শুক্রবার | ডিসেম্বর ০৬, ২০১৯ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

শেষ পাতা

এবার ধর্মঘটে ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান শ্রমিকরা

পণ্য পরিবহনে অচলাবস্থা

নিজস্ব প্রতিবেদক

সড়ক আইন সংশোধনের দাবিতে এবার আন্দোলনে যাচ্ছেন ট্রাক কাভার্ড ভ্যান মালিক-শ্রমিকরা। অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট ডেকেছে বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান পণ্য পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ। আজ সকাল থেকে ধর্মঘট শুরুর কথা বললেও কার্যত গতকাল থেকেই কমে এসেছে পণ্যবাহী গাড়ি চলাচল। অন্যদিকে একই দাবিতে কয়েকটি জেলায় গতকাল তৃতীয় দিনের মতো বন্ধ ছিল বাস চলাচল।

গতকাল রাজধানীর তেজগাঁওয়ে ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান পণ্য পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে আজ থেকে অনির্দিষ্টকালের পণ্য পরিবহন ধর্মঘটের ঘোষণা দেন সংগঠনটির আহ্বায়ক রুস্তম আলী। তাদের প্রধান দাবি, সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ সংশোধন করে বিভিন্ন দণ্ড জরিমানার পরিমাণ মালিক-শ্রমিকদের আয়ের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ করতে হবে। পাশাপাশি সড়ক দুর্ঘটনায় চালকদের এককভাবে দায়ী না করা, বড় ট্রাক-কাভার্ড ভ্যানের সক্ষমতা অনুযায়ী ওজন নিয়ে চলাচলের সুযোগ, সড়কে পুলিশি হয়রানি বন্ধ, দ্রুততম সময়ে বিআরটিএ থেকে ড্রাইভিং লাইসেন্স ইস্যু, পর্যাপ্ত টার্মিনাল নির্মাণসহ সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে বিভিন্ন দাবি জানিয়েছেন পরিবহন শ্রমিকরা। অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ঘোষণার পর পরই তেজগাঁও ট্রাক টার্মিনাল এলাকায় একই দাবিতে বিক্ষোভ করেন শ্রমিকরা।

ধর্মঘট ঘোষণার পর গতকাল দুপুর থেকেই পণ্যবাহী গাড়ি চলাচল কমিয়ে দিয়েছেন মালিক-শ্রমিকরা। নতুন করে কোনো ট্রাক বা কাভার্ড ভ্যান পণ্য পরিবহনের জন্য ভাড়া দেয়নি তেজগাঁওয়ের ট্রান্সপোর্ট এজেন্সিগুলো। একই অবস্থা দেখা গেছে ঢাকার অন্যান্য পণ্য পরিবহন এজেন্সিতেও। অন্যদিকে বিভিন্ন জেলায় গতকাল পণ্যবাহী গাড়ি চলেছে সীমিত পরিমাণে। সুযোগে ভাড়াও বাড়িয়ে দিয়েছেন পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা।

স্থলপথে দেশের আমদানি-রফতানি বাণিজ্যের অন্যতম কেন্দ্র হিলি স্থলবন্দর। স্বাভাবিক সময়ে বন্দরে প্রতিদিন সাড়ে চারশ থেকে পাঁচশ ট্রাক প্রবেশ করলেও গতকাল সংখ্যা তিনশতে নেমে এসেছে। এই সুযোগে টনপ্রতি পণ্য পরিবহন ভাড়া ২০০ টাকা পর্যন্ত বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। ট্রাকের সংখ্যা কমে যাওয়ায় পণ্যজট তৈরি হওয়ার কথা জানিয়েছেন হিলি স্থলবন্দরের জনসংযোগ কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন।

ঘোষিত সময়ের আগেই ধর্মঘট কার্যকরের বিষয়ে জানতে চাইলে পণ্য পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সদস্য সচিব তাজুল ইসলাম বণিক বার্তাকে বলেন, শাস্তি বিপুল অংকের জরিমানার ঝুঁকি নিয়ে মালিক-শ্রমিকরা রাস্তায় গাড়ি নামাতে চাইছেন না। এজন্য গতকাল সকাল থেকেই মালিক-শ্রমিকরা আমাদের কার্যালয় ঘেরাও করে রাখেন। মালিক-শ্রমিকদের চাপে আমরা অনেকটা বাধ্য হয়েই অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট কর্মসূচি দিয়েছি। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত ধর্মঘট অব্যাহত থাকবে।

পরিবহন শ্রমিকদের হঠাৎ ধর্মঘটের কারণে দেশের আমদানি-রফতানি বাণিজ্য মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে মনে করেন বাংলাদেশ নিটওয়ার ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিকেএমইএ) প্রথম সহসভাপতি মোহাম্মদ হাতেম। তিনি বণিক বার্তাকে বলেন, প্রতিদিন হাজার হাজার কনটেইনার পরিবহন করা হয়। দেশের আমদানি-রফতানি বাণিজ্যের গতি স্বাভাবিক রাখার স্বার্থেও ধর্মঘটের বিষয়ে সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া জরুরি। যত দ্রুত সম্ভব পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের সঙ্গে আলোচনা করে সমস্যার সমাধান না হলে বিপুল ক্ষতির মুখে পড়বে দেশের অর্থনীতি।

ধরনের ধর্মঘটের কোনো যৌক্তিকতা নেই বলে মন্তব্য করেছেন ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সহসভাপতি সিদ্দিকুর রহমান। তিনি বলেন, সব স্টেকহোল্ডারের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেই সড়ক আইন পাস কার্যকর করেছে সরকার। ধর্মঘটের পেছনে আইনের ভুল ব্যাখ্যা দেয়া হচ্ছে। যারা ধর্মঘটে যোগ দিচ্ছেন, তারা আসলে আইনটি সম্পর্কে সঠিকভাবে ওয়াকিবহাল না।

নতুন সড়ক আইনে গতকাল রাজধানীতে ৮৯টি মামলা করেছেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) ভ্রাম্যমাণ আদালত। এসব মামলায় লাখ ১৯ হাজার ২০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। তবে কাউকে কারাদণ্ড দেয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন বিআরটিএর পরিচালক (এনফোর্সমেন্ট) একেএম মাসুদুর রহমান।

এদিকে সড়ক আইন সংশোধনের দাবিতে অব্যাহত রয়েছে বাস ধর্মঘটও। খুলনার শ্রমিকরা আজ (বুধবার) থেকে বাস ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দিলেও দেশের অন্তত নয়টি জেলায় বাস ধর্মঘট চলমান থাকার কথা জানিয়েছেন বণিক বার্তার স্থানীয় প্রতিনিধিরা।

পিরোজপুর: গতকাল সকাল থেকে পিরোজপুরের সব রুটে অনির্দিষ্টকালের বাস ধর্মঘট শুরু হয়েছে। বাস না পেয়ে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন যাত্রীরা।

হিলি, দিনাজপুর: শনিবার থেকে শুরু হওয়া ধর্মঘট অব্যাহত রয়েছে। গতকাল টানা চতুর্থ দিনের মতো হিলি-বগুড়া রুটে বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে।

মেহেরপুর: টানা দ্বিতীয় দিনের মতো বাস ধর্মঘট চলছে। সড়ক আইন সংশোধন না হওয়া পর্যন্ত ধর্মঘট অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন মালিক-শ্রমিকরা।

নড়াইল: নড়াইলেও দ্বিতীয় দিনের মতো বাস ধর্মঘট অব্যাহত রয়েছে। নড়াইল-যশোর, নড়াইল-লোহাগড়াসহ অভ্যন্তরীণ পাঁচটি রুটে কোনো ধরনের বাস চলাচল করছে না।

সাতক্ষীরা: সোমবার শুরু হওয়া বাস ধর্মঘট গতকালও অব্যাহত ছিল। বন্ধ ছিল সব অভ্যন্তরীণ রুটের বাস চলাচল। স্বল্প দূরপাল্লায় যাতায়াতে যাত্রীদের ইজিবাইক ব্যবহার করতে দেখা গেছে।

ময়মনসিংহ: বাস ধর্মঘট শুরু হয়েছে ময়মনসিংহেও। অভ্যন্তরীণ আন্তঃজেলা রুটের সব ধরনের বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। ধর্মঘটের কারণে ত্রিশালের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দিতে আসা শিক্ষার্থীরা চরম দুর্ভোগে পড়েন গতকাল।

বরিশাল: গতকাল সকাল ১০টা থেকে বরিশাল থেকে সব রুটের বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। জেলা বাস মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাশরেক বাবলু জানান, আমাদের বাস চালনার ইচ্ছে আছে, কিন্তু শ্রমিকরা না চালালে আমাদের কী করার আছে।

যশোর: যশোরে টানা তৃতীয় দিনের মতো বাস ধর্মঘট চলছে। সড়ক আইন সংশোধন না হওয়া পর্যন্ত ধর্মঘট থেকে সরে আসার ব্যাপারে অনড় অবস্থায় রয়েছেন মালিক-শ্রমিকরা।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন