বৃহস্পতিবার | নভেম্বর ১৪, ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

আন্তর্জাতিক ব্যবসা

৭৩৭ ম্যাক্স গ্রাউন্ডিং বাড়িয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের যাত্রী হয়রানি

বণিক বার্তা ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের আকাশ পরিবহন খাতের বিখ্যাত দুই কোম্পানি আমেরিকান এয়ারলাইনস গ্রুপ ইনকরপোরেটেড ও সাউথওয়েস্ট এয়ারলাইনস করপোরেশন। চলতি বছরের মধ্য মার্চ থেকে বোয়িংয়ের ৭৩৭ ম্যাক্স মডেলের উড়োজাহাজগুলো বিশ্বজুড়ে গ্রাউন্ডেড ঘোষিত হওয়ার পর নিজেদের বহর থেকে এ মডেলের সবক’টি উড়োজাহাজ সরিয়ে নিয়েছে কোম্পানি দুটি। খবর রয়টার্স।

নিজেদের বহরে উড়োজাহাজস্বল্পতায় কোম্পানিগুলোর যাত্রীসেবা ক্রমেই ব্যাহত হচ্ছে। পর্যাপ্ত উড়োজাহাজ না থাকায় কোম্পানি দুটিকে বাতিল করতে হচ্ছে অনেক ফ্লাইট, বাধ্য হয়ে কমাতে হয়েছে টিকিট বিক্রি, ফলে হয়রানির শিকার হয়েছে অজস্র যাত্রী। 

চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে আমেরিকান এয়ারলাইনস ৬৯ হাজার ৯২৪ টিকিট বিক্রি করতে অপারগতা প্রকাশ করেছে। গত বছরের একই সময়ে কোম্পানিটির এ রকম টিকিট বিক্রি করতে না পারার পরিমাণ ছিল ২৮ হাজার ৪০৯। অন্যদিকে একই সময়ে বাধ্য হয়ে কোম্পানিটিকে ৫ হাজার ২২ টিকিট বাতিল করতে হয়েছে। অথচ গত বছরের একই সময়ে এ সংখ্যা ছিল ৬৭৮। সদ্য প্রকাশিত ফেডারেল এভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (এফএএ) প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে এসব তথ্য।

এদিকে চলতি বছরের জুন পর্যন্ত ছয় মাসে ২২ হাজার ৩৬৪ টিকিট বিক্রি করতে অপারগতা জানিয়েছে সাউথওয়েস্ট এয়ারলাইনস। গত বছরের একই সময়ে কোম্পানিটির স্বেচ্ছায় টিকিট বিক্রি করতে না পারার সংখ্যা ছিল ১০ হাজার ৩৬৪। অন্যদিকে একই সময়ে সাউথওয়েস্টকে বাধ্য হয়ে বাতিল করতে হয়েছে ২ হাজার ৫২৫ টিকিট। ২০১৮ সালের একই সময়ে বাধ্য হয়ে কোম্পানিটির টিকিট বাতিলের সংখ্যা ছিল ১ হাজার ৪৫।

অল্প সময়ের ব্যবধানে পরপর দুটি ভয়াবহ দুর্ঘটনার পর ৭৩৭ ম্যাক্সের সব উড়োজাহাজ বিশ্বজুড়ে গ্রাউন্ডেড রাখার ফলে বাধ্য হয়ে কোম্পানিগুলোর ফ্লাইট বাতিলের পরিমাণ বেড়েছে বলে এফএএর প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। বহরের অনেকগুলো উড়োজাহাজ সরিয়ে রাখায় যাত্রীসেবা অব্যাহত রাখাটাই এখন নিজেদের জন্য চ্যালেঞ্জ বলে জানিয়েছেন আমেরিকান এয়ারলাইনেসের মুখপাত্র রস ফাইনস্টাইন। কোম্পানিটির অনেকগুলো উড়োজাহাজ সেবার বাইরে থাকায় যথাসময়ে ফ্লাইট শুরু করা এবং দিন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রয়োজন অনুসারে উড়োজাহাজ রদবদল করে যাত্রীসেবা দেয়ার বিষয়টি বেশ সমস্যাসঙ্কুল হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে জানিয়েছেন এ কর্মকর্তা।

৭৩৭ ম্যাক্সের গ্রাউন্ডিংয়ের কারণে নভেম্বরের প্রারম্ভ পর্যন্ত আমেরিকান এয়ারলাইনস দৈনিক ১১৫ ফ্লাইট বাতিল করেছে। কোম্পানিটি নিজেদের বিশাল ফ্লাইট শিডিউল রক্ষার্থে অন্যান্য ব্র্যান্ডের উড়োজাহাজ ব্যবহার ও অনেকগুলো ফ্লাইট বাতিল করা সত্ত্বেও কুলিয়ে উঠতে পারছে না। চাপ সামলাতে কোম্পানিটি ওকল্যান্ড, ক্যালিফোর্নিয়া এবং ডালাস-ফোর্ট ওয়ার্থ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সঙ্গে সাময়িকভাবে সবক’টি সরাসরি ফ্লাইট বাতিল করেছে।

এদিকে আকাশ পরিবহন খাতের এ সংকট সহসা কাটছে না বলে জানিয়েছেন বিশ্লেষকরা। চলতি বছরে ৭৩৭ ম্যাক্স সেবায় ফেরার কোনো সম্ভাবনা দেখছেন না তারা। আমেরিকান এয়ারলাইনসের বহরে এ মডেলের উড়োজাহাজ রয়েছে ২৪টি। তাছাড়া এ মডেলের আরো কয়েক ডজন উড়োজাহাজ কেনার কথা রয়েছে কোম্পানিটির। কোম্পানিটি ২ নভেম্বর পর্যন্ত এ মডেলের কোনো উড়োজাহাজ নিজেদের শিডিউলে রাখেনি।

অন্যদিকে ২০২০ সালের ৫ জানুয়ারি পর্যন্ত ৭৩৭ ম্যাক্সের কোনো উড়োজাহাজ নিজেদের শিডিউলে রাখেনি সাউথওয়েস্ট এয়ারলাইনস। তাছাড়া নিউয়ার্ক লিবার্টি ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে গত মাসে কোম্পানিটি নিজেদের কার্যক্রম বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন