খেলা, ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯, , ,

সেরাটা দিতে চান মাশরাফিরা

ক্রীড়া প্রতিবেদক | ০০:০০:০০ মিনিট, জুলাই ১২, ২০১৯

দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে বিশ্বকাপে শুভ সূচনা পায় বাংলাদেশ। সেই জয়ে দলের পারফরম্যান্স নিয়ে প্রত্যাশাও বেড়ে যায় সবার। কিন্তু পরের দুই ম্যাচে প্রত্যাশা অনুযায়ী খেলতে পারেনি বাংলাদেশ। নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে ব্যাটিং লাইনের ব্যর্থতার পরও লড়াই করেন বোলাররা। তাতে মেলেনি জয়। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তৃতীয় ম্যাচে সান্ত্বনা বলতে কেবল সাকিব আল হাসানের সেঞ্চুরি। আজ শ্রীলংকার বিপক্ষে মাঠে নামছে বাংলাদেশ। চলতি বিশ্বকাপে কোনো এশিয়ান দলের বিপক্ষে এটি বাংলাদেশের প্রথম ম্যাচ। আজ অধিনায়ক মাশরাফি চান নিজেদের সেরাটা দিয়ে খেলতে।

ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি বলেন, ‘নিউজিল্যান্ড ম্যাচে আমরা ভেবেছিলাম জিততে পারব। দক্ষিণ আফ্রিকা ম্যাচের পর আমাদের মনোযোগ ও আত্মবিশ্বাস দুটোই বেশি ছিল, তাই ভেবেছি নিউজিল্যান্ডকে হারাতে পারব। কিন্তু সেটা করতে পারিনি।’ শ্রীলংকা ম্যাচে চাপ থাকবে উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, ‘আমি মনে করি প্রতিটি ম্যাচেই চাপ থাকবে। এমনকি শ্রীলংকার বিপক্ষে পরবর্তী ম্যাচসহ সব ম্যাচে চাপ থাকবে। একই সঙ্গে বলতে চাই, সেই চাপের সঙ্গে নিজেদের মানিয়ে নিয়ে সেরাটা নিশ্চিত করতে হবে। কিছু বিষয় আমাদের বিপক্ষে থাকতে পারে, কিন্তু দিন শেষে আমাদের নিশ্চিত করতে হবে যেন আমরা জিততে পারি। তাই প্রথম বল থেকেই আমরা লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যেতে চাই।’

‘আর আগের দুই ম্যাচেও জেতার আশা ছিল, কিন্তু পারিনি। পরবর্তী ম্যাচেই জয়ের আশা থাকবে। আগে থেকে বলা যাবে না আমরা জিতবই, কিন্তু আমরা আমাদের সেরা খেলাটা খেলার চেষ্টা করতে পারি। যেটা করলে হয়তো সম্ভাবনা থাকবে’—যোগ করেন মাশরাফি।

প্রথম তিন ম্যাচে একই একাদশ নিয়ে খেলছে বাংলাদেশ। গুঞ্জন আছে, চতুর্থ ম্যাচে পরিবর্তন আসতে পারে। জায়গা পেতে পারেন লিটন দাস ও রুবেল হোসেন। এ নিয়ে নিশ্চিত করে কিছু বলেননি বাংলাদেশ অধিনায়ক, ‘একাদশে পরিবর্তন আমার একার সিদ্ধান্ত না। সেটা টিম ম্যানেজমেন্টের সবাই মিলে আলোচনার ব্যাপার। একাদশ পরিবর্তন সবসময় টিমের জন্য ভালো কিছু হয় না। প্রয়োজন হলে সবাই আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবে।’

আগের দুই ম্যাচে হারায় শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচটি জেতা খুব গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু এ ম্যাচ বৃষ্টির কবলে পড়ার জোর আশঙ্কা আছে। আর সেটা হলে যে সমীকরণটা অনেক কঠিন হয়ে যাবে, তা স্বীকার করে নিলেন মাশরাফি, ‘ম্যাচটি না হলে আমাদের জন্য সমীকরণটি অনেক কঠিন হবে। অবশ্যই হওয়া খুবই প্রয়োজন। আগের দুটির একটি জিতলে এতটা প্রয়োজন হয়তো থাকত না। কিন্তু এখন খুবই প্রয়োজন ম্যাচটি হওয়ার, আমরা খুব চাচ্ছি ম্যাচটি যেন হয়।’

শ্রীলংকা র্যাংকিংয়ে বাংলাদেশের চেয়ে নিচের দিকের দল। সাম্প্রতিক সময়ের ফর্ম ও পরিসংখ্যান বিবেচনায় এ ম্যাচে নিশ্চিতভাবে ফেভারিট বাংলাদেশ। তবে এসব তথ্যে স্বস্তি পেতে চান না মাশরাফি, ‘আমি মনে করি বিশ্বকাপে কোনো ম্যাচেই স্বস্তির সুযোগ নেই। প্রতিটি ম্যাচই আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। প্রথম থেকেই আমরা এই সমীকরণ মাথায় রেখেছি। প্রথম তিন ম্যাচে আসলেই সত্যি কথা, এমন তিনটি দলের সঙ্গে খেলেছি, যারা এই কন্ডিশনে শুরু থেকেই সেট। প্রথম ম্যাচ জেতার পর ভেবেছি আর একটি ম্যাচ জিতে যদি এই তিনটি ম্যাচ শেষ করতে পারি, আমাদের জন্য সমীকরণটা সহজ হবে। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমরা পারিনি, আমাদের কেউ কেউ নিজেদের সেরাটা দিতে পারেনি।’

‘আমি মনে করি, এশিয়ার দুটি দল যখন খেলছি। বিশেষ করে শ্রীলংকা ও বাংলাদেশ, দুই দলই ভাবছে এখান থেকে আমরা দুটি পয়েন্ট নিতে পারি। এখন যে মাঠে ভালো খেলবে, তার সুযোগটাই বেশি থাকবে।’

সিনিয়রদের কেউ কেউ এখনো প্রত্যাশা অনুযায়ী পারফর্ম করতে পারেননি। এটাকে কীভাবে দেখছেন জানতে চাইলে মাশরাফি বলেন, ‘ক্রিকেটে সিনিয়রদের দায়িত্বটা বেশি থাকে অনেক সময়। কিন্তু মাঠে সব ঠিকমতো না হলে সিনিয়ররাও একই চাপ অনুভব করে। এখন সৌম্যর কথা বলেন। কিছু আগে সে চাপে ছিল, এখন দারুণ সুন্দর খেলছে। আমার মনে হয় সবাই সবার সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করছে, সেটা গুরুত্বপূর্ণ।’