বৃহস্পতিবার | নভেম্বর ১৪, ২০১৯ | ৩০ কার্তিক ১৪২৬

পণ্যবাজার

অপরিশোধিত জ্বালানি তেল : বছরের প্রথমার্ধে ইরান থেকে চীনের আমদানি কমেছে ৩০%

বণিক বার্তা ডেস্ক

বছরের প্রথমার্ধে (জানুয়ারি-জুন) ইরান থেকে অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানি আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ৩০ শতাংশ কমিয়েছে দেশটি। চীনের সরকারি শুল্ক বিভাগ সম্প্রতি এ তথ্য প্রকাশ করেছে। খবর রয়টার্স ও বিজনেস রেকর্ডার।

ইরানের ওপর চলছে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা। এর মধ্যেও দেশটি থেকে অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানিতে চীনসহ আটটি দেশকে ছয় মাসের বিশেষ অব্যাহতি সুবিধা দিয়েছিল ওয়াশিংটন। চলতি বছরের ২ মে এ বিশেষ অব্যাহতির মেয়াদ শেষ হয়েছে। এর পর পরই ইরান থেকে জ্বালানি তেল আমদানি কমাতে শুরু করে চীন।

চীনের জেরেরাল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অব কাস্টমাসের তথ্য অনুযায়ী, মার্কিন নিষেধাজ্ঞার জেরে গত মে মাসের পর ইরান থেকে অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানি ক্রমে কমিয়ে আনার প্রভাব পড়েছে বছরের প্রথমার্ধে (জানুয়ারি-জুন)। এ সময় ইরান থেকে সব মিলিয়ে ১ কোটি ১০ লাখ ৩০ হাজার টন অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানি করেছে চীন। দৈনিক হিসাবে আমদানীকৃত জ্বালানি তেলের পরিমাণ দাঁড়ায় ৪ লাখ ৪৭ হাজার ৩২৭ ব্যারেল, যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ৩০ শতাংশ কম।

এদিকে চলতি বছরের জুন মাসজুড়ে ইরান থেকে ৮ লাখ ৫৫ হাজার ৬৩৮ টন অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানি করেছে চীন। দৈনিক হিসাবে এ পরিমাণ দাঁড়ায় ২ লাখ ৮ হাজার ২০৫ ব্যারেল, যা গত বছরের একই মাসের তুলনায় ৬০ শতাংশ কম। চলতি বছরের মে মাসে ইরান থেকে চীন দৈনিক ২ লাখ ৫৪ হাজার ১৬ ব্যারেল অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানি করেছিল। অর্থাৎ এক মাসের ব্যবধানে পণ্যটির আমদানি কমেছে দৈনিক হিসাবে ৪৫ হাজার ৮১১ ব্যারেল।

নিষেধাজ্ঞার কারণে ইরানের পরিবর্তে সৌদি আরব ও রাশিয়া থেকে অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানি বাড়িয়েছে চীন। বছরের প্রথমার্ধে রাশিয়া থেকে চীনের আমদানি দাঁড়িয়েছে ৩ কোটি ৭৬ লাখ ৯০ হাজার টনে। দৈনিক হিসাবে এর পরিমাণ দাঁড়ায় ১৫ লাখ ৩০ হাজার ব্যারেলে, যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ১৫ দশমিক ২ শতাংশ বেশি।

এছাড়া চলতি বছরের জুনে রাশিয়াকে টপকে চীনের অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানির শীর্ষ দেশ হয়েছে সৌদি আরব। জুনে দেশটি থেকে ৭৭ লাখ ২০ হাজার টন বা দৈনিক ১৮ লাখ ৮০ হাজার ব্যারেল জ্বালানি তেল আমদানি করেছে বেইজিং, যা আগের বছরের একই মাসের তুলনায় ৮৪ দশমিক ১ শতাংশ বেশি। মে মাসে দেশটি থেকে চীনের জ্বালানি তেল আমদানির পরিমাণ ছিল ১১ লাখ ১০ হাজার ব্যারেল। অর্থাৎ এক মাসের ব্যবধানে সৌদি আরব থেকে চীনের জ্বালানি তেল আমদানি বেড়েছে দৈনিক ৭ লাখ ৭০ হাজার ব্যারেল। আর জুনে রাশিয়া থেকে অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানি করেছে ৭১ লাখ ৫০ হাজার টন। দৈনিক হিসাবে ১৭ লাখ ৪০ হাজার ব্যারেল, যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ৪৫ দশমিক ৫ শতাংশ বেশি।

বাণিজ্যযুদ্ধের মধ্যেও যুক্তরাষ্ট্র থেকে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের আমদানি বাড়িয়েছে চীন। বছরের প্রথমার্ধে যুক্তরাষ্ট্র থেকে সব মিলিয়ে ২১ লাখ ২০ হাজার টন বা দৈনিক ৫ লাখ ১৫ হাজার ৭২২ ব্যারেল জ্বালানি তেল আমদানি করেছে বেইজিং, যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ৭৬ দশমিক ২ শতাংশ বেশি। উল্লেখ্য, বাণিজ্যযুদ্ধের জেরে চীন বিভিন্ন মার্কিন পণ্যে আমদানির ওপর বাড়তি ২৫ শতাংশ শুল্ক আরোপ করছে। তবে অপরিশোধিত জ্বালানি তেল এ তালিকা থেকে মুক্তি পেয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন