বৃহস্পতিবার | নভেম্বর ২১, ২০১৯ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

শেষ পাতা

আইন প্রয়োগে ইউজিসিকে কঠোর হওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

বণিক বার্তা ডেস্ক

দেশের সরকারি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালগুলোর তদারকিতে কঠোরভাবে নিয়মকানুন অনুসরণ করতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনকে (ইউজিসি) নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। চেয়ারম্যান অধ্যাপক . কাজী শহীদুল্লাহর নেতৃত্বে ইউজিসির একটি প্রতিনিধি দল গতকাল প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে নির্দেশ দেন তিনি। খবর বাসস।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আইনের বাইরে যাবেন না এবং দেশের সরকারি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো তদারক করার ক্ষেত্রে নিয়মগুলো কঠোরভাবে অনুসরণ করুন।

প্রধানমন্ত্রী সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত বেসরকারি কলেজগুলোর প্রতিও নজরদারি বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, একটি আইন তৈরির মাধ্যমে ইউজিসিকে শক্তিশালী করা হবে। ফলে এর সক্ষমতাও অনেকাংশে বাড়বে।

সরকারি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে নজরদারির ক্ষেত্রে তারা কঠোরভাবে আইন অনুসরণ করেন উল্লেখ করে ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন, আমরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলো পরিচালনার ক্ষেত্রে কোনো ধরনের অনিয়মের অনুমতি দেব না। প্রতিনিধি দলের সদস্যরা ইউজিসির কর্মকাণ্ড সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রীকে অবগত করেন।

তারা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় গবেষণার জন্য একটি নীতিমালার রূপরেখা প্রণয়ন করেছেন জানিয়ে ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন, আমরা শিক্ষকদের জন্য বাংলাদেশ লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের (বিপিএটিসি) মতো একটি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট চাই।

অধ্যাপক কাজী শহীদুল্লাহ বলেন, দেশে বর্তমানে ১৫৫টি সরকারি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। এর মধ্যে অন্তত ৩০টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনার ক্ষেত্রে অনিয়ম খুঁজে পাওয়া গেছে। এত বিপুলসংখ্যক বিশ্ববিদ্যালয় পর্যবেক্ষণে কমিশনের জনবল বাড়নো উচিত। অতীতের জনবল নিয়ে ইউজিসি কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান প্রধানমন্ত্রীর সচিব সাজ্জাদুল হাসান সময় উপস্থিত ছিলেন।

ফিফা সভাপতির সাক্ষাৎ: প্রধানমন্ত্রীর তেজগাঁও কার্যালয়ে গতকাল ফিফা সভাপতি জিয়ান্নি ইনফ্যান্তিনো তার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। সময় তিনি বলেন, বাংলাদেশের ফুটবলের উন্নয়নে আমরা আমাদের সমর্থন সহযোগিতা অব্যাহত রাখব।

বাংলাদেশ ফুটবল দলের সাম্প্রতিক সাফল্যের ভূয়সী প্রশংসা করে ইনফ্যান্তিনো বলেন, সাম্প্রতিককালে বাংলাদেশের ফুটবলের উল্লেখযোগ্য উন্নয়ন সাধিত হয়েছে।

কলকাতায় গত মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ-ভারত বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের খেলাটি আলোচনায় উঠে আসে। ফিফা সভাপতি বলেন, ফুটবল থেকে অনেক কিছু শিক্ষণীয় রয়েছে, বিশেষ করে শৃঙ্খলার বিষয়টি।

তিনি বাংলাদেশে ফুটবলের উন্নয়নে সরকার গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপেরও প্রশংসা করেন। পাশাপাশি ফিফার সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষার জন্যও বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনকে (বাফুফে) পরামর্শ দেন।

প্রধানমন্ত্রী ফুটবলকে দেশের একটি জনপ্রিয় খেলা হিসেবে উল্লেখ করে তার দাদা এবং বাবাও ফুটবল খেলতেন বলে স্মরণ করেন। তিনি বলেন, তার ভাই শেখ কামাল বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় খেলাধুলার সংগঠন আবাহনী ক্রীড়া চক্রের প্রতিষ্ঠাতা।

দেশের খেলাধুলার উন্নয়নে তার সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সারা দেশে ৪৯২টি মিনি স্টেডিয়াম স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে সরকার। দেশে নতুন খেলোয়াড় অন্বেষণে প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যায়ে ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হচ্ছে। আমরা ছেলে এবং মেয়েদের জনপ্রিয় খেলা ফুটবলে অংশগ্রহণের জন্য অনুপ্রেরণা জোগাচ্ছি।

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প বিনিয়োগ-বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, যুব ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, বাফুফে সভাপতি কাজী সালাহউদ্দিন, বাফুফের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদী এবং সহসভাপতি কাজী নাবিল আহমেদ সময় উপস্থিত ছিলেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন