আন্তর্জাতিক খবর

ট্রাম্পের জন্য বছরের শেষ দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করবেন কিম

১৭:২৮:০০ মিনিট, এপ্রিল ১৩, ২০১৯

একে অপরের দিকে রকেট হামলার হুমকি, পরস্পরের দিকে কাঁদা ছোড়াছুড়ি, এমনকি তীর্যক ভাষায় দুজন, দুজনকে সম্বোধনও করেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত নাকি কিমের প্রেমে পড়ে গিয়েছিলেন বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ফলে সেই ট্রাম্পের জন্য তো অপেক্ষা করাই যায়। তাই কিমও চাইছেন চলতি বছরের শেষ দিন পর্যন্ত ট্রাম্পের অপেক্ষা করবেন।

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাথে ভালো সম্পর্ক তৈরি করতে চান। সে কারণে তিনি আরও একবার তার সাথে বৈঠক করতে আগ্রহী। আর এই বৈঠকের পরিকল্পনার বিষয়ে ট্রাম্পের জন্য চলতি বছরের শেষ দিন পর্যন্ত তিনি অপেক্ষাও করতে রাজি আছেন তিনি।

শনিবার দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে তৃতীয় দফা বৈঠকে বসতে নিজের সম্মতির কথা জানিয়েছেন কিম। খবরে বলা হয়েছে, ওয়াশিংটন যদি ‘সঠিক মনোভাব’ নিয়ে আলোচনায় অংশ নেয়, তবে উত্তর কোরিয়ার কোনো আপত্তি নেই।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ন্যায্য ও দুই দেশের জন্য গ্রহণযোগ্য হবে এমন একটি চুক্তিতে পৌঁছাতে রাজি আছেন কিম। আর এ জন্য ট্রাম্পকে সাহসী সিদ্ধান্ত নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন উত্তর কোরিয়ার নেতা।

গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে চির বৈরী দুই নেতা প্রথমবারের সিঙ্গাপুরে সাক্ষাৎ করেন। ওই সময় সীমিত পরিসরে পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের বিনিময়ে নিষেধাজ্ঞা পুরোপুরি তুলে নিতে উত্তর কোরিয়ার দেয়া প্রস্তাব মেনে নেয়নি যুক্তরাষ্ট্র। তবে পিয়ংইয়ং বলছে, তারা কেবল কিছু পদক্ষেপ শিথিল করার দাবি জানিয়েছিল।

এর পর চলতি বছরের ফেব্রুয়ারির শেষের দিকে দ্বিতীয়বারের মতো দুই নেতা ভিয়েতনামের হ্যানয়ে মিলিত হন। তবে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের বিষয়ে শেষ পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্তে আসতে পারেনি দুই দেশ।

তৃতীয় বৈঠকের আভাস জানিয়ে কিম জানিয়েছেন, দুই দেশের মধ্যে একটি ভালো সম্পর্ক তৈরি করতে ওয়াশিংটন চান কিনা সে বিষয়ে তার সন্দেহ আছে। কিম বলেন, যুক্তরাষ্ট্র যদি সঠিক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে তৃতীয় বৈঠকে রাজি হয় তাহলে আমরা যুক্তরাষ্ট্রকে আরও একটি সুযোগ দিতে চাই। আর এ জন্য চলতি বছরের শেষ পর্যন্ত ট্রাম্পকে সময় দেয়া যাবে।

ট্রাম্পের সাথে এখনও তার মধুর সম্পর্ক আছে উল্লেখ করে কিম বলেন, যদি তারা সর্বোচ্চ চেষ্টা করে তাহলে শত্রুতা ভুলে যাওয়ার একটা ভালো সুযোগ হবে আমাদের জন্য।

দক্ষিণ কোরিয়ার ইয়াংনাম বিশ্ববিদ্যালয়ের দূর প্রাচ্য বিষয়ক গবেষক কিম ডং ইয়াপ রয়টার্সকে বলেন, কিম এমন ধরণের বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে আসলে একটি বার্তা দিতে চাচ্ছেন। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক তৈরির জন্য খুব বেশিদিন অপেক্ষা করবেন না। এর পরিবর্তে অন্য দেশের সাথে রাজনৈতিক সম্পর্ক তৈরির বিষয়ে গুরুত্ব দিতে চান।

অন্যদিকে বৃহস্পতিবার দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জে ইনের সাথে সাক্ষাৎকালে ট্রাম্পও তৃতীয় বৈঠকের আভাস দিয়েছেন। আর এই বৈঠকের বিষয়ে দক্ষিণ কোরিয়াও সমর্থন দিয়েছে।