শেয়ারবাজার

কনফিডেন্স সিমেন্টের ঋণমান ‘এ প্লাস’ ও ‘এসটি-থ্রি’

নিজস্ব প্রতিবেদক | ০৩:৩২:০০ মিনিট, এপ্রিল ১৪, ২০১৯

কনফিডেন্স সিমেন্ট লিমিটেডের ঋণমান দীর্ঘমেয়াদে ‘এ প্লাস’ ও স্বল্পমেয়াদে ‘এসটি-থ্রি’। ২০১৮ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত কোম্পানিটির নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন ও ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত অনিরীক্ষিত আর্থিক ফলাফলসহ অন্যান্য তথ্যের ভিত্তিতে এ প্রত্যয়ন করেছে ক্রেডিট রেটিং ইনফরমেশন অ্যান্ড সার্ভিসেস লিমিটেড (সিআরআইএসএল)।

চলতি হিসাব বছরের প্রথমার্ধে (জুলাই-ডিসেম্বর) কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৫৮ পয়সা, আগের বছরের একই সময়ে যা ছিল ২ টাকা ৯৯ পয়সা। দ্বিতীয় প্রান্তিকে (সেপ্টেম্বর-ডিসেম্বর) ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৭ পয়সা, যা আগের হিসাব বছরের একই সময়ে ছিল ১ টাকা ৭৫ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ৬৪ টাকা ৭৬ পয়সা।

২০১৮ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের ১৫ শতাংশ নগদ ও ২০ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দিয়েছে কনফিডেন্স সিমেন্ট। আলোচ্য সময়ে কোম্পানির বার্ষিক ইপিএস হয়েছে ৬ টাকা ৯৩ পয়সা। এনএভিপিএস ৭৬ টাকা। ২০১৭ হিসাব বছরেও ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশের পাশাপাশি ২০ শতাংশ বোনাস শেয়ার পেয়েছিলেন কোম্পানির শেয়ারহোল্ডাররা। সে হিসাব বছর পুনর্মূল্যায়িত ইপিএস ছিল ৯ টাকা ২৩ পয়সা। এনএভিপিএস দাঁড়ায় ৮৪ টাকা ১০ পয়সা।

তার আগে ২০১৬ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত ১৮ মাসে সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ৩৭ দশমিক ৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয় কনফিডেন্স সিমেন্ট। জুন ক্লোজিংয়ের বাধ্যবাধকতা থাকায় সেবার ১৮ মাসে হিসাব বছর গণনা করে প্রতিষ্ঠানটি। সে হিসাব বছরে প্রতিষ্ঠানটির ইপিএস ছিল ১৪ টাকা ৮০ পয়সা।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সর্বশেষ ১৬৪ টাকায় কনফিডেন্স সিমেন্টের শেয়ার লেনদেন হয়। গতকাল শেয়ারটির সমাপনী দরও ছিল ১৬৪ টাকা। দিনভর দর ১৫৭ টাকা ৮০ পয়সা থেকে ১৬৫ টাকার মধ্যে ওঠানামা করে। এদিন ৪১৬ বারে কোম্পানিটির মোট ৯৮ হাজার ৭৮২টি শেয়ার লেনদেন হয়। গত এক বছরে কোম্পানিটির শেয়ারের সর্বনিম্ন ও সর্বোচ্চ দর ছিল যথাক্রমে ১৩৯ টাকা ৯০ পয়সা ও ২৪৩ টাকা ৪০ পয়সা।

১৯৯৫ সালে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কনফিডেন্স সিমেন্টের অনুমোদিত মূলধন ১০০ কোটি টাকা। পরিশোধিত মূলধন ৬৪ কোটি ৭৯ লাখ ১০ হাজার টাকা। রিজার্ভে রয়েছে ২৭৯ কোটি ৭৩ লাখ ৪০ হাজার টাকা। মোট শেয়ার ৬ কোটি ৪৭ লাখ ৯০ হাজার ৬৬৯টি। এর মধ্যে ২৯ দশমিক ৮৮ শতাংশ শেয়ার রয়েছে উদ্যোক্তা-পরিচালকদের কাছে। এছাড়া প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে ২৭ দশমিক ২৮ শতাংশ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে বাকি ৪২ দশমিক ৮৪ শতাংশ শেয়ার রয়েছে। সর্বশেষ নিরীক্ষিত ইপিএস ও বাজারদরের ভিত্তিতে এ শেয়ারের মূল্য-আয় (পিই) অনুপাত ২৮ দশমিক ৩৭, হালনাগাদ অনিরীক্ষিত মুনাফার ভিত্তিতে যা ৩১ দশমিক ৭৮।