রবিবার | ডিসেম্বর ০৮, ২০১৯ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

দেশের খবর

খুলনায় ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাব

ক্ষতিগ্রস্ত ২৬০০০ হেক্টরের ফসল বিদ্যুতে ক্ষতি ১২ কোটি টাকা

বণিক বার্তা প্রতিনিধি খুলনা

 ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে খুলনা জেলায় ২৬ হাজার হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এর মধ্যে রোপা আমন ধান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ২৫ হাজার হেক্টরের এছাড়া বসতবাড়ির পাশাপাশি ক্ষতি হয়েছে খুলনা অঞ্চলের বিদ্যুৎ বিভাগেরও বিদ্যুতের খুঁটি পড়ে, তার ছিঁড়ে, ট্রান্সফরমার মিটার নষ্ট হয়ে ক্ষতি হয়েছে ১২ কোটি টাকার বেশি

খুলনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক পঙ্কজ কুমার মজুমদার জানান, এবার জেলায় ৯১ হাজার হেক্টর জমিতে আমন, হাজার ৬১০ হেক্টরে শাকসবজি, ৫০৩ হেক্টরে কলা, ৩৫৭ হেক্টরে পেঁপে, ৪০ হেক্টরে সরিষা ৭৯০ হেক্টর জমিতে পান চাষ করা হয়েছিল বুলবুলের প্রভাবে সব ফসলেরই কমবেশি ক্ষতি হয়েছে এর মধ্যে ২৫ হাজার হেক্টর জমির রোপা আমনের পাশাপাশি ৮৬৪ হেক্টরের শাকসবজি, ৫২ হেক্টরের কলা, ১০০ হেক্টরের পেঁপে, ৪০ হেক্টরের সরিষা ৩৬ হেক্টর জমির পান ক্ষতির শিকার হয়েছে

কয়রা সদরের ওড়াতলা এলাকার কৃষক আসাদুল ইসলাম বলেন, এবার তিনি তিন একর জমিতে ধান আবাদ করেছিলেন কিন্তু ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের তাণ্ডবে জমির সব ধান মাটিতে হেলে পড়েছে উপজেলার মহারাজপুর এলাকার কৃষক কামাল হোসেন আমন আবাদ করেছিলেন দুই একর জমিতে বুলবুলের প্রভাবে তার পুরো ক্ষেত নষ্ট হয়ে গেছে

কয়রার কৃষি কর্মকর্তা মিজান মাহমুদ বলেন, বুলবুলের কারণে পর্যন্ত উপজেলায় হাজার ৭২০ হেক্টর জমির আমন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এর মধ্যে ১৫০ হেক্টর জমির ধান পুরোপুরি পানিতে নিমজ্জিত অবস্থায় আছে ৭৫০ হেক্টর জমির ধানগাছ মাটিতে হেলে পড়েছে ধানের ফুল ঝরে পড়েছে ৮০০ হেক্টর জমির এছাড়া উপজেলার ২০০ হেক্টর জমিতে আবাদকৃত সবজির ৮৫ ভাগই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে উপজেলা পরিসংখ্যান অফিসের তথ্য অনুযায়ী, কয়রায় ৪০ হাজার কৃষক পরিবারের অধিকাংশই বুলবুলের কারণে ক্ষতির শিকার হয়েছে

মিজান মাহমুদ আরো জানান, নুয়ে পড়া ধান রক্ষায় কৃষকদের কয়েকটি ধানগাছ একসঙ্গে গোছা করে বেঁধে রাখার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে পদ্ধতিতে ডুবে যাওয়া ধানগাছ পচন থেকে রক্ষা করা যাবে তবে ফুল ঝরে পড়া গাছগুলোয় চিটা হওয়ার আশঙ্কা বেশি

ঘাটাখালী এলাকার কৃষক আবু তৈয়েব বলেন, আর কিছুদিন পরই আমরা আমন ধান কাটতে পারমাত কিন্তু ঝড়ের কারণে সব ধান পানিতে তলিয়ে আছে ফলে থেকে আর তেমন ফলন হবে না

কয়রা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শিমুল কুমার সাহা বলেন, উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের হাজার ৩০০ ঘরবাড়ি পুরোপুরি বিধ্বস্ত হয়েছে আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে হাজার ৮০০ ঘর

এদিকে খুলনা অঞ্চলে বুলবুলের কারণে ৯২৮টি বিদ্যুতের খুঁটি পড়ে যাওয়ার পাশাপাশি ছিঁড়ে গেছে সাত হাজার কিলোমিটার এলাকার তার এছাড়া শতাধিক ট্রান্সফরমার পাঁচ হাজার মিটার নষ্ট হয়েছে এতে বিদ্যুৎ বিভাগের ১২ কোটির বেশি টাকার ক্ষতি হয়েছে এর মধ্যে পল্লী বিদ্যুতের প্রায় কোটি ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির (ওজোপাডিকো) ক্ষতি হয়েছে কোটি ৭২ লাখ টাকা

ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের প্রধান প্রকৌশলী মো. আবু হাসান বলেন, বুলবুলের আঘাতে ওজোপাডিকোর আওতাভুক্ত এলাকার মধ্যে খুলনা, সাতক্ষীরা, বরগুনা, ঝালকাঠি চরফ্যাশন এলাকায় সব থেকে বেশি ক্ষতি হয়েছে এসব এলাকায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৫২৮টি খুঁটি ছিঁড়ে গেছে ২২৩ কিলোমিটার এলাকার বৈদ্যুতিক তার নষ্ট হয়েছে ৮২টি ট্রান্সফরমার সব মিলিয়ে এতে আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ কোটি ৭২ লাখ টাকা

তিনি আরো বলেন, ঝড়ের পর গত তিনদিনে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় সংস্কারকাজ করা হয়েছে এরই মধ্যে এসব এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করা হয়েছে তবে স্থানীয় পর্যায়ের কিছু সংস্কার এখনো চলছে ফলে ওইসব এলাকায় তাত্ক্ষণিকভাবে বিদ্যুতের লাইন বন্ধ রাখা হচ্ছে

এদিকে পল্লী বিদ্যুৎ খুলনার সিনিয়র জোনাল ম্যানেজার প্রকৌশলী আলতাফ হোসেন বলেন, বুলবুলের আঘাতের পর গত মঙ্গলবার পর্যন্ত খুলনা পল্লী বিদ্যুতের আওতাধীন আটটি উপজেলার ৯০ শতাংশ বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করা সম্ভব হয়েছে আজকের (গতকাল) মধ্যে শতভাগ বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করতে কাজ চলছে

তিনি আরো জানান, বুলবুলের কারণে পল্লী বিদ্যুতের ৪০০টি খুঁটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ২০ হাজার স্থানে তারের ওপর গাছ ডাল পড়েছে তার ছিঁড়ে গেছে দুই হাজার স্থানে এছাড়া ২০টি ট্রান্সফরমার পাঁচ হাজার মিটার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সব মিলিয়ে এতে আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে প্রায় কোটি টাকা

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন