মঙ্গলবার | অক্টোবর ২২, ২০১৯ | ৭ কার্তিক ১৪২৬

টকিজ

বেস্ট ইন দ্য ওয়েডিং ইন্ডাস্ট্রি অ্যাওয়ার্ড

জাঁকালো এক ফ্যাশন সন্ধ্যায়...

শিহাবুল ইসলাম

ব্যাকগ্রাউন্ড সংগীতের সঙ্গে ডিমলাইটের আলোয় ওয়েডিং ইন্ডাস্ট্রির গ্ল্যামার ভালোভাবেই ফুটে উঠছিল। ইন্ডাস্ট্রির বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্ণধাররা একে অন্যের সঙ্গে গল্পে মেতে ছিলেন। এর মধ্যে কয়েকটি প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কার দিয়েই পাঁচ তারকা হোটেলের স্কাই বল কক্ষটি পুরো অন্ধকারে ছেয়ে গেল। ততক্ষণে থমকে গিয়ে সবাই নীরব হয়ে গেছে। কয়েক সেকেন্ড পর আলো জ্বললে দেখা যায় মঞ্চের ভিন্ন রূপ। মঞ্চজুড়ে একঝাঁক মডেল বিভিন্ন ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে রয়েছেন। একেকজন ভিন্ন ভিন্ন সজ্জায় সজ্জিত।

তবে সবার মনোযোগ ছিল সামনে থাকা কালো শাড়ি পরিহিত মডেলের দিকে। সামনে থেকে যেন তিনি সবাইকে নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন। বেশির ভাগ অতিথি প্রথমে তাকে চিনতে না পারলেও একটু পরে সবার মুখে মুখে রটে যায় তার নাম। তিনি ঢালিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী নুসরাত ফারিয়া।

এরপর চলতে থাকে একের পর এক মডেলের ফ্যাশন শো। কয়েকজনকে পুরস্কার প্রদানের পর পর চলছে ফ্যাশন শো। চোখ ধাঁধানো ভিন্ন ভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পোশাক, মেকআপ ও জুয়েলারি সামগ্রী নিয়ে তারা হাজির হচ্ছিলেন। প্রতিবার নতুন নতুন চেহারায় মডেলদের দেখে মনে হচ্ছিল একেকবার একেক মডেল সামনে আসছেন। কিন্তু খুব ভালোভাবে খেয়াল করে এ ভুল ভাঙল। কয়েকজন মডেলই আলাদা আলাদা প্রতিষ্ঠানের আলাদা পোশাক ও সাজে হাজির হচ্ছিলেন। যদিও খুব ভালোভাবে চেহারা না দেখলে বোঝা সত্যিই কঠিন। এর মধ্যে পুরস্কার প্রদানের সময় উপস্থাপকের হাস্যরসাত্মক কথায় পুরো স্কাই বল কক্ষে হাসির রোল পড়ে যাচ্ছিল।


এমনই এক জাঁকালো আয়োজনে দেশে প্রথমবারের মতোবেস্ট ইন দ্য ওয়েডিং ইন্ডাস্ট্রি অ্যাওয়ার্ডস ২০১৯ প্রদান করা হয়। ওয়েডিং ইন্ডাস্ট্রির প্রসারের লক্ষ্যে জড়োয়া হাউজ ও আইস টুডের যৌথ উদ্যোগে গত শনিবার রাতে রাজধানীর লা মেরিডিয়ান হোটেলে এ পুরস্কার প্রদান ও ফ্যাশন শো অনুষ্ঠিত হয়। এ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিউটি ইন্ডাস্ট্রি, ওয়েডিং প্ল্যানিং ও ফটোগ্রাফি শিল্পের দেশীয় উদ্যোক্তাদের এক ছাদের নিচে নিয়ে এসেছিল আইস টুডে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন ঢাকাস্থ যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের উপপ্রধান জোয়ান ওয়েঙ্গার। তিনি বলেন, বাংলাদেশে ওয়েডিং ইন্ডাস্ট্রিকে একেবারেই নতুন বলা যায়। তবু এটি দ্রুত এগিয়ে চলেছে। আর আমি যা দেখছি, এ ইন্ডাস্ট্রিকে এগিয়ে নিতে অনেক নারী উদ্যোক্তা কাজ করছেন। এর ফলে নারী ক্ষমতায়ন নিশ্চিত হওয়ার পাশাপাশি বিশ্বদরবারে এ দেশের নারীরা মাথা তুলে দাঁড়াচ্ছেন।


মডেল জান্নাতুল ফেরদৌস পিয়ার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন আইস মিডিয়া লিমিটেডের নির্বাহী পরিচালক নওশিন খায়ের। তিনি বলেন, দেশে এ ধরনের একমাত্র আয়োজনটি বাংলাদেশের ওয়েডিং ইন্ডাস্ট্রিতে অনন্য নজির স্থাপন করেছে। আমরা আমাদের অতিথিদের জন্য একেবারে ঝামেলাবিহীন, নিখুঁত, অনন্য অভিজ্ঞতা নিশ্চিত করেছি। আমাদের ওয়েডিং ইন্ডাস্ট্রি অবিশ্বাস্য রকম বৈচিত্র্যময় হয়ে উঠেছে। এ সম্মাননা দেশীয় বাজারের সেরাদের সেরাকে তুলে এনেছে। বর্তমানে দেশজুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা সব ট্যালেন্ট, কিছু ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কঠোর পরিশ্রমের স্বীকৃতি দিতে পেরে আমরা গর্বিত।

এছাড়া অনুষ্ঠানে ওয়েডিং ইন্ডাস্ট্রির বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্ণধাররা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে প্রথমবারের মতো বিয়ের আয়োজন সংশ্লিষ্ট অভিজাত, জাঁকজমকপূর্ণ ও শৈল্পিক পরিষেবা প্রদানকারীদের মধ্য থেকে সেরাদের সম্মাননা জানানো হয়। বিউটি ইন্ডাস্ট্রি, ওয়েডিং প্ল্যানিং ও ফটোগ্রাফি শিল্পে এ অ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়। অনুষ্ঠানে আইস টুডে স্পেশাল অ্যাওয়ার্ড ও জুরিস অ্যাওয়ার্ড এ দুই ধরনের পুরস্কার দেয়া হয়। পারসোনা, ফারজানা শাকিলস মেকওভার সেলুন, বাদল রায়, অরা বিউটি লাউঞ্চ ও ফটোগ্রাফিতে প্রীত রেজাসহ নয় ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে আইস টুডে স্পেশাল অ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়। অন্যদিকে একদল জুরি মনোনয়নে অংশগ্রহণকারীদের মধ্য থেকে বিজয়ীদের নির্বাচন করেছেন। জুরিস অ্যাওয়ার্ডে তিন ক্যাটাগরিতে নির্বাচিতদের পুরস্কৃত করা হয়। ব্রাইডাল বিউটি ইন্ডাস্ট্রি ক্যাটাগরিতে অনিকা বুশরা ফ্রম স্প্লিনডর ও গালা মেকওভার স্টুডিও অ্যান্ড সেলুন, ওয়েডিং প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেকোরেশন ক্যাটাগরিতে এনচ্যানটেড ইভেন্টস অ্যান্ড প্রিন্টস ও ইভেন্ট টাচ ইন্টারন্যাশনাল এবং ওয়েডিং ফটোগ্রাফি ক্যাটাগরিতে আর্টল্যান্ড, চেকমেট ইভেন্টস ও ওয়েডিং ডায়েরি প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কৃত করা হয়।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন