টেলিকম ও প্রযুক্তি

চীন-মার্কিন বাণিজ্যযুদ্ধে বিশ্ব অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা সিসকোর

বণিক বার্তা ডেস্ক    | ০০:০০:০০ মিনিট, জুলাই ১২, ২০১৯

চীন-মার্কিন বাণিজ্যযুদ্ধে শুধু দুই দেশই ক্ষতিগ্রস্ত হবে না, বরং বিশ্ব অর্থনীতিতে এর চরম নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। এমন আশঙ্কাই করছেন মার্কিন বহুজাতিক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান সিসকো সিস্টেমের চেয়ারম্যান চাক রবিনস। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার আগেই দুই দেশ একটি সমঝোতায় আসবে বলে আশা করছেন তিনি। খবর ইটি টেলিকম।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প চীনা পণ্যে ১৫ শতাংশ অতিরিক্ত আবগারি শুল্ক আরোপের হুমকির পর চীনও মার্কিন পণ্যে পাল্টা শুল্ক আরোপের ঘোষণা দিয়েছে। এ পাল্টাপাল্টি ব্যবস্থা নেয়ার হুমকির মধ্যেই চীনা টেলিকম জায়ান্ট হুয়াওয়েকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে মার্কিন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। আমেরিকার মিত্র দেশগুলোও এখন যুক্তরাষ্ট্রের পথেই হাঁটছে। এ পরিস্থিতিতে চীনা প্রযুক্তি শিল্প ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পাশাপাশি মার্কিন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোও বৃহৎ বাজার হারানোর শঙ্কায় রয়েছে। অসমর্থিত সূত্রে জানা যাচ্ছে, মার্কিন সফটওয়্যার জায়ান্ট মাইক্রোসফট ও পারসোনাল কম্পিউটার প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান ডেলকে এরই মধ্যে সতর্ক করেছে চীন।

দুই শীর্ষ অর্থনীতির এ টানাপড়েনে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন সিসকোর চেয়ারম্যান চাক রবিনস। গত সোমবার গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, আমার সবচেয়ে বড় ভয় হলো, চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে যা চলছে তা বিশ্বব্যাপীই প্রভাব ফেলবে। আমি খুব করে চাই, দুই দেশ যত দ্রুত সম্ভব একটি যৌক্তিক সমঝোতায় পৌঁছাক, যাতে গ্রাহক ও অর্থনীতি দুটোই বাঁচে।

তিনি আরো বলেন, ব্যাপারটি মূলত দুটি সরকারের মধ্যকার ইস্যু, তাদেরই এটির সমাধান বের করতে হবে। আমরা চাই, তাদের মধ্যে একটি সমঝোতা হোক, যেটা নিঃসন্দেহে দুটি দেশের জন্যই ভালো হবে।

এ অচলাবস্থা দীর্ঘস্থায়ী হলে গ্রাহকদের মধ্যে অনিশ্চয়তা থেকে বিনিয়োগ হ্রাসের প্রবণতা দেখা দিতে পারে বলে শঙ্কা করছে সিসকো। কারণ এরই মধ্যে সর্বশেষ প্রান্তিকে বিশ্বব্যাপী টেলিকম খাতে সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যয় ১৩ শতাংশ কমে গেছে।

রবিনস বলেন, আমাদের বেশ ভালো ব্যবসা আছে এবং যেকোনো পরিস্থিতিতে মানিয়ে নিতে প্রস্তুত। কিন্তু গ্রাহকরা যখন চাপের মধ্যে থাকবেন এবং বিনিয়োগে বিলম্ব করবেন, তখন সেটা আমদের জন্য উদ্বেগের।

তবে ফাইভজি মোবাইল নেটওয়ার্ক সরঞ্জাম খাতে এ বাণিজ্যযুদ্ধের কোনো প্রভাব পড়বে বলে মনে করেন না সিসকোর চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, ফাইভজি নিয়ে সারা বিশ্বেই চরম অজ্ঞতা রয়েছে। এ টানাপড়েনের কারণে যুক্তরাষ্ট্রে ফাইভজি অবকাঠামো স্থাপনের গতি মন্থর হবে না বলেও মনে করে এ মার্কিন টেলিকম জায়ান্ট। রবিনসের মতে, টেলিকম খাতকে অবশ্যই একসঙ্গে বহু কোম্পানিনির্ভর হওয়া উচিত। এ সময় ফাইভজি নিয়ে ভারতীয় টেলিকম কোম্পানি জিওর সঙ্গে কাজ করার কথা উল্লেখ করেন তিনি।