বুধবার | মে ২৭, ২০২০ | ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

ভ্রমণ

ভ্রমণের জন্য অর্থ সঞ্চয় করুন

ফিচার ডেস্ক

কেবল অর্থ সাশ্রয় করা যথেষ্ট নয়। এটার জন্য আপনার নির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করা উচিত। অবসর সময়ে মাথা ঠাণ্ডা করে বসুন এবং আপনার আয়-ব্যয় হিসাব করুন

ভোরের প্রকৃতিতে হাত বাড়ালেই ঠাণ্ডা ঠাণ্ডা ভাব। উত্তর থেকে আসছে শিরশিরে বাতাস। সকাল-সন্ধ্যা ঘাসের ওপর মুক্তোর মতো দেখা যাচ্ছে শিশিরের কণা। গাছ থেকে ঝরছে পাতা, ঝরছে শিউলি ফুল। শেষ রাতে গায়ে চাদর চাপাচ্ছেন অনেকেই। শীত আসার এ বার্তায় কোথায় ঘুরতে যাওয়া যায়, তা নিয়ে অনেকেই ভ্রমণ পরিকল্পনা শুরু করে দিয়েছেন। ভ্রমণ মানেই অতিরিক্ত খরচ। অনেকেরই সামর্থ্য থাকে না হঠাৎ করে এমন অতিরিক্ত খরচ বহনের। এজন্য আপনি যদি বেশ কিছুদিন ধরে অর্থ সংরক্ষণ করতে পারেন। তবে ভ্রমণের খরচ বহনে আপনার ওপর খুব বেশি চাপ পড়বে না। চলুন জেনে নিই, ভ্রমণের জন্য আপনি কীভাবে অর্থ সাশ্রয় করতে পারেন।

অপ্রয়োজনীয় ব্যয় কমিয়ে ফেলুন

দামি জিনিস যেটা মনে করছেন আপনার কেনা দরকার বা নতুন আসা চলচ্চিত্র যেটা আপনার দেখা দরকার অথবা ভেবেছিলেন বড় কোনো রেস্তোরাঁয় ডিনারে যাবেন। এমন সব খরচ কিন্তু আপনি সহজেই কমিয়ে ফেলতে পারেন। এ অর্থটা সংরক্ষণ করতে পারেন ভ্রমণের জন্য। আপনি যদি সত্যিই ভ্রমণের জন্য অর্থ সঞ্চয় করতে চান, তবে আপনাকে নিত্যদিনের চাহিদা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সাজাতে হবে। এরপর খুব বেশি প্রয়োজন নেই, এমন জিনিসের পেছনে ব্যয় কমিয়ে ফেলুন। এক্ষেত্রে আপনি প্রতি মাসের খরচের হিসাব রাখতে পারেন। এজন্য অনেক মোবাইল অ্যাপ রয়েছে। তাহলে বুঝতে পারবেন, আপনার কোথায় কোথায় টাকা খরচ হচ্ছে। এটা দেখে পরে অপ্রয়োজনীয় খরচ কমাতে পারবেন।

সঞ্চয় পরিকল্পনা করুন

কেবল অর্থ সাশ্রয় করা যথেষ্ট নয়। এটার জন্য আপনার নির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করা উচিত। অবসর সময়ে মাথা ঠাণ্ডা করে বসুন এবং আপনার আয়-ব্যয় হিসাব করুন। আপনার ব্যয়গুলো বের করে সবটা থেকে ২-১ শতাংশ গণনা করুন, যা আপনি প্রতি মাসে আলাদা করতে পারেন। সঞ্চয় করা টাকা রাখার জন্য আলাদা একটা অ্যাকাউন্ট খুলুন এবং প্রতি মাসে বেতন পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ওই ১ বা ২ শতাংশ অর্থ সঞ্চয়ী অ্যাকাউন্টে স্থানান্তর করুন।

অব্যবহূত জিনিস বিক্রি করে দিন

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন