পণ্যবাজার

পাম অয়েল : মালয়েশিয়ায় মজুদ সাড়ে ২৪ লাখ টনে নেমেছে

বণিক বার্তা ডেস্ক    | ০০:০০:০০ মিনিট, জুলাই ১২, ২০১৯

মালয়েশিয়ায় পাম অয়েলের উৎপাদন ক্রমে কমে আসছে। বিপরীতে বাড়তে শুরু করেছে পণ্যটির রফতানি। এর প্রভাব পড়েছে পাম অয়েলের মজুদে। বাড়তি রফতানির বিপরীতে উৎপাদন সীমিত থাকায় মালয়েশিয়ায় পাম অয়েলের মজুদ সাড়ে ২৪ লাখ টনে নেমে এসেছে, যা গত ১০ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম রয়টার্সের এক জরিপভিত্তিক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

পাম অয়েল উৎপাদক ও রফতানিকারক দেশগুলোর তালিকায় মালয়েশিয়ার অবস্থান বিশ্বে দ্বিতীয়। রয়টার্সের জরিপ প্রতিবেদনে বলা হয়, চলতি বছরের মে মাসে মালয়েশিয়ায় সব মিলিয়ে ১৬ লাখ ১০ হাজার টন অপরিশোধিত পাম অয়েল উৎপাদন হয়েছে, যা আগের মাসের তুলনায় ২ শতাংশ কম। এর মধ্য দিয়ে টানা তিন মাস মালয়েশিয়ায় পণ্যটির উৎপাদনে মন্দাভাব বজায় রয়েছে।

উৎপাদন কমলেও গত মাসে দেশটি থেকে পাম অয়েল রফতানিতে ৩ দশমিক ৩ শতাংশ প্রবৃদ্ধির দেখা মিলেছে। এ সময় মালয়েশিয়া থেকে সব মিলিয়ে ১৭ লাখ ১০ হাজার টন পাম অয়েল রফতানি হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে দেশটি থেকে পণ্যটির রফতানি প্রায় তিন বছরের সর্বোচ্চের কাছাকাছি পৌঁছেছে। মূলত শীত মৌসুম শেষ হয়ে যাওয়ায় চীন, ভারত, বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ (ইইউ) বিভিন্ন দেশে মালয়েশীয় পাম অয়েলের রফতানি চাহিদা বাড়তে শুরু করেছে।

উৎপাদনের তুলনায় রফতানি বেশি হওয়ায় এ সময় দেশটির পাম অয়েল মজুদে টান পড়েছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স। জরিপ প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের মে মাস শেষে মালয়েশিয়ায় পাম অয়েলের সমাপনী মজুদ ২৪ লাখ ৬০ হাজার টনে নেমে এসেছে, যা আগের মাসের তুলনায় ৯ দশমিক ৭ শতাংশ কম। গত বছরের জুলাইয়ের পর মালয়েশিয়ায় এটাই পাম অয়েলের সর্বনিম্ন সমাপনী মজুদ। তিন মাস ধরে দেশটিতে পাম অয়েলের সমাপনী মজুদে পতন বজায় রয়েছে।