খেলা

চোটগ্রস্ত স্টয়নিসের বিকল্প মিচেল

বণিক বার্তা অনলাইন | ০০:০০:০০ মিনিট, জুলাই ২০, ২০১৯

চোটের সঙ্গে লড়ছেন অস্ট্রেলিয়ান অলরাউন্ডার মার্কাস স্টয়নিস। তার বিকল্প হিসেবে বিশ্বকাপ স্কোয়াডে ডাক পেলেন মিচেল মার্শ। খবর সিডনি মর্নিং হেরাল্ড।

রোববার ভারতের বিপক্ষে বোলিং করার সময় সাইড-স্ট্রেইন হয় স্টয়নিসের। মঙ্গলবার তাই দলের সঙ্গে অনুশীলনও করেননি। বুধবার পাকিস্তানের মুখোমুখি হবে অস্ট্রেলিয়া, এ ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়েছেন তিনি। অনিশ্চয়তা তাড়াতেই দেশ থেকে উড়িয়ে আনা হচ্ছে মার্শ পরিবারের ছোট ছেলে মিচেলকে। ফলে অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপ স্কোয়াডে থাকছেন দুই ভাই (শন আগে থেকেই আছেন)। যদিও শন মার্শ এখনো কোনো ম্যাচে খেলার সুযোগ পাননি।

ক্রিকেটার হিসেবে স্টয়নিস বেশ লড়াকু মানসিকতার। ভারতীয় ইনিংসের শুরুর দিকে চোট পেলেও একেবারে শেষ পর্যন্ত বোলিংটা করে যান তিনি। তবে এ চোট নিয়ে পরের ম্যাচে খেলা কঠিন হয়ে পড়ে তার জন্য। তবে তিনি বিশ্বকাপে দলের সঙ্গে থাকবেন, নাকি দেশে ফিরে যাবেন সে সিদ্ধান্ত নিতে অপেক্ষা করা হবে এ সপ্তাহের শেষ পর্যন্ত।

মিচেল মার্শকে এমনিতেই এ সপ্তাহের শেষ দিকে অস্ট্রেলিয়া ‘এ’ দলের সঙ্গে ইংল্যান্ড যেতে হতো। এখন একটু আগেভাগেই তিনি যাচ্ছেন এবং তা বিশ্বকাপ আসরের জন্য। এভাবে ডাক পাওয়াটা তার জন্য বেশ অপ্রত্যাশিতই বটে। দীর্ঘদিন ওয়ানডে খেলা হয়নি। সর্বশেষ ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন গত বছরের জানুয়ারিতে। এখন পর্যন্ত মোট ওয়ানডে খেলেছেন ৫১টি। গ্রীষ্মে বাদ পড়েছেন টেস্ট দল থেকেও।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের নিয়মে আছে, একবার কোনো খেলোয়াড়কে স্কোয়াড থেকে বাদ দেয়া হলে তিনি আর ফিরতে পারেন না। এজন্যই স্টয়নিসকে পুরোপুরি বাদ দেয়ার আগে সময় নেয়া হবে। তিনি খুব আহামরি পারফর্ম করতে পারেননি, তবে অলরাউন্ড নৈপুণ্যের কারণে দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হিসেবে জায়গা ধরে রাখছেন। স্টয়নিস না থাকায় এখন একাদশে ফিরতে পারেন শন মার্শ কিংবা অতিরিক্ত একজন বোলারও দলে নিতে পারে ম্যানেজমেন্ট।

মিচেল মার্শকে ‘সতর্কতা’ হিসেবেই দলে ডাকা হয়েছে বলে জানান অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। তার কথায়, ‘অস্ট্রেলিয়া এ দলের হয়ে এমনিতেই শুক্রবার তার ইংল্যান্ডে আসার কথা রয়েছে। স্টয়নিস আগামী কয়েকদিন কেমন সাড়া দেন কিংবা কীভাবে সেরে ওঠেন তা অনিশ্চিত, তাই আমরা সতর্কতা হিসেবে মিচেলকে কয়েকটি দিন আগে ডাকছি।’