প্রথম পাতা

অসম্ভব অদক্ষতায় চলছে রেল!

শামীম রাহমান | ০২:৪৯:০০ মিনিট, এপ্রিল ২৭, ২০১৯

প্রতিষ্ঠানের পরিচালন দক্ষতা পরিমাপের অন্যতম মানদণ্ড অপারেটিং রেশিও। রাজস্ব আয়ের যত শতাংশ পরিচালন ব্যয় সেটাই অপারেটিং রেশিও। এ রেশিও যত বেশি, প্রতিষ্ঠানের পরিচালন অদক্ষতাও তত বেশি। অর্থাৎ এ রেশিও ১০০-এর যত কম হবে, মুনাফা হবে তত বেশি।

বাংলাদেশ রেলওয়ের তথ্য বলছে, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে সংস্থাটির অপারেটিং রেশিও ছিল ১৯৬ শতাংশ। অর্থাৎ প্রতি ১০০ টাকা আয় করতে রেলওয়ের ব্যয় হয়েছে ১৯৬ টাকা। প্রতিবেশী দেশ ভারতের রেল সংস্থার ক্ষেত্রে এ হার ৯৬ শতাংশ। চীনে এ হার ৯৪ শতাংশ, জাপানে ৮৪, যুক্তরাষ্ট্রে ৬৩, পাকিস্তানে ১০৫ ও কানাডায় ৬১ শতাংশ। দেশগুলোর সংশ্লিষ্ট সংস্থার অপারেটিং রেশিও বিবেচনায় নিলে স্পষ্ট যে, পরিচালন দক্ষতার দিক থেকে অসম্ভব রকম পিছিয়ে বাংলাদেশ রেলওয়ে। পাশাপাশি হিসাবেও ফাঁকি আছে রেলওয়ের। পরিচালন ব্যয় হিসাবায়নে ডেপ্রিসিয়েশন বা অবচয় যোগ করেনি তারা। যদিও পরিচালন ব্যয় হিসাব করার সময় অবচয় বিবেচনায় নেয়া অপরিহার্য। অবচয় যোগ করা হলে বাংলাদেশ রেলওয়ের অপারেটিং রেশিও বাড়বে আরো অনেকখানি।

দীর্ঘদিনের অবহেলিত রেলের উন্নয়নে ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর অনেকগুলো প্রকল্প হাতে নেয়। লক্ষ্য ছিল উন্নয়ন ও যাত্রীসেবার মান বাড়িয়ে রেলকে লাভজনক করে তোলা। ২০০৮-০৯ থেকে ২০১৭-১৮ সময়ে ১৪ হাজার ৩৯৫ কোটি টাকার ৬৪টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে রেলওয়ে। চলমান রয়েছে আরো ৪৮টি প্রকল্প, এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৯৮ হাজার কোটি টাকা। বিপুল এ ব্যয়ের পরও পরিচালন অদক্ষতার কারণে লোকসানের ধারা থেকে বের হতে পারছে না সংস্থাটি। সর্বশেষ গত অর্থবছরেও রেলের লোকসান হয়েছে প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকা।

প্রশাসনিক দুর্বলতা ও অদক্ষতা এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পেশাদারিত্বের অভাবেই রেলের এ দুরবস্থা বলে মনে করছেন পরিবহন বিশেষজ্ঞ ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. সামছুল হক। তিনি বণিক বার্তাকে বলেন, আয়ের ওপর বাংলাদেশ রেলওয়ের নিয়ন্ত্রণ কোনোদিনই ছিল না, এখনো নেই। প্রতিদিন অসংখ্য যাত্রী বিনা টিকিটে ভ্রমণ করছে। আর এ সুযোগটা কিন্তু রেলের কর্মীরাই করে দিচ্ছে। এটা ঠিক, যাত্রী পরিবহন করে রেলের পরিচালন ব্যয় তুলে আনা কঠিন। কিন্তু পরিচালন ব্যয় তুলে আনার আরো অনেক উপায় আছে। সবচেয়ে বড় উপায় হলো কনটেইনার ও কার্গো পরিবহন বাড়ানো। এ কাজটিই বাংলাদেশ রেলওয়ে করতে পারছে না। সরকারের লক্ষ্য হওয়া উচিত ছিল কনটেইনার পরিবহনের মাধ্যমে প্রাপ্ত আয় দিয়েই পরিচালন ব্যয়ের সিংহভাগ তুলে আনা। এতে রেলের আয় বাড়ত, ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হতো, তেমনি সড়কের ওপর চাপও অনেকটা কমে আসত।

বণিক বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।

সম্পাদক ও প্রকাশক: দেওয়ান হানিফ মাহমুদ

বার্তা ও সম্পাদকীয় বিভাগ : বিডিবিএল ভবন (লেভেল ১৭), ১২ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫

পিএবিএক্স: ৮১৮৯৬২২-২৩, ই-মেইল: [email protected] | বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন বিভাগ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৬১৯