রবিবার | নভেম্বর ১৭, ২০১৯ | ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকে এমডি নিয়োগ : ডিএমডিদের সাক্ষাৎকারে ডেকেছে অর্থ মন্ত্রণালয়

নিজস্ব প্রতিবেদক

দুই মাসের বেশি সময় ধরে ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) নেই বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (বিডিবিএল) ও রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকে। এমডি নেই আনসার-ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকেও। রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী, অগ্রণী ও রূপালী ব্যাংকের এমডিদের মেয়াদও শেষ হচ্ছে চলতি মাসেই। এ অবস্থায় এমডি পদে পদোন্নতি দিতে সরকারি ব্যাংকগুলোর ১৪ জন উপব্যবস্থাপনা পরিচালককে (ডিএমডি) সাক্ষাৎকারে ডেকেছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

আজ বেলা ১১টায় আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিবের দপ্তরে এ সাক্ষাৎকার অনুষ্ঠিত হবে। গতকাল অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ থেকে এ-সংক্রান্ত একটি আদেশ জারি করা হয়।

আদেশে বলা হয়, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বিশেষায়িত ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে পদোন্নতি প্রদানের লক্ষ্যে উপযুক্ত প্রার্থী বাছাইয়ের জন্য আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সিনিয়র সচিবের দপ্তরে ৭ আগস্ট বুধবার বেলা ১১টায় পদোন্নতিযোগ্য প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার অনুষ্ঠিত হবে। এতে পদোন্নতিযোগ্য সরকারি ব্যাংকগুলোর ১৪ জন ডিএমডির নাম দেয়া হয়। তারা হলেন অগ্রণী ব্যাংকের মো. ইউসুফ আলী, ইনভেস্টমেন্ট করপোরেট অব বাংলাদেশের (আইসিবি) মোসাদ্দেক-উল-আলম, রূপালী ব্যাংকের মো. জাহাঙ্গীর আলম ও মো. মোরশেদ আলম খন্দকার, সোনালী ব্যাংকের কামরুজ্জামান চৌধুরী, একেএম সাজেদুর রহমান খান, মো. এবনুজ জাহান, জনতা ব্যাংকের মো. জিকরুল হক, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের মো. আফজাল করিম, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের (বিডিবিএল) মো. আবদুল মতিন, জনতা ব্যাংকের মো. তাজুল ইসলাম, রূপালী ব্যাংকের বেলায়েত হোসেন, অগ্রণী ব্যাংকের মো. আনিসুর রহমান এবং বিডিবিএলের মো. মিজানুর রহমান। জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে এ তালিকা করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের উপসচিব মোহাম্মদ আবদুল আওয়াল স্বাক্ষরিত চিঠির কপি বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের কাছেও পাঠানো হয়েছে। এতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিনিধি হিসেবে একজন ডেপুটি গভর্নরকে সাক্ষাত্কারে পাঠানোর জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

সাক্ষাৎকারের জন্য ডাক পাওয়া অগ্রণী ব্যাংকের ডিএমডি মো. ইউসুফ আলী এবং রূপালী ব্যাংকের মো. জাহাঙ্গীর আলম পবিত্র হজব্রত পালনের জন্য বর্তমানে সৌদি আরবে অবস্থান করছেন। জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে তারা দুজন যথাক্রমে প্রথম ও তৃতীয় স্থানে রয়েছেন।

এর আগে বিশেষায়িত ব্যাংকগুলোর এমডি নিয়োগ দেয়ার ক্ষেত্রে জ্যেষ্ঠতাকেই বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছিল। এ অবস্থায় জ্যেষ্ঠ দুজন ডিএমডির সাক্ষাৎকারের কী হবে, সে বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের কেউ মন্তব্য করতে চাননি।

সাক্ষাৎকারের জন্য ডাক পাওয়া একাধিক ডিএমডি বণিক বার্তাকে বলেন, হঠাৎ করেই মঙ্গলবার (গতকাল) বিকালে সাক্ষাৎকারের বিষয়টি জানতে পেরেছি। কয়েকটি বিশেষায়িত ব্যাংকের পাশাপাশি রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী, অগ্রণী ও রূপালী ব্যাংকের এমডি পদও এ মাসেই ফাঁকা হচ্ছে। এখন শুধু বিশেষায়িত ব্যাংকে এমডি নিয়োগ দেয়া হবে নাকি বাণিজ্যিক ব্যাংককেও বিবেচনায় নেয়া হবে, সেটি পরিষ্কার নয়।

সম্প্রতি আনসার-ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকের এমডি পদ থেকে অবসরে গেছেন মোহাম্মদ জালালউদ্দিন। একইভাবে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের এমডি পদ থেকে অবসর নেন কাজী আলমগীর। ফলে এ দুটি ব্যাংকের এমডি পদ ফাঁকা রয়েছে। মেয়াদ পূর্ণ করে অবসরে গেছেন বিডিবিএলের এমডি মনজুর আহমেদ। ফলে ওই ব্যাংকটির এমডি পদও শূন্য।

বিডিবিএলকে বিশেষায়িত ব্যাংক থেকে বাণিজ্যিক ব্যাংক হিসেবে রূপান্তর করার পর এ ব্যাংকটির এমডি নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছিল। তবে ওই বিজ্ঞপ্তির শর্ত অনুযায়ী প্রত্যাশিত আবেদন পাওয়া যায়নি। এজন্য ব্যাংকটির সার্চ কমিটির বৈঠকে শর্ত শিথিল করে নতুন করে বিজ্ঞপ্তি দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। এক্ষেত্রে আবেদনের যোগ্যতা শিথিল করা হচ্ছে। সাক্ষাত্কারে ডাকা ডিএমডিদের মধ্যে কাউকে পদোন্নতি দিয়ে বিডিবিএলের এমডি পদে নিয়োগ দেয়া হতে পারে বলে জানা গেছে।

২০১৬ সালের আগস্টে একসঙ্গে রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী, অগ্রণী ও রূপালী ব্যাংকে এমডি নিয়োগ দেয় অর্থ মন্ত্রণালয়। সোনালী ব্যাংকে মো. ওবায়েদ উল্লাহ্ আল্ মাসুদ, অগ্রণী ব্যাংকে মো. শামস-উল-ইসলাম ও রূপালী ব্যাংকে মো. আতাউর রহমান প্রধান এমডি পদে নিয়োগ পান। তিন বছরের জন্য এ নিয়োগ দেয়া হয়েছিল। সে হিসেবে চলতি মাসেই তিনটি ব্যাংকের এমডিদের মেয়াদ শেষ হচ্ছে।

রাষ্ট্রায়ত্ত এ তিন ব্যাংকে নতুন এমডি নিয়োগ দিতে এরই মধ্যে সার্চ কমিটি গঠন করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ। জুলাই মাসের মাঝামাঝিতে চার সদস্যের এ কমিটি গঠন করা হয়। আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিবকে আহ্বায়ক করে গঠিত এ কমিটি প্রতিটি ব্যাংকে এমডি পদে নিয়োগের জন্য তিনজন করে প্রার্থী বাছাই করে সরকারের অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করবে। এরপর সংশ্লিষ্ট ব্যাংক সরকারের অনুমোদন পাওয়া প্রার্থীকে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন নিয়ে ব্যাংকের এমডি নিয়োগ দেবে। তবে সরকার চাইলে বর্তমান এমডিদের পুনর্নিয়োগ দিতে পারে। আবার বিশেষায়িত ব্যাংকগুলোতে দায়িত্ব পালন করা বর্তমান এমডি কিংবা বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর ডিএমডিদের মধ্যে থেকেও তিনটি ব্যাংকে এমডি নিয়োগ দেয়া হতে পারে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন