বুধবার | নভেম্বর ২০, ২০১৯ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

টেলিকম ও প্রযুক্তি

ভিডিও গেম

শিশু-কিশোরদের খেলার সময়সীমা বেঁধে দিল চীন

বণিক বার্তা ডেস্ক

শিশু-কিশোরদের অনলাইনে ভিডিও গেম খেলার সময়সীমা বেঁধে দিয়েছে চীন সরকার। কম বয়সীদের গেমিং আসক্তি কমাতে দীর্ঘদিন ধরেই নানা পদক্ষেপ নিচ্ছে সরকার। এরই অংশ হিসেবে সর্বশেষ  এ বিধিনিষেধ আরোপ করা হলো।

নতুন নির্দেশনাটি ১৮ বছরের কম বয়সীদের জন্য প্রযোজ্য হবে। এ বয়সী শিশু-কিশোররা রাত ১০টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত অনলাইনে গেম খেলতে পারবে না। দিনের বাকি সময় খেলার অনুমতি রয়েছে, তবে মাত্র ৯০ মিনিটের জন্য। খবর এএফপি।

সরকারের নির্দেশনায় অনলাইন গেমিংয়ে অর্থ খরচের সীমাও পুনর্নির্ধারণ করা হয়েছে। গেমিংয়ের পেছনে শিশু-কিশোররা প্রতি মাসে সর্বোচ্চ ২০০ ইউয়ান বা ২৮ ডলার খরচ করতে পারবে। তবে ১৬ থেকে ১৮ বছর বয়সীরা এক্ষেত্রে ৮০০ ইউয়ান পর্যন্ত খরচের অনুমতি পাবে।

এছাড়া অনলাইনে গেম খেলতে হলে অবশ্যই প্রকৃত পরিচয়জ্ঞাপক তথ্য দিয়ে অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। প্রকৃত নামের পাশাপাশি বিস্তারিত তথ্য যেমন উইচ্যাট অ্যাকাউন্ট, মোবাইল নম্বর অথবা জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর দিতে হবে।

গত মঙ্গলবার এ-সংক্রান্ত এক বিবৃতিতে সরকারের পক্ষ থেকে গেম প্রস্তুত ও পরিবেশক প্রতিষ্ঠানগুলোকে শিশু-কিশোরদের আসক্তি ঠেকাতে গেম কনটেন্ট ও খেলার নিয়মনীতিতে পরিবর্তন আনার নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।

ভিডিও গেমের সবচেয়ে বড় বাজার চীন। এ দেশে যেমন বৃহত্তম গেম নির্মাতা প্রতিষ্ঠান টেনসেন্ট রয়েছে, তেমনি গেমারের সংখ্যাও এখানে সর্বোচ্চ। দেশটিতে বিশেষ করে পড়ুয়াদের মধ্যে ভিডিও গেম আসক্তির কারণে নানা ধরনের স্বাস্থ্য সমস্যা, ক্ষীণ দৃষ্টি এবং ইন্টারনেট আসক্তির মতো সমস্যা প্রকট আকার ধারণ করছে।

এ আসক্তি থেকে কম বয়সীদের দূরে রাখতে নানা পদক্ষেপ নিচ্ছে চীন সরকার। গত বছর অনলাইনে কত গেম খেলা যাবে, সেটার একটি সংখ্যা নির্দিষ্ট করে দেয়া  হয়। নতুন গেম উন্মোচনেও বিধিনিষেধ আরোপের পাশাপাশি শিশু-কিশোরদের স্ক্রিন টাইম নিয়ন্ত্রণে আরো কিছু নির্দেশনা দেয় সরকার।

তবে সাইবার বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অনলাইনে খুব সহজে ভুয়া তথ্য দিয়ে অ্যাকাউন্ট খোলা যায়। ফলে চীন সরকারের উদ্যোগ প্রশংসাযোগ্য হলেও এসব বিধিনিষেধ কতটা কার্যকর হবে, তা নিয়ে সংশয় থেকেই যাচ্ছে।

বিষয়টি নিয়ে চীনে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে। গত বৃহস্পতিবার ওয়েইবোতে সর্বাধিক আলোচিত বিষয় ছিল এটি। চীনা সোস্যাল মিডিয়াটিতে নতুন নিয়ম সম্পর্কিত একটি হ্যাশট্যাগ ২১ কোটিবার দেখা হয়েছে। নেটিজেনরা বলছেন, এসব নিয়মনীতি শুধু স্কুলগামীদের কথা মাথায় রেখে করা হচ্ছে। ফলে সবার জন্য তা কার্যকর হবে না।

 

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন