাগীয় জেলা শহরগুলো থেকে পণ্যবাহী গাড়ি চলাচল শুরু হয়েছে। পণ্যবাহী গাড়ি চলাচল শুরু হলেও এখনো কয়েকটি জেলায় কর্মবিরতি কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছেন বাস মালিক-শ্রমিকরা।

চলতি মাসে কার্যকর হওয়া সড়ক পরিবহন আইনের কয়েকটি ধারা সংশোধনের দাবিতে বুধবার অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট শুরু করে বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান পণ্য পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ। যদিও মঙ্গলবার থেকেই কার্যত বন্ধ হয়ে পড়ে দেশব্যাপী পণ্য পরিবহন। সংকট নিরসনে মঙ্গলবার রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে এক দফা বৈঠকে বসেন ঐক্য পরিষদের নেতারা। সেদিন বৈঠক ফলপ্রসূ না হওয়ায় বুধবার রাতে ফের মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বসেন তারা। বৈঠক শেষে মধ্যরাতে ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক রুস্তম আলী খান ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন।

বিষয়ে জানতে চাইলে রুস্তম আলী খান বণিক বার্তাকে বলেন, মৃত্যুদণ্ডের মতো শাস্তি বিপুল পরিমাণ জরিমানার খড়্গ মাথায় নিয়ে মালিক-শ্রমিকরা রাস্তায় গাড়ি নামাতে চাননি। তাদের চাপে অনেকটা বাধ্য হয়ে আমরা অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট কর্মসূচিতে যাই। এরপর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আমাদের দুই দফা মিটিং হয়েছে। মালিক-শ্রমিকরা যেসব যৌক্তিক দাবি করেছেন, সেগুলো তিনি মেনে নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন। মন্ত্রীর আশ্বাসে আমরা ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নিয়েছি। ভবিষ্যতে যদি দেখি, আমাদের দাবিগুলো অবাস্তবায়িত রয়ে যাচ্ছে, তাহলে আমরা কঠোর কর্মসূচিতে যাব।

বুধবার রাতে ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণার পর গতকাল রাজধানীতে স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে পণ্য পরিবহন। গতকাল তেজগাঁও ট্রান্সপোর্ট এজেন্সিগুলোয় কর্মব্যস্ততা চোখে পড়েছে। একাধিক এজেন্সির কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গতকাল অন্তত ৫০০ ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান বিভিন্ন গন্তব্যের জন্য ভাড়া দেয়া হয়েছে।

পণ্য পরিবহন স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে চট্টগ্রাম বন্দর থেকেও। যশোরের বেনাপোল দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর থেকেও শুরু হয়েছে পণ্যবাহী ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান চলাচল। বগুড়া, পাবনাসহ উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে রাজধানীসহ বিভিন্ন গন্তব্যে ছেড়ে গেছে পণ্যবাহী ট্রাক। পণ্যবাহী যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে দেশের অন্যান্য জেলায়ও।

যশোরে পণ্য পরিবহন স্বাভাবিক হলেও এখনো অব্যাহত রয়েছে বাস ধর্মঘট। টানা দ্বিতীয় দিনের মতো ধর্মঘট চালিয়ে যাচ্ছেন কুড়িগ্রামের পরিবহন শ্রমিকরাও। তবে অন্যান্য জেলায় ধর্মঘট গতকাল শিথিল হতে শুরু করেছে।

গতকাল ঢাকার গাবতলী বাস টার্মিনাল এলাকায় সরেজমিন ঘুরে সীমিত পরিসরে যানবাহন চলতে দেখা গেছে। ঢাকা শহরের অভ্যন্তরে বাস চলাচল স্বাভাবিক থাকলেও দূরপাল্লার বাস চলাচল অনেক কম ছিল, যা দুপুরের পর কিছুটা স্বাভাবিক হতে থাকে। মহাখালী টার্মিনালে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিভিন্ন গন্তব্যে বাস চলাচল করছে, তবে সংখ্যায় কম।

সড়ক পরিবহন সেতুমন্ত্রী গতকাল এক অনুষ্ঠানে নতুন সড়ক আইন প্রয়োগ নিয়ে বাড়াবাড়ি করা হবে না বলে মন্তব্য করেছেন। মন্ত্রীর মন্তব্যের সত্যতা মিলেছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) ভ্রাম্যমাণ আদালতের কার্যক্রমে। গতকাল ঢাকায় সাতটি মোবাইল কোর্ট বিভিন্ন অপরাধে সব মিলিয়ে ৩৭টি মামলা করেছেন। এসব মামলায় জরিমানা করা হয়েছে ৩৫ হাজার ৫০০ টাকা। যদিও ১৭ ১৮ নভেম্বর গড়ে ৮০টির বেশি মামলা লক্ষাধিক টাকার বেশি জরিমানা আদায় করেছিল বিআরটিএ।

এদিকে গাড়িচালক, মালিকসহ সড়ক ব্যবহারকারীদের সড়ক আইন মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। গতকাল ঢাকা মহানগর পুলিশের ট্রাফিক পক্ষের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মন্তব্য করেন তিনি। মন্ত্রী বলেন, আমাদের মধ্যে আইন মেনে চলার প্রবণতা অনেক কম। যদি আমরা ঠিকমতো আইন মানি, তাহলে সড়ক দুর্ঘটনা যেমন কমবে, তেমনি সড়কে শৃঙ্খলাও ফিরবে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন