বৃহস্পতিবার | নভেম্বর ২১, ২০১৯ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

শেষ পাতা

নির্মাণের পর থেকেই পরিত্যক্ত ৪ কোটি টাকার সুইমিংপুল

ওমর ফারুক চট্টগ্রাম ব্যুরো

নগরীর শিশু-কিশোরদের সাঁতার শেখাতে কোটি টাকা ব্যয়ে দুটি সুইমিংপুল নির্মাণ করেছিল চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন। পাঁচলাইশ আবাসিক এলাকার জাতিসংঘ পার্কে নির্মিত সুইমিংপুলটিতে মাত্র একদিনের জন্য সাঁতার প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছিল। এরপর চার বছর ধরে পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে আছে এটি। শুধু সুইমিংপুল নয়, সিটি করপোরেশনের অধীন নগরের অন্যতম উন্মুক্ত পরিসর জাতিসংঘ পার্কটিও পরিত্যক্ত পড়ে আছে এখন।

নগর পরিকল্পনাবিদরা বলছেন, জাতিসংঘ পার্কে অপরিকল্পিতভাবে সুইমিংপুলটি নির্মাণ করেছিল সিটি করপোরেশন। কিন্তু এত টাকা দিয়ে নির্মাণের পর এটিকে কেন এভাবে ফেলে রাখা হয়েছে, তা- বোধগম্য নয়। অবিলম্বে পার্ক সুইমিংপুল দুটিই চালু করার দাবি জানিয়েছেন তারা।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের তথ্যমতে, ২০১২ সালে জাতিসংঘ পার্কের একাংশে এক একর জায়গার ওপর সুইমিংপুল জিমনেশিয়াম নির্মাণের উদ্যোগ নেয় সাবেক মেয়র এম মনজুর আলম। এছাড়া সাত হাজার বর্গফুট জায়গার ওপর নির্মাণ করা হয়েছে জিমনেশিয়াম ভবনটি। ওই বছরের ডিসেম্বরে নির্মাণকাজ শুরু হয়। ২০১৫ সালের জুনে নির্মাণ শেষে সিটি করপোরেশনকে তা বুঝিয়ে দেয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। নির্মিত দুটি সুইমিংপুলের প্রতিটির দৈর্ঘ্য ১২০ ফুট এবং প্রস্থ ৫০ ফুট। একটির গভীরতা আট ফুট, অন্যটির সাড়ে আট ফুট। নির্মাণের উদ্যোগ নিলেও মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়া সুইমিংপুলটি উদ্বোধন করে যেতে পারেননি এম মনজুর আলম।

২০১৫ সালের ২৬ জুলাই চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র হিসেবে দায়িত্ব নেন নাছির উদ্দীন। অপরিকল্পিতভাবে সুইমিংপুলটি নির্মাণ করা হয়েছে অভিযোগ তুলে ২০১৬ সালে জাতিসংঘ পার্ককে এলিট পার্ক লিমিটেড নামে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে ২৫ বছরের জন্য ইজারা দেয়ার উদ্যোগ নেন তিনি। প্রতিষ্ঠানটি সেখানে কমিউনিটি সেন্টার গেস্ট হাউজসহ বিভিন্ন বাণিজ্যিক স্থাপনা নির্মাণের পরিকল্পনা নিয়েছিল। সিটি মেয়রের বাণিজ্যিক উদ্যোগ তত্কালীন গৃহায়ন গণপূর্তমন্ত্রী মোশাররফ হোসেন এবং পাঁচলাইশ আবাসিক সমিতির বাধার মুখে পড়ে আর বাস্তবায়ন হয়নি। পার্কের মালিকানা নিয়েও সরকারি দুই সংস্থা গণপূর্ত বিভাগ সিটি করপোরেশন দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়ে। পরে জাতিসংঘ পার্কে ১২ কোটি টাকার প্রকল্প নেয় গণপূর্ত অধিদপ্তর। সিটি করপোরেশনের বাধার মুখেও তা বাস্তবায়ন করতে পারেনি তারা। কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন সুইমিংপুলটিতে ২০১৭ সালের মে একদিনের জন্য সাঁতার প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিল চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থা। এখন জাতিসংঘ পার্ক, সুইমিংপুল জিমনেশিয়াম ভবনটি পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে আছে।

বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা বলেন, সুইমিংপুল জিমনেশিয়ামটি কেন ব্যবহার হচ্ছে না, তা জানা নেই। যখন প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হয়েছে, তখন আমি দায়িত্বে ছিলাম না। শুনেছি পার্কটির উন্নয়নে মেয়র একটি প্রকল্প নিয়েছিলেন। স্থানীয় লোকজনের বিরোধিতার কারণে প্রকল্পটি আর বাস্তবায়ন হয়নি। এরপর থেকে এটি পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। তবে জাতিসংঘ পার্কসহ তিনটি জায়গায় পরিকল্পিতভাবে দৃষ্টিনন্দন করার জন্য ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ইনস্টিটিউটকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তাদের পরিকল্পনা হাতে পেলে জাতিসংঘ পার্কের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

সিটি করপোরেশন সূত্র জানায়, লালদীঘি এবং লালদীঘি পার্ক মাঠ, আগ্রাবাদ ডেবা জাতিসংঘ পার্ককে ঘিরে পরিকল্পিতভাবে দৃষ্টিনন্দনের পরিকল্পনা করতে বেসরকারি ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর ইনক্লুসিভ আর্কিটেকচার অ্যান্ড আরবানিজমকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী তিনটি উন্মুক্ত পরিসরে প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন।

পরিকল্পিত চট্টগ্রাম ফোরামের সভাপতি ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক মু. সিকন্দার খান বলেন, পাঁচলাইশ আবাসিকের মতো জনবহুল এলাকায় অবস্থিত নগরের একটি গুরুত্বপূর্ণ উদ্যান পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে থাকা কোনোভাবে কাম্য নয়। নগরে এমনিতে খোলা জায়গার অভাব। এর মধ্যে যে দু-একটি আছে, তা- যদি অযত্ন-অবহেলায় পড়ে থাকে, তাহলে মানুষ উন্মুক্ত পরিসরে শ্বাস নেবে কোথায়? অবিলম্বে জাতিসংঘ পার্কটি ব্যবহার উপযোগী করে সাধারণ মানুষের জন্য খুলে দেয়া প্রয়োজন।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন