মঙ্গলবার | ডিসেম্বর ১০, ২০১৯ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

প্রথম পাতা

দুদিনের মধ্যে পেঁয়াজভর্তি উড়োজাহাজ পৌঁছবে: প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

দু-একদিনের মধ্যে উড়োজাহাজে পেঁয়াজ এসে পৌঁছবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গতকাল বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের তৃতীয় ত্রিবার্ষিক জাতীয় কাউন্সিলের উদ্বোধনী পর্বে প্রধান অতিথির ভাষণে তিনি বলেন, পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধির সমস্যা যাতে না থাকে, সে লক্ষ্যে কার্গো ভাড়া করে আমরা পেঁয়াজ আনা শুরু করেছি। কাল-পরশুর (আজ-কাল) মধ্যেই তা দেশে পৌঁছবে।

পেঁয়াজের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির পেছনে কোনো ষড়যন্ত্র থাকলে সরকার তা খতিয়ে দেখবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সব দেশেই পেঁয়াজের দাম বেড়েছে এটা ঠিক। কিন্তু আমাদের দেশে কী কারণে এত লাফিয়ে লাফিয়ে পেঁয়াজের দাম বাড়ছে, জানি না। আমরা দেখতে চাই, ধরনের চক্রান্তের সঙ্গে কেউ জড়িত রয়েছে কিনা। কেউ যদি এখন পেঁয়াজ মজুদ করে দাম বাড়িয়ে দুই টাকা কামাতে চান, তাদের এটাও চিন্তা করতে হবে, পেঁয়াজ তো পচেও যাবে। সেই পচা পেঁয়াজও এখন শুকানোর চেষ্টা হচ্ছে। তবে মানুষকে কষ্ট দেয়াটা কেন?

ব্যক্তি গোষ্ঠীস্বার্থে দেশের বিরুদ্ধে চক্রান্তে লিপ্ত একটি স্বার্থান্বেষী মহলের কঠোর সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, মানুষ যখন ভালো থাকে, সুস্থ থাকে, তখন একটি শ্রেণী আছে তারা মনঃকষ্টে ভোগে, অসুস্থতায় ভোগে। তাদের রোগ কীভাবে সারানো যায়, সেটা জনগণই বিবেচনা করবে, তারা দেখবে। যতই আমরা এগিয়ে যাই এবং মানুষ যত ভালো থাকে, একটা না একটা ইস্যু তৈরি করার মানুষকে বিভ্রান্ত করার একটা চেষ্টা করা হয়। এর পেছনে মূল কারণটা কী সেটা আমাদের খুঁজে বের করতে হবে।

আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনের সম্মেলনে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন। এর আগে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে বেলুন পায়রা উড়িয়ে কাউন্সিলের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। এর পরই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।

প্রধানমন্ত্রী পেঁয়াজ সম্পর্কে আরো বলেন, ভারতেও এখন পেঁয়াজের মূল্য অনেক। প্রায় ১০০ রুপি কেজি দরে সেখানে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে। শুধু একটা রাজ্যে দাম কম। তবে সেখানকার পেঁয়াজ বাইরে যেতে দেয়া হয় না।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার একাদশ জাতীয় সংসদের পঞ্চম অধিবেশনের সমাপনী ভাষণে মিসর, তুরস্কসহ কয়েকটি দেশ থেকে সরকারের ৫০ হাজার টন পেঁয়াজ আমদানির তথ্য জানান প্রধানমন্ত্রী। পেঁয়াজ টিসিবির মাধ্যমে বিভিন্ন জেলায় বিতরণের ব্যবস্থা করা হবে বলেও বক্তৃতায় উল্লেখ করেন তিনি।

তার সরকার বিভিন্ন সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর কর্মসূচি বাস্তবায়নের মাধ্যমে উন্নয়নের সুফল তৃণমূল পর্যায়ে পৌঁছে দিতে সক্ষম হয়েছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, দেশ দারিদ্র্যমুক্ত হলে দারিদ্র্য বিক্রি করে যারা চলত তাদের আঁতে ঘা লাগে। কাজেই তারা বারবারই এতে একটা বাগড়া দেয়ার অপপ্রচার চালানোর চেষ্টা করে। কেউ যেন অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হন।

তিনি বলেন, সরকার গঠনের পর থেকে আওয়ামী লীগ যে সেবাটা দিচ্ছে তা মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে হবে, মানুষের মাঝে আত্মবিশ্বাস সৃষ্টি করতে হবে। সেই সঙ্গে উন্নয়নের গতিধারাটা অব্যাহত রাখতে হবে।

সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, মাদক দুর্নীতিবিরোধী সরকারের কঠোর অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা দেশ থেকে মাদক, সন্ত্রাস, দুর্নীতি দূর করতে চাই। এর বিরুদ্ধে যে অভিযান চলছে তা আমরা অব্যাহত রাখব। কারণ বাংলাদেশের মানুষের জীবনে শান্তি নিরাপত্তা আমাদের নিশ্চিত করতে হবে। আর একটা শান্তিপূর্ণ পরিবেশ থাকলেই উন্নতিটা সম্ভব।

দুর্নীতি করে টাকা কেন বানাতে হবে, সে প্রশ্ন উত্থাপন করে তিনি বলেন, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড, চাঁদাবাজি, দুর্নীতির মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করে সেটা দিয়ে আবার বিলাস-ব্যসনে জীবনযাপন করা দেশের মানুষ কখনো বরদাশত করবে না। অসৎ পথে উপার্জিত অর্থ দিয়ে বিরিয়ানি খাওয়ার চেয়ে সৎ পথে নুন-ভাত খাওয়া অনেক সম্মানের, অনেক মর্যাদার, অনেক ভালো। এটাই হলো বাস্তবতা।

সময় তিনি বলেন, বিএনপি দুর্নীতি করে এত টাকা কামিয়েছিল যে জয়কে আমেরিকায় অপহরণ করে হত্যার উদ্দেশ্যে এফবিআইয়ের একজন এজেন্টকে পর্যন্ত তারা কিনে ফেলে। তারা আমার পরিবারের অর্থ-সম্পদ বিষয়ে খোঁজখবর করাও শুরু করে। সে তদন্ত করতে গিয়ে বের হয়ে এল খালেদা জিয়া তার দুই পুত্রের দুর্নীতির তথ্য। এফবিআইয়ের তদন্তেই বের হলো, একমাত্র বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী, তার ছেলে বোনের (শেখ রেহানা) বিষয়ে কোথাও কোনো রকম কমিশন খাওয়া, চাঁদা নেয়া বা দুর্নীতির কোনো দৃষ্টান্ত তারা পায়নি।

বিএনপিকে খুনি, দুর্নীতিবাজ অর্থ পাচারকারীদের দল আখ্যায়িত করে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, এরা আর কোনোদিন যেন বাংলাদেশের ক্ষমতায় আসতে না পারে, সে বিষয়ে বাংলাদেশের জনগণকে সচেতন করতে হবে। এরা আসা (ক্ষমতায়) মানেই বাংলাদেশের দুর্ভোগ। এরা ক্ষমতায় থাকা মানেই দেশকে একেবারে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাওয়া, আবার জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস শুরু হওয়া। তারা আবার বাংলা ভাই সৃষ্টি করবে। কারণ তারা নিজেরাই সন্ত্রাস জঙ্গিবাদে লিপ্ত।

আওয়ামী লীগ সহযোগী সংগঠন স্বেচ্ছাসেবক লীগের নাম উল্লেখ করে নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনাদের অনেক দায়িত্ব দেশের প্রতি, জনগণের প্রতি। কারণ জাতির পিতা দেশের মানুষের কল্যাণের জন্য রাজনীতি করে গেছেন। কাজেই দেশের মানুষের সেবা কতটুকু করা যায়, সেভাবেই আমাদেরও চিন্তা করতে হবে। একজন রাজনীতিকের জীবনে কী পেলাম, কী পেলাম না সেটা বড় কথা নয়। কতটুকু মানুষের জন্য করতে পারলাম, সেটাই বড় কথা। কতটুকু মানুষকে দিতে পারলাম, সে চিন্তা আদর্শ নিয়ে রাজনীতি করলে সে রাজনীতির কখনো মৃত্যু হয় না, ধ্বংস হয় না।

আইয়ুব খান, জিয়া, এরশাদ, খালেদা জিয়া বারবার আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছেন উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, তারা সফলতা পাননি। কারণ সংগঠনের শিকড় বাংলাদেশের মাটিতে গেড়ে আছে।

কেউ পেছনে পড়ে থাকবে না’— নীতি নিয়েই আওয়ামী লীগ সরকার পরিচালনা করছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, গ্রামের প্রত্যেক বাড়িকে একেকটি কৃষি খামার হিসেবে প্রতিষ্ঠার জন্য সরকার আমার বাড়ি আমার খামার প্রকল্প বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে।

প্রাক-প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনা মূল্যে পাঠ্য পুস্তক বিতরণ প্রাথমিক থেকে উচ্চশিক্ষা পর্যন্ত কোটি লাখ শিক্ষার্থীকে বৃত্তি-উপবৃত্তি প্রদানের তথ্য তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, আমাদের সাক্ষরতার হার এখন ৭৩ শতাংশে উন্নীত হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের প্রতিটি অঞ্চলে নারী-পুরুষ সমানভাবে উন্নয়নের সুফল পাচ্ছে। কারণ আওয়ামী লীগ যে নীতিমালা নিয়েছে, সাত গুণ বাজেট বৃদ্ধির মাধ্যমে যে অর্থনীতি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে, তাতে সমগ্র দেশ আজকে এগিয়ে যাচ্ছে।

স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন কমিটি: নির্মল রঞ্জন গুহকে সভাপতি আফজালুর রহমান বাবুকে সাধারণ সম্পাদক করে তিন বছরের জন্য আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল বিকালে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে কাউন্সিল অধিবেশনে সভাপতি সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

এছাড়াও ইসহাক মিয়াকে সভাপতি আনিসুর রহমান নাইমকে সাধারণ সম্পাদক করে ঢাকা মহানগর উত্তর এবং কামরুল হাসান রিপনকে সভাপতি তারেক সাঈদকে সাধারণ সম্পাদক করে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন