প্রথম পাতা

নুসরাতের মা-বাবাকে প্রধানমন্ত্রী : হত্যাকারীরা রেহাই পাবে না

নিজস্ব প্রতিবেদক | ০২:১১:০০ মিনিট, এপ্রিল ১৬, ২০১৯

অগ্নিসন্ত্রাসের শিকার হয়ে মৃত্যুবরণকারী ফেনীর মাদ্রাসা শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফির বাবা একেএম মুসা ও মা শিরীনা আক্তার গতকাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করেন। এ সময় নুসরাতকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যাকারীদের কেউই আইনের হাত থেকে রেহাই পাবে না বলে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী।

নুসরাত জাহান রাফির মা-বাবা ও দুই ভাই গতকাল সকালে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করেন। এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের চেয়ারম্যান নিজাম চৌধুরীও এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

সাক্ষাতের পর সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম জানান, অন্যায়ের বিরুদ্ধে সাহসিকতার সঙ্গে প্রতিবাদ করে নুসরাত এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে বলে সাক্ষাত্কালে উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় শেখ হাসিনা নুসরাতের মর্মান্তিক মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেন এবং তার পরিবারের সদস্যদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানান।

ইহসানুল করিম আরো জানান, নুসরাতের মা-বাবাকে এ সময় সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন প্রধানমন্ত্রী। অন্যদিকে নুসরাতের মা-বাবাও তাদের এ দুঃসময়ে পাশে দাঁড়ানোর জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

প্রসঙ্গত, ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থী নুসরাত গত ২৭ মার্চ একই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ করে। ওইদিন অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন নুসরাতের মা। এরপর অভিযুক্ত মাদ্রাসা অধ্যক্ষের সমর্থকরা এ মামলা তুলে নেয়ার জন্য নুসরাতকে হুমকি ও চাপ প্রয়োগ করতে থাকে। এরপর ৬ এপ্রিল নুসরাত আলিম পরীক্ষায় অংশ নিতে মাদ্রাসায় গেলে তার গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয় চার বোরকা পরা দুষ্কৃতিকারী। গুরুতর দগ্ধ অবস্থায় তাকে চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১০ এপ্রিল মারা যায় নুসরাত। এ ঘটনার পর নুসরাতের হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর প্রতি নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।