শনিবার | ডিসেম্বর ০৭, ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

খবর

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুই ট্রেনের সংঘর্ষে কমপক্ষে ১৬ জন নিহত

বণিক বার্তা অনলাইন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় ভোরে দুই ট্রেনের মধ্যে এই সংঘর্ষে এ পর্যন্ত ১৬ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। আহত হয়েছেন আরো অর্ধশতাধিক যাত্রী। আহতদের স্থানীয় বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তাৎক্ষণিকভাবে নিহত কারও পরিচয় জানা যায়নি।

সোমবার দিবাগত রাত ২টা ৪৮ মিনিটে এই ঘটনা ঘটে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত উদ দৌলা দুর্ঘটনার এতথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, রাত ২ টা ৪৮ মিনিটে উপজেলার মন্দবাগে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী তূর্ণা নিশীথা ও সিলেট থেকে চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেন দুটির মধ্যে সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটে। এ সময় একটি ট্রেনের একাধিক বগি আরেকটি ট্রেনের কয়েকটি বগির ওপর উঠে যায়। উদ্ধার তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। এখন পর্যন্ত ১৬ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনাস্থলের কাছে একটি অস্থায়ী ক্যাম্প খোলা হয়েছে।

 স্থানীয়রা জানান, তূর্ণা নিশীথা ট্রেনের চালক সিগন্যাল (সংকেত) অমান্য করায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। মন্দবাগ রেলস্টেশনে দাঁড়ানোর জন্য এই সিগন্যাল দেওয়া হয়। ওই সিগন্যালে সিলেট থেকে ছেড়ে আসা চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেস প্রধান লেন থেকে ১ নম্বর লাইনে যেতে শুরু করে। ট্রেনটির ছয়টি বগি ১ নম্বর লাইনে উঠতে পেরেছিল। অন্য বগিগুলো প্রধান লেনে থাকা অবস্থায় তূর্ণা নিশীথা সিগন্যাল অমান্য করে। এতে তূর্ণা নিশীথার একাধিক বগি ওই ট্রেনের কয়েকটি বগির ওপর উঠে যায়। এতে উদয়নের তিনটি বগি দুমড়েমুচড়ে যায়। নিহত ১৬ জন সবাই উদয়নের যাত্রী বলে ধারণা করা হচ্ছে।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানিয়েছে, ঘটনাস্থলের কাছে বায়েক শিক্ষা সদন উচ্চবিদ্যালয়ে একটি অস্থায়ী ক্যাম্প খোলা হয়েছে। সেখানে ৯টি মৃতদেহ রয়েছে। কসবা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চারটি মৃতদেহ রয়েছে। এর মধ্যে একজন পুরুষ, একজন নারী ও একটি শিশু। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালে নারী ও পুরুষের দুটি মৃতদেহ রয়েছে। আর কুমিল্লা জেলা সদর হাসপাতালে একজন পুরুষের মৃতদেহ রয়েছে। 

ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ, রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় অধিবাসীরা উদ্ধারকাজ চালাচ্ছেন। দুর্ঘটনার পর ঢাকার সঙ্গে চট্টগ্রাম ও সিলেটের রেলযোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন