বুধবার | নভেম্বর ২০, ২০১৯ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

শেয়ারবাজার

বিএসইসি ও বিজিআইসির বিরুদ্ধে এলআর গ্লোবালের রিট

নিজস্ব প্রতিবেদক

সম্পদ ব্যবস্থাপক এলআর গ্লোবাল বাংলাদেশ অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড পরিচালিত মেয়াদি চার মিউচুয়াল ফান্ডের মাধ্যমে পুঁজিবাজারে কারসাজির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়ার অভিযোগের পাশাপাশি দুটি ফান্ডের সম্পদ ব্যবস্থাপক হিসেবে এলআর গ্লোবালকে সরিয়ে দেয়ার বেআইনি উদ্যোগ থেকে বিরত থাকার জন্য সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে রিট আবেদন করেছে এলআর গ্লোবাল বাংলাদেশ অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড। রিটে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি), কমিশনের সার্ভিল্যান্স বিভাগ এবং মিউচুয়াল ফান্ড, স্পেশাল পারপাস ভেহিকল ও করপোরেট ফিন্যান্স বিভাগের নির্বাহী পরিচালক এবং বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিকে (বিজিআইসি) বিবাদী করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, এলআর গ্লোবালের আইনজীবীর পক্ষ থেকে এরই মধ্যে অ্যাটর্নি জেনারেলের দপ্তরে রিট আবেদনের নোটিস পাঠানো হয়েছে। এ মাসের ৪ তারিখে নোটিসটি অ্যাটর্নি জেনারেলের কার্যালয় গ্রহণ করেছে। নোটিসে হাইকোর্ট বিভাগের ১৭ নং (অ্যানেক্স) আদালতে রিট আবেদনটি উপস্থাপন করা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

রিট আবেদনে বিএসইসির বিরুদ্ধে ডিবিএইচ ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, গ্রিনডেল্টা মিউচুয়াল ফান্ড, এলআর গ্লোবাল বাংলাদেশ মিউচুয়াল ফান্ড এবং এমবিএল ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ডের মাধ্যমে পুঁজিবাজারে কারসাজির বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণে বিরত থাকার পাশাপাশি এ ধরনের কারসাজি ঠেকাতে ব্যর্থতার  অভিযোগ আনা হয়েছে। এ ফান্ডগুলোর সম্পদ ব্যবস্থাপক হচ্ছে এলআর গ্লোবাল বাংলাদেশ অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট। তাছাড়া ডিবিএইচ ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড এবং গ্রিনডেল্টা মিউচুয়াল ফান্ডের সম্পদ ব্যবস্থাপক হিসেবে এলআর গ্লোবালকে পরিবর্তনের উদ্যোগ বেআইনি উল্লেখ করে এ ধরনের পদক্ষেপ থেকে বিরত থাকার জন্য বিএসইসির পক্ষ থেকে যাতে ট্রাস্টি বিজিআইসিকে নির্দেশ দেয়া হয়, সেজন্য আদালতের কাছে নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে।

রিট আবেদনে বলা হয়েছে, চার মিউচুয়াল ফান্ড নিয়ে কতিপয় ইউনিটহোল্ডারদের কারসাজির বিষয়টি এলআর গ্লোবালের পক্ষ থেকে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসিকে জানানো হলেও তারা এ বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নেয়া থেকে বিরত থেকেছে। অন্যদিকে ফান্ডের কারসাজির বিষয়ে অভিযোগ করার কারণে কারসাজির সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা ক্ষুব্ধ হয়ে ডিবিএইচ ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড ও গ্রিনডেল্টা মিউচুয়াল ফান্ডের সম্পদ ব্যবস্থাপক হিসেবে এলআর গ্লোবালকে পরিবর্তনের উদ্যোগ নিয়েছে। এ দুই ফান্ডের ট্রাস্টি বিজিআইসি ইউনিটহোল্ডারদের কাছ থেকে আবেদন পেয়ে এলআর গ্লোবালকে কোনো ধরনের শুনানির সুযোগ না দিয়েই সম্পদ ব্যবস্থাপক পরিবর্তনে বিএসইসির অনুমোদন চেয়েছে। এতে এলআর গ্লোবালের পক্ষে বিবাদীদের বেআইনি উদ্যোগ ঠেকাতে আদালতের দ্বারস্থ হওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় ছিল না বলে রিট আবেদনে বলা হয়েছে।

জানতে চাইলে এলআর গ্লোবালের আইনজীবী মোহাম্মদ আরশাদুর রউফ বণিক বার্তাকে বলেন, এলআর গ্লোবালের পক্ষ থেকে কারসাজির অভিযোগ করা সত্ত্বেও এ বিষয়ে ব্যবস্থা না নেয়া এবং এলআর গ্লোবালকে তাদের পরিচালিত ডিবিএইচ ফার্স্ট ও গ্রিনডেল্টা মিউচুয়াল ফান্ডের সম্পদ ব্যবস্থাপকের পদ থেকে পরিবর্তনের উদ্যোগের ওপর স্থিতাবস্থার জন্য আমরা আদালতে রিট আবেদন করেছি। রিট আবেদনটি এ মাসের ৫ তারিখে আদালতে শুনানির জন্য উপস্থাপন করা হলে বিবাদীদের পক্ষ থেকে সময় চাওয়া হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে আদালত ১১ নভেম্বর পরবর্তী শুনানির তারিখ নির্ধারণ করেছেন।

এদিকে এ বিষয়ে রিটের অন্যতম বিবাদী এবং বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সাইফুর রহমান কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএসইসির একজন কর্মকর্তা জানান, এলআর গ্লোবালের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে কমিশনের কাছে যে অভিযোগ করা হয়েছিল, সেটি এরই মধ্যে তদন্ত করা হয়েছে। তদন্তে কারসাজির কোনো প্রমাণ না পাওয়ায় অভিযোগটি নিষ্পত্তি করা হয়েছে। আদালতের কাছে এ বিষয়টি কমিশনের পক্ষ থেকে তুলে ধরা হবে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন