শুক্রবার | ডিসেম্বর ০৬, ২০১৯ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

আন্তর্জাতিক ব্যবসা

ব্যয়সংকোচনে এক বেসরকারি ব্যাংকের অভিনব পন্থা

বণিক বার্তা ডেস্ক

ইন্দোনেশিয়ার বৃহত্তম বেসরকারি ব্যাংকটির ভাইস প্রেসিডেন্ট ডিরেক্টর হওয়ার কয়েক সপ্তাহ পর আরমান্দ ওয়াহাইদু দেখলেন তার কর্মীরা কাজের পর অর্ধেক পানিভর্তি গ্লাস ফেলে রাখেন। নজরে আসার পরদিনই তিনি ব্যাংক সেন্ট্রাল এশিয়ার খাবার পানীয়ের পরিমাণ সীমিত করে দেন। ঋণদাতা প্রতিষ্ঠানটি কীভাবে ব্যয়সংকোচন করে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আস্থা ফিরিয়ে এনেছে, পদক্ষেপটি তার একটি উদাহরণ। ২০০০ সালে পাবলিক হওয়ার পর বিনিয়োগকারীরাই ব্যাংকটিকে প্রতি বছরে ধাপে ধাপে এগিয়ে নিয়েছে। ব্যতিক্রম ছিল শুধু বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকটের বছর ২০০৮। বর্তমানে হাজার কোটি ডলারের বাজারমূল্যে বিশ্বের সবচেয়ে দামি ব্যাংকের কাতারে দাঁড়িয়েছে ব্যাংক সেন্ট্রাল এশিয়া (বিসিএ) বিনিয়োগকারীরা ব্যাংকটিতে আরো বিনিয়োগে মুখিয়ে রয়েছে।

অ্যাবারদিন স্ট্যান্ডার্ড ইনভেস্টমেন্ট ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তাভিত্তিক বিনিয়োগ পরিচালক ভারত জোশি বলেন, অস্থিতিশীল সময়টায় উচ্চমূল্যের বিসিএ বিনিয়োগের জন্য আস্থাজাগানিয়া কোম্পানি হিসেবে দাঁড়িয়েছে। বিসিএর ১৭ কোটি শেয়ারের মালিক প্রতিষ্ঠানটির মুখপাত্র আরো বলেন, আমরা বিভিন্ন কারণে ব্যাংকটিকে পছন্দ করি; তবে সবচেয়ে শীর্ষে রয়েছে এর শক্তিশালী ব্যবস্থাপনা সক্ষমতা এবং পরীক্ষিত ট্র্যাক রেকর্ড।

ইন্দোনেশিয়ার ক্রমবর্ধমান মধ্যবিত্ত শ্রেণীর কারণে সুবিধা পাচ্ছে বিসিএ। ২৬ কোটি জনসংখ্যা অধ্যুষিত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশটি ২০২০ সালে সাত বছরের সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জন করতে যাচ্ছে।

রাস্তায় টোল সংগ্রহসহ বিভিন্ন কাজে -পেমেন্ট ব্যবহারে ২০১৭ সালে প্রেসিডেন্ট জোকো উইডোডোর নির্দেশনায় ইলেকট্রনিক লেনদেন তিন গুণ বেড়েছে, যা ব্যাংকিং খাতকে চাঙ্গা করেছে। ব্যাংক ইন্দোনেশিয়ার উপাত্তে এমনটাই উঠে এসেছে।

পিটি মিরা অ্যাসেট সিকিউরিটাস ইন্দোনেশিয়ার ডিরেক্টর অব ক্যাপিটাল মার্কেটস তাই শিম বলেন, যেমনটা বলা হচ্ছে তার চেয়েও দ্রুতগতিতে ইন্দোনেশীয়রা বিত্তশালী হচ্ছে। তারা আরো স্মার্ট হয়েছে এবং আরো বেশি অর্থ সঞ্চয় করছে। দেশটির ব্যাংকিং খাত আরো চাঙ্গা হবে। স্মার্ট ধনী ইন্দোনেশীয়রা বিসিএর মতো ব্যাংককে পছন্দ করছে।

ব্যয়ের রাশ টেনে ধরা বিসিএর কৌশলের মূল। পানি সীমিত করার পাশাপাশি সব কর্মীর জন্য ইন্টারনেট কোটাও প্রয়োগ করেছে ব্যাংকটি। এমনকি জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারাও বিধিনিষেধের আওতায় এসেছেন। এমনকি সভাকক্ষটিও আর বিনামূল্যে দেয়া হচ্ছে না; তা ব্যবহারে বিভিন্ন বিভাগকে অর্থ প্রদান করতে হচ্ছে।

ব্লুমবার্গের সংগৃহীত উপাত্তে দেখা গেছে, বিসিএর পরিচালন ব্যয় রেশিও ৬৩ শতাংশ, যা ইন্দোনেশিয়ার সবচেয়ে বড় বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর মধ্যে সর্বনিম্ন। গত এক দশকে দুই বছর বাদে ব্যাংকটির মুনাফা প্রতি বছর ১০ শতাংশ করে বেড়েছে।

ঋণ লেবেল স্বাস্থ্যকর রাখার সুনামও রয়েছে বিসিএর। চলতি বছরের প্রথমার্ধে ব্যাংকটির কুঋণ ছিল দশমিক ৪০ শতাংশ, যা শিল্পের গড় দশমিক ৫০ শতাংশের বেশ কম। চলতি মাসে ব্যাংকটির প্রেসিডেন্ট ডিরেক্টর জাহজা সেটিয়াটমাদজা জানান, চলতি বছরে ব্যাংকটি ১১ শতাংশ ঋণ প্রবৃদ্ধি লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করবে বলে আশা করছেন তিনি।

জেপি মরগান অ্যাসেট ম্যানেজমেন্টের হেড অব এশিয়ান ইকুইটিজ পলাইন এনজি বলেন, বেসরকারিভাবে পরিচালিত হয় বলে সর্বদা ব্যাংকটির সব সিদ্ধান্ত অর্থনৈতিক ভিত্তিতে নেয়া হয়। আমাদের মতে, এটি সর্বোত্তমভাবে পরিচালিত ইন্দোনেশিয়ার সেরা বেসরকারি ব্যাংক।

চলতি বছরে শেয়ারদর ১৯ শতাংশ বৃদ্ধিতে বিসিএর বাজারমূল্য ৯০০ কোটি ডলার বেড়েছে। হাজার ৪০০ কোটি ডলার বাজারমূল্য নিয়ে জাকার্তা স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত বৃহত্তম ঋণদাতা প্রতিষ্ঠান বিসিএ।          সূত্র: ব্লুমবার্গ

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন