বৃহস্পতিবার | নভেম্বর ২১, ২০১৯ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

আন্তর্জাতিক ব্যবসা

তুরস্কের হাল্কব্যাংকের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গের অভিযোগ যুক্তরাষ্ট্রের

বণিক বার্তা ডেস্ক

তুরস্কের হাল্কব্যাংকের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের ইরান নিষেধাজ্ঞা এড়িয়ে শতকোটি ডলারের লেনদেনের অভিযোগ তুলেছে ওয়াশিংটন। মার্কিন কৌঁসুলিদের আনীত অভিযোগের ফলে ন্যাটো মিত্র ওয়াশিংটন আঙ্কারার মধ্যে তিক্ততা বৃদ্ধির ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। খবর রয়টার্স।

ম্যানহাটনের আদালতে উপস্থাপিত মামলায় দেখা গেছে হাল্কব্যাংকের সাবেক নির্বাহী মেহমেত আতিলা ঘটনায় দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন, গত বছর একই আদালতে বিচারে কারাদণ্ড পেয়েছেন তিনি।

বিষয়ে নির্ধারিত সময়ের পর তুর্কি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে কোনো উত্তর পাওয়া যায়নি। অন্যদিকে ব্যাংকটির এক মার্কিন আইনজীবীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি মন্তব্যে অস্বীকৃতি জানান।

সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলে কুর্দি নেতৃত্বাধীন মিলিশিয়াদের বিরুদ্ধে তুরস্কের সামরিক অভিযানের পরিপ্রেক্ষিতে ওয়াশিংটন আঙ্কারার মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। সামরিক আগ্রাসনের জবাবে শাস্তি হিসেবে সোমবার আঙ্কারার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

তুরস্ককে যুদ্ধবিরতিতে বাধ্য করা এবং ট্রাম্প প্রশাসনের নীতি স্পষ্ট করতে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগানের সঙ্গে বৈঠকের উদ্দেশ্যে আগামী বৃহস্পতিবার আঙ্কারা যাচ্ছেন যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স।

ওয়াশিংটনে তুর্কি দূতাবাসের এক কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, অভিযোগটি তুর্কি-মার্কিন সম্পর্কের বর্তমান অবস্থা উত্তরণে সহায়তা করবে না বলেই মনে হচ্ছে।

অক্টোবর ট্রাম্পের সঙ্গে ফোনালাপে এরদোগান জানিয়েছিলেন, তিনি সিরিয়ায় মার্কিন সমর্থনপুষ্ট কুর্দিদের বিরুদ্ধে পূর্বপরিকল্পিত অভিযান পরিচালনা করতে যাচ্ছেন। গত সপ্তাহে তুরস্কের সামরিক আগ্রাসনের ফলে আট বছর ধরে চলা সিরিয়া যুদ্ধে নতুন ফ্রন্ট চালু হলো।

আকস্মিক নীতিগত অবস্থান পরিবর্তনের মাধ্যমে সিরিয়া থেকে সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন ট্রাম্প। ইসলামিক স্টেট (আইএস) নির্মূলে মার্কিন সেনাদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করেছে কুর্দি নেতৃত্বাধীন সিরিয়ান ডেমোক্রেটিক ফোর্সেস (এসডিএফ)

মঙ্গলবারের অভিযোগটি বেশ কয়েকটি ফৌজদারি মামলার সর্বশেষ ঘটনা। নিষেধাজ্ঞা এড়ানো পরিকল্পনার অভিযোগে ২০১৬ সালে মিয়ামিতে তুর্কি-ইরানিয়ান স্বর্ণ ব্যবসায়ী রেজা জারাব গ্রেফতারের মাধ্যমে তা শুরু হয়। হাল্কব্যাংকের উপমহাব্যবস্থাপক আতিলা তার পরের বছর নিউইয়র্কে গ্রেফতার হন। জারাব দোষী সাব্যস্ত হন এবং আতিলার বিচারকার্যে মার্কিন কৌঁসুলিদের হয়ে সাক্ষ্য দেন। জারাব সাক্ষ্য দেন যে হাল্কব্যাংক তুর্কি সরকারি কর্মকর্তাদের সহায়তায় মার্কিন নিষেধাজ্ঞা এড়িয়ে স্বর্ণ, খাদ্য ওষুধ লেনদেন করেছে এবং বেশ কয়েকটি শেল কোম্পানি ব্যবহার করেছে ইরান।

মার্কিন কৌঁসুলিরা বলছেন, পরিকল্পনায় অংশ নিয়ে ঘুষ গ্রহণ করেছেন কিছু কর্মকর্তা। হাল্কব্যাংককে অর্থ সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করতে বাধ্য করার দাবি তুলেছেন কৌঁসুলিরা। তবে অর্থের সুনির্দিষ্ট পরিমাণ উল্লেখ করা হয়নি।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন