বৃহস্পতিবার | নভেম্বর ১৪, ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

টেলিকম ও প্রযুক্তি

ফাইভজি বেজ স্টেশন

মার্কিন যন্ত্রাংশ ছাড়াই উৎপাদনে যাচ্ছে হুয়াওয়ে

বণিক বার্তা ডেস্ক

গুগল অ্যাপ ছাড়াই ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন উন্মোচন করে দেখিয়েছে হুয়াওয়ে। চীনভিত্তিক প্রতিষ্ঠানটি এবার মার্কিন সরঞ্জাম ছাড়াই পঞ্চম প্রজন্মের মোবাইল নেটওয়ার্ক প্রযুক্তি ফাইভজির বেজ স্টেশন উৎপাদন কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে। আগামী মাস থেকে উৎপাদন কার্যক্রম শুরু হবে। খবর রয়টার্স।

বিশ্বজুড়ে ফাইভজির বাণিজ্যিক ব্যবহার শুরুর কার্যক্রম চলছে। এরই মধ্যে বেশকিছু অঞ্চলে পরীক্ষামূলকভাবে ফাইভজির ব্যবহার শুরু হয়েছে। আগামী বছর বিশ্বের অনেক গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চল দ্রুতগতির ফাইভজি নেটওয়ার্কের আওতায় আসবে। যে কারণে আগামী বছর ফাইভজি বেজ স্টেশন উৎপাদনও দ্বিগুণ বাড়ানোর পরিকল্পনা নিয়েছে হুয়াওয়ে।

হুয়াওয়ের প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) রেন ঝেংফেই জানান, তারা মার্কিন সরঞ্জাম ছাড়াই ব্যাপক পরিসরে ফাইভজি বেজ স্টেশন উৎপাদনে যাচ্ছেন। আগামী মাসের যেকোনো সময় উৎপাদন কার্যক্রম শুরু হবে। গত আগস্ট থেকে শুরু করে চলতি মাস পুরোটাই আমরা পরীক্ষামূলক উৎপাদন কার্যক্রম চালিয়েছি এবং অক্টোবরে পূর্ণাঙ্গ উৎপাদনে যাব। আমরা প্রাথমিকভাবে মার্কিন সরঞ্জাম ছাড়াই সম্পূর্ণ নিজস্ব প্রযুক্তিতে প্রতি মাসে পাঁচ হাজার ফাইভজি বেজ স্টেশন উৎপাদনের পরিকল্পনা নিয়েছি। চলতি বছর মার্কিন সরঞ্জামসহ এবং মার্কিন সরঞ্জাম ছাড়াই মিলে ফাইভজি বেজ স্টেশন উৎপাদন ছয় লাখ ইউনিটে পৌঁছবে। তবে আগামী বছর ফাইভজি বেজ স্টেশন উৎপাদন বার্ষিক ১৫ লাখ ইউনিট ছাড়াবে।

বিশ্বের বৃহত্ টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক সরঞ্জাম এবং দ্বিতীয় বৃহত্ স্মার্টফোন নির্মাতা হুয়াওয়ে। গত মে মাসে প্রতিষ্ঠানটির ওপর বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে মার্কিন বাণিজ্য বিভাগ। একই সঙ্গে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়। যে কারণে হুয়াওয়ের পক্ষে যুক্তরাষ্ট্রে টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক সরঞ্জাম এবং ডিভাইস ব্যবসা কার্যক্রম পরিচালনা বন্ধ হয়ে যায়। পাশাপাশি নিজেদের পণ্য উন্নয়নের জন্য মার্কিন প্রযুক্তি জায়ান্টগুলোর কাছ থেকে সফটওয়্যার, হার্ডওয়্যার সেমিকন্ডাক্টর সরঞ্জাম ক্রয়ের পথ বন্ধ হয়ে যায়।

সম্প্রতি মেট সিরিজের নতুন দুই ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন উন্মোচন করেছে হুয়াওয়ে। বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞার জেরে মেট ৩০ মেট ৩০ প্রো নামের দুই ডিভাইসে ইউটিউব, গুগল ম্যাপস, ক্রোম জিমেইলের মতো গুগলের জনপ্রিয় অ্যাপগুলো রাখা হয়নি। এমনকি ডিভাইস দুটিতে গুগল প্লে স্টোর সেবাও রাখা হয়নি। প্লে স্টোরের পরিবর্তে হুয়াওয়ের নিজস্ব স্টোর হুয়াওয়ে অ্যাপ গ্যালারি রাখা হয়েছে। সাধারণত অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে এসব সফটওয়্যার প্রি-ইনস্টল অবস্থায় থাকে। অর্থাত্ গুগল অ্যাপ ছাড়াই অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের ওপেন সোর্স সংস্করণচালিত ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন এনে হুয়াওয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে স্পষ্ট বার্তা দিয়েছে যে বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞার কারণে ভবিষ্যতে তারা গুগল কিংবা মার্কিন অন্য অংশীদারদের সরঞ্জাম ছাড়াই নেটওয়ার্ক সরঞ্জাম এবং ডিভাইস ব্যবসা কার্যক্রম চালিয়ে নিতে সক্ষম।

হুয়াওয়ের করপোরেট স্ট্র্যাটেজি বিভাগের প্রেসিডেন্ট উইল ঝ্যাং বলেন, মার্কিন সরঞ্জাম ছাড়াই উৎপাদিত ফাইভজি বেজ স্টেশন মান এবং কার্যকারিতার দিক থেকে কোনোভাবেই খারাপ হুওয়ার সুযোগ নেই। বরং আমাদের গ্রাহকদের জন্য বড় ধরনের চমক আসতে যাচ্ছে। যদিও বিস্তারিত তথ্য দেননি তিনি।

যুক্তরাষ্ট্র-চীনের বাণিজ্য বিরোধের জেরে গুগলের সফটওয়্যার ব্যবহার করার সুযোগ হারায় হুয়াওয়ে। তারা বরাবরই বলে আসছে, নিজেদের ডিভাইসের জন্য গুগলের অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম তাদের প্রথম পছন্দ। তবে তাদের হাতে বিকল্পও রয়েছে। মেট ৩০ সিরিজ দিয়ে সে বিকল্পের পথেই হেঁটেছে প্রতিষ্ঠানটি। ডিভাইসের পর এবার টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক সরঞ্জামের ক্ষেত্রেও বিকল্প পথে এগোচ্ছে হুয়াওয়ে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন