আন্তর্জাতিক খবর

চীন প্রত্যর্পণ বিলের বিরুদ্ধে হংকংয়ে ব্যাপক বিক্ষোভ

বণিক বার্তা অনলাইন | ০০:০০:০০ মিনিট, জুলাই ১২, ২০১৯

মূলভূখণ্ড চীনে প্রত্যর্পণের সুযোগ রেখে হংকংয়ে পাশ হতে যাওয়া বিলের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে নেমেছে দেশটির হাজার হাজার বাসিন্দা। কোনো অপরাধের বিচারের জন্য হংকং থেকে যে কাউকে মূল ভূখণ্ড চীনে নিয়ে বিচার করা যাবে বিলে থাকা এমন সুযোগের প্রতিবাদে বুধবার এই বিক্ষোভ শুরু হয়। বিক্ষোভের জেরে এই বিলের ওপর দ্বিতীয়বারের মতো বিতর্ক স্থগিত করেছে সেখানকার লেজিসলেটিভ কাউন্সিল। বিবিসির এক অনলাইন প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বুধবার সকাল থেকেই বিক্ষোভকারীরা হংকংয়ের সরকারি ভবনগুলোর মূল সড়কে জড়ো হতে শুরু করে। বিক্ষোভকারীদের অধিকাংশ যুবক এবং শিক্ষার্থী। তারা মুখে মার্স্ক এবং মাথায় হেলমেট পড়ে বিক্ষোভে অংশ নেয়। এরফলে কার্যত হংকংয়ের এসব এলাকা অচল হয়ে যায়।

বিক্ষোভকারীদের সরাতে পুলিশ পেপার স্পে ব্যবহার করে। এছাড়া বিক্ষোভ দমন করতে শক্তি ব্যবহারের প্রস্তুতিও নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে তারা।

হংকংয়ের পুলিশ ফোর্স থেকে এই টুইটবার্তায় জানানো হয়েছে, শান্তিপূর্ণ সমাবেশ এখন নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে। বিক্ষোভকারীদের দ্রুত স্থান ত্যাগ করতে বলা হচ্ছে অন্যথায় উপযুক্ত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তবে এক যুবক বিক্ষোভকারী এএফপিকে জানিয়েছে, এই বিলটি বাদ দেয়া না পর্যন্ত তারা বিক্ষোভ থেকে সরবেন না।

হংকংয়ের এই বিক্ষোভের জেরে বেইজিং সমর্থক লেজিসলেটিভ কাউন্সিল বুধবার এক বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, স্থানীয় সময় সকাল ১১টায় এই বিলের ওপর অধিবেশন হওয়ার কথা থাকলেও এখন সেটি হচ্ছে না। বিলের অধিবেশনের পরবর্তী সময় কাউন্সিলের সদস্যদের জানিয়ে দেয়া হবে।

এদিকে সবত্র বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়লেও সেখানকার সরকার বলছে, প্রত্যপর্ণ এই বিল তারা সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবে। এই বিলের ওপর চূড়ান্ত ভোট আগামী ২০জুন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এদিনই এই বিলটি পাশ লেজিসলেটিভ কাউন্সিলে পাশ হতে পারে বলে হংকংয়ের স্থানীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে।

প্রত্যপর্ণ আইনের সমালোচকরা অবশ্য বলছে, বিলটি পাশ হলে চীনা বিচার পদ্ধতিতে যে কাউকে বিচারের জন্য হংকং থেকে চীনে নিয়ে যাওয়ার পথ তৈরি হবে। এর ফলে অন্যায়ভাবে নির্যাতন, আটক এবং জোর করে স্বীকারোক্তি আদায় করা হতে পারে।

তবে সরকার বলছে, নাগরিক অধিকার সুরক্ষা রেখেই বিলটি পাশ করা হবে। যে কারণে এটা নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই।

কিন্তু তারপরও ১৯৯৭ সালে ব্রিটিশদের থেকে চীনের কাছে হংকংয়ের হস্তান্তরের পর থেকে বিতর্কিত এই বিলটিকে কেন্দ্র করে সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক বিক্ষোভ করছে হংকংয়ের বাসিন্দারা।

এই বিলের জের ধরে হংকংয়ের প্রধান নির্বাহী ক্যারি লাম এবং বিচার বিভাগের কয়েকজন সদস্যকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে। পুলিশ এখন এই হুমকির বিষয়টি তদন্ত করে দেখছে।