শিল্প বাণিজ্য

ইউল্যাবে এসএসইএএসআর সম্মেলন শুরু কাল

নিজস্ব প্রতিবেদক | ০০:০০:০০ মিনিট, জুলাই ১২, ২০১৯

ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ (ইউল্যাব) অষ্টম সাউথ অ্যান্ড সাউথইস্ট এশিয়া অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য স্টাডি অব কালচার অ্যান্ড রিলিজিওন (এসএসইএএসআর) আন্তর্জাতিক সম্মেলন উপলক্ষে গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। সম্মেলনটি ১৩-১৬ জুন ইউল্যাব, ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে।

সংবাদ সম্মেলনে ইউল্যাবের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. সামসাদ মর্তূজা, সম্মেলনের প্রধান আহ্বাহক এবং প্রত্নতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালক, অধ্যাপক ড. শাহনাজ হুসনে জাহান, এসএসইএএসআরের প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক ড. অমরজিভ লোচন এবং ইউল্যাব মিডিয়া স্টাডিজ এবং জার্নালিজম বিভাগের অধ্যাপক ড. সুমন রহমান উপস্থিত ছিলেন।

এসএসইএএসআর বিশ্ব সভ্যতার উন্নয়ন ও সম্প্রীতির জন্য একটি একাডেমিক সংস্থা। এটি ইন্টারন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য স্টাডি অব কালচার অ্যান্ড রিলিজিওনের (আইএএইচআর) আঞ্চলিক সংস্থা। আইএএইচআর হলো সিইপিএসএইচ, ইউনেস্কোর অধিভুক্ত প্রতিষ্ঠান। এসএসইএএসআরের সঙ্গে সংযুক্ত হার্ভার্ড, অক্সফোর্ড, ক্যামব্রিজ, ইয়েল, অস্ট্রেলিয়ান

ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব সিঙ্গাপুর ও টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়সহ ৮৫টি দেশের ৬০০ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক। দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় দুই বছর অন্তর এ আন্তর্জাতিক সম্মেলন আয়োজন করা হয়। পূর্ববর্তী অনুষ্ঠিত সম্মেলনগুলো হলো: ভারত (২০০৫), থাইল্যান্ড (২০০৭), ইন্দোনেশিয়া (২০০৯), ভুটান (২০১১), ফিলিপাইন (২০১৩), শ্রীলংকা (২০১৫) ও ভিয়েতনাম (২০১৭)।

এবারের সম্মেলনের বিষয়বস্তু ‘নদী ও ধর্ম: দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সাংস্কৃতিক সম্পর্ক’ যেটা আবহমান বাংলাদেশের সঙ্গে জড়িত। এ সম্মেলনের উদ্দেশ্য হলো: (১) দেশী ও বিদেশী শতাধিক বিশেষজ্ঞ, যথা প্রত্নতত্ত্ববিদ, ঐতিহাসিক, নৃতত্ত্ববিদ, সমাজবিজ্ঞানী এবং অর্থনীতিবিদ, যারা দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার ধর্ম ও সংস্কৃৃতি নিয়ে গবেষণা করেন, তাদের মধ্যে একটা টেকসই সম্পর্ক ও পরিবেশ সৃষ্টি করা। (২) বিশ্বের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে সুসম্পর্ক স্থাপন করা এবং (৩) সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সম্মেলন পূর্ব ও পরবর্তী ঐতিহাসিক স্থান ভ্রমণের মাধ্যমে বাংলাদেশের উন্নত সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তুলে ধরা।

চার দিনব্যাপী এ সম্মেলনে ৩০টি দেশ থেকে মোট ১৭০টি গবেষণা প্রবন্ধ ১৫টি শিরোনামের অধীনে ৩৭টি প্যারালাল সেশনের মাধ্যমে উপস্থাপিত হবে।

১৩ জুন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি শিক্ষামন্ত্রী ড. দীপু মনি, বিশেষ অতিথি সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ এবং অতিথি ভারতীয় দূতাবাসের হাইকমিশনার রিভা গাঙ্গুলি দাস উপস্থিত থাকবেন।

১৫ জুন সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান এবং বিশেষ অতিথি ব্রিটিশ দূতাবাসের হাইকমিশনার ক্যানবার হোসেন-বার উপস্থিত থাকবেন।