বুধবার | মে ২৭, ২০২০ | ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

প্রথম পাতা

তারল্য সংকটের চাপে নেই তালিকাভুক্ত অনেক কোম্পানি

মেহেদী হাসান রাহাত

তারল্য সংকটের মধ্যে আছে দেশের আর্থিক খাত। অর্থায়ন করার মতো পর্যাপ্ত তারল্য নেই ব্যাংকগুলোর হাতে। ফলে ঋণ না পেয়ে সিংহভাগ বড় করপোরেট চলতি মূলধন সংকটে ভুগছে। এর মধ্যেও পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত অনেক কোম্পানি আছে, যারা তারল্য সংকটের চাপে নেই। কোম্পানিগুলোর পরিচালন কার্যক্রম থেকে পর্যাপ্ত অর্থপ্রবাহ থাকায় দায় মেটানোর পরও এসব কোম্পানির কাছে যথেষ্ট তারল্য রয়েছে।

কোনো কোম্পানির হাতে তারল্য কেমন তা পরিমাপের অন্যতম নির্দেশক হলো কারেন্ট রেশিও টার্নওভার ইনভেন্টরি রেশিও। দেশের শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত উৎপাদন সেবা খাতের ২১৯টি কোম্পানির কারেন্ট রেশিও এবং ইনভেন্টরি টার্নওভার রেশিও পর্যালোচনা করে দেখা যায়, অন্তত ১৫টি কোম্পানির হাতে যথেষ্ট তারল্য রয়েছে।

কারেন্ট রেশিও হচ্ছে, একটি কোম্পানি চলতি দায়ের বিপরীতে তার কাছে কী পরিমাণ চলতি সম্পদ রয়েছে তার অনুপাত। কারেন্ট রেশিও -এর মানে হচ্ছে, কোম্পানির টাকা চলতি দায়ের বিপরীতে টাকার সম্পদ রয়েছে। আর কারেন্ট রেশিও -এর বেশি হওয়া মানে হচ্ছে, সেই কোম্পানির কাছে চলতি দায় মেটানোর পরও উদ্বৃত্ত অর্থ থাকবে। অন্যদিকে ইনভেন্টরি টার্নওভার রেশিও হচ্ছে, কোনো কোম্পানি বছরে কতবার তার উৎপাদন কার্যক্রমে ইনভেন্টরি ব্যবহার করছে তার অনুপাত। সাধারণত বছরে তিনবার কিংবা তার বেশি ইনভেন্টরি ব্যবহার হলে কোম্পানি তার পরিচালন কার্যক্রম থেকে পর্যাপ্ত তারল্য পায়। তবে টার্নওভার ইনভেন্টরি রেশিও খুব বেশি হলে সেটি ভালো নয়। এর অর্থ দাঁড়ায়, কোম্পানির ইনভেন্টরির পরিমাণ অপর্যাপ্ত।

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর মধ্যে তারল্য পর্যাপ্ততার দিক দিয়ে সবচেয়ে ভালো অবস্থানে আছে ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড। ৩০ জুন ২০১৮ সময়ে কোম্পানিটির কারেন্ট রেশিও ৫৮ টাকা ৯০ পয়সা। এর অর্থ হচ্ছে, কোম্পানিটির টাকা চলতি দায়ের বিপরীতে ৫৮ টাকা ৯০ পয়সার সম্পদ রয়েছে। অন্যদিকে কোম্পানিটির ইনভেন্টরি টার্নওভার রেশিও দশমিক ৬৮, যার অর্থ দাঁড়ায় কোম্পানিটি ১৩৬ দিনে তার ইনভেন্টরি ব্যবহার করে। গত বছর কোম্পানিটির টার্নওভার হয়েছে ৬১৪ কোটি টাকা। কোম্পানিটির কাছে নগদ নগদের সমপরিমাণ সম্পদ রয়েছে ১২৭ কোটি ৮৮ লাখ টাকার।

জানতে চাইলে ইউনাইটেড পাওয়ারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মঈন উদ্দিন হাসান রশিদ বণিক বার্তাকে বলেন, বিদ্যুৎ খাতের কোম্পানি হিসেবে আমরা কর অবকাশ সুবিধা ভোগ করছি। কারণে আমাদের খুব একটা ঋণের প্রয়োজন

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন