শেষ পাতা

শান্তিমিশনের অর্থ পরিশোধ শুরু জাতিসংঘের : বাংলাদেশের পাওনার ৩ কোটি ডলার পরিশোধ

কূটনৈতিক প্রতিবেদক | ০০:০০:০০ মিনিট, জুলাই ২০, ২০১৯

তহবিল সংকট কাটিয়ে শান্তি মিশনের অর্থ পরিশোধ শুরু করেছে জাতিসংঘ। এর ধারাবাহিকতায় শান্তি কার্যক্রমে অংশ নেয়া বাংলাদেশকে ৩ কোটি ডলার পরিশোধ করেছে সংস্থাটি। আরো ৩ কোটি ডলার শিগগিরই পরিশোধের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ৮ জুলাই বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ জাতিসংঘের অপারেশনাল সাপোর্ট বিভাগের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল লিসা এম বুটেনহেইমের সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকে সেনাপ্রধান বাংলাদেশের অর্থ পরিশোধের অনুরোধ জানান। লিসা এম বুটেনহেইম এ সময় তাত্ক্ষণিকভাবে ৩ কোটি ডলারের পরিশোধপত্র হস্তান্তর করেন। বাকি ৩ কোটি ডলার অচিরেই পরিশোধের প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

জানা গেছে, সদস্য দেশগুলোর দাবির পরিপ্র্রেক্ষিতে গত বছর শান্তিরক্ষী বাহিনীর বেতন ৬ দশমিক ৭৫ শতাংশ বেড়েছে। এছাড়া ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় দায়িত্ব পালনকারীদের বেতন বাড়ানো হয়েছে আরো ১০ শতাংশ। বেতন বৃদ্ধির দিক থেকে যদিও তা জাতিসংঘের অন্যান্য দপ্তরের তুলনায় খুবই কম।

এ বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, জাতিসংঘ একদিকে শান্তিরক্ষায় তাদের বাজেট কমিয়েছে, অন্যদিকে দীর্ঘ ২১ বছর পর শান্তিরক্ষী বাহিনীর বেতন বাড়িয়েছে।

বর্তমানে মূলত জাতিসংঘ পরিচালিত মিশনগুলোয় যুদ্ধ-পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলায় সক্ষম বাহিনী বেশি দরকার। বিশ্বে যে দেশগুলো এত বছর যুদ্ধ পরিচালনা করে আসছিল, তারা নিজেদের বাহিনীকে গুটিয়ে নিয়ে আসছে। এখন বিশ্ব অনেক বেশি প্রযুক্তিনির্ভর হয়ে পড়েছে। উদাহরণস্বরূপ কোনো জায়গায় নজরদারির জন্য জনবলের প্রয়োজন পড়লে সেখানে মানুষের পরিবর্তে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে নজরদারি বাড়ানো হচ্ছে। এখন যাদের মিশনগুলোতে পাঠানো হয়, তাদের অবশ্যই প্রযুক্তিবান্ধব ও ভাষাগত দক্ষতা থাকতে হবে।