শুক্রবার | ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯ | ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

শেষ পাতা

দেশে গরুর সংখ্যা ২ কোটি ৮৪ লাখ ছাগল ১ কোটি ৯২ লাখ

নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশে গরুর সংখ্যা বেড়েছে। সর্বশেষ কৃষিশুমারি অনুযায়ী, দেশে গরুর সংখ্যা ২ কোটি ৮৪ লাখ ৮৭ হাজার ৪১৫। এর বিপরীতে কমেছে ছাগলের সংখ্যা। বর্তমানে দেশে ছাগলের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৯২ লাখ ৮৭ হাজার ৪১৩। গতকাল প্রকাশিত কৃষিশুমারি ২০১৯-এর প্রাথমিক ফলাফলে এ তথ্য উঠে এসেছে।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) এ শুমারির ফলাফলে দেখা যায়, দেশে ২ কোটি ৭৬ লাখ ৫৮ হাজার ৪৮৮টি গরু রয়েছে গ্রামে। শহরে এ সংখ্যা ৮ লাখ ২৮ হাজার ৯২৭। অন্যদিকে, ১ কোটি ৮৭ লাখ ৭৩ হাজার ৮৪৪টি ছাগল রয়েছে গ্রামীণ পরিবারে। আর শহরে লালন-পালন করা হচ্ছে ৫ লাখ ১৩ হাজার ৫৬৯টি ছাগল।

গত বছর প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, দেশে গরুর সংখ্যা ২ কোটি ৩৯ লাখ। আর ছাগলের সংখ্যা ২ কোটি ৫৯ লাখ। এ হিসাবে দেশে গরুর সংখ্যা বেড়েছে ৪৬ লাখ। এর বিপরীতে ছাগলের সংখ্যা কমেছে ৬৬ লাখ।

সর্বশেষ কৃষিশুমারি অনুযায়ী, দেশে বর্তমানে মুরগির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৮ কোটি ৯২ লাখ ৬২ হাজার ৯০১ ও হাঁস ৬ কোটি ৭৫ লাখ ২৯ হাজার ২১০টি। এছাড়া ১৪ লাখ ৪৫ হাজার ৪২০টি টার্কি, ৭ লাখ ১৮ হাজার ৪১১টি মহিষ ও ৮ লাখ ৯২ হাজার ৬২৮টি ভেড়া আছে দেশে।

কৃষিশুমারি ২০১৯-এ প্রাপ্ত ফলাফলের ভিত্তিতে দেশে মোট খানার সংখ্যা ৩ কোটি ৫৫ লাখ ৩৩ হাজার ১৮০। এর মধ্যে মত্স্য খানা রয়েছে ৯ লাখ ৯৫ হাজার ১৩৫, কৃষি মজুর খানা ৯০ লাখ ৯৫ হাজার ৯৭৭, নিজস্ব জমি নেই এমন খানা ৪০ লাখ ২৪ হাজার ১৮৯, বর্গাচাষভিত্তিক খানা ৬৭ লাখ ৬৩ হাজার ৪৮৭ ও কৃষি খানা ১ কোটি ৬৫ লাখ ৬২ হাজার ৯৭৪টি।

শুমারির প্রাথমিক ফলাফল প্রকাশ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান। বিবিএসের মহাপরিচালক তাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন মত্স্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব রইছউল আলম মন্ডল, কৃষি সচিব মো. নাসিরুজ্জামান, পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব সৌরেন্দ্র নাথ চক্রবর্তী।

মত্স্য ও প্রাণিসম্পদ সচিব মো. রইছউল আলম মন্ডল বলেন, আমাদের জন্য এখন নির্ভরযোগ্য উপাত্ত খুবই জরুরি। নির্ভরযোগ্য উপাত্ত না থাকলে নিজেদের উন্নয়নকে আমরা বৈশ্বিক পরিমণ্ডলে তুলে ধরতে পারব না। এসডিজি বাস্তবায়নে আমাদের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হলো নির্ভরযোগ্য উপাত্ত। কৃষি শুমারিতে অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় উঠে এলেও কিছু বিষয় বাদ পড়ে গেছে। কৃষি শুমারির প্রশ্নপত্রে ডিমকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। মাছের বিষয়ে বিস্তারিত কিছু পাওয়া যাচ্ছে না। এ বিষয়গুলোকে আমাদের অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন