টেলিকম ও প্রযুক্তি

২০০ কোটি ডলারের নতুন তহবিল সংগ্রহে গ্র্যাব

বণিক বার্তা ডেস্ক    | ১৯:২২:০০ মিনিট, এপ্রিল ১৩, ২০১৯

কার্যক্রম সম্প্রসারণে ২০০ কোটি ডলার নতুন তহবিলের অনুসন্ধান করছে সিঙ্গাপুরভিত্তিক রাইড শেয়ারিং কোম্পানি গ্র্যাব। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) অ্যান্থনি ট্যান নতুন তহবিল সংগ্রহের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। খবর রয়টার্স।

গ্র্যাব মাত্র কয়েক সপ্তাহ আগেই ৪৫০ কোটি ডলার তহবিল সংগ্রহের ঘোষণা দিয়েছিল। পরিবহন থেকে শুরু করে খাদ্য সরবরাহ এবং পেমেন্টসহ একগুচ্ছ সেবা দিয়ে থাকে এ প্রতিষ্ঠান। ইন্দোনেশিয়ার গো-জেককে টেক্কা দিয়ে দক্ষিণ এশিয়ায় একই অ্যাপে সব ধরনের সেবা প্রদানকারী আধিপত্যশীল হয়ে উঠতে চাইছে প্রতিষ্ঠানটি। লক্ষ্য পূরণে আগ্রাসী কৌশল গ্রহণ করেছেন সংশ্লিষ্টরা। এরই অংশ হিসেবে মেগা তহবিল সংগ্রহ করছে প্রতিষ্ঠানটি। ধারণা করা হচ্ছে, সংগৃহীত তহবিলের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ ইন্দোনেশিয়ায় বিনিয়োগ করবে জাপানের সফটব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতা পাওয়া গ্র্যাব। প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে এমনটাই বলা হয়েছে।

বিবৃতিতে সফটব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ম্যাসাওশি সনের কথা উল্লেখ করে গ্র্যাবের সিইও অ্যান্থনি ট্যান বলেন, ‘আমরা খুবই শক্তিশালী আস্থা ভোট পেয়েছি। ম্যাসাওশি সন জানিয়েছেন, গ্র্যাবের সঙ্গে কাজ করে তারা আনন্দিত এবং যে কারণে প্রতিষ্ঠানটির প্রবৃদ্ধিতে বরাবরের মতোই সহায়তা করে যাবে সফটব্যাংক।’

সফটব্যাংকের আরেক মুখপাত্র জানিয়েছেন, ‘গ্র্যাব তাদের দ্বিধাহীন সমর্থন পাওয়ার যোগ্য বলে বিশ্বাস করে সফটব্যাংক।’

গ্র্যাবের সিইও জানিয়েছেন, সফটব্যাংকসহ কৌশলগত বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় তহবিল সংগ্রহ করা হবে। এ তহবিলে ঋণ ও ইকুইটি দুটিই থাকবে।

গত বছর মার্কিন প্রতিদ্বন্দ্বী উবারের দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার কার্যক্রম কিনে নেয় গ্র্যাব। এর পর থেকেই মূলত কোম্পানিটি আরো বিনিয়োগের জন্য তহবিল সংগ্রহে নেমে পড়ে। বিষয়টি সম্পর্কে অবগত রয়েছেন এমন কয়েকজন জানিয়েছেন, সাত বছর আগে কার্যক্রম শুরুর পর এখন পর্যন্ত প্রায় ৮০০ কোটি ডলার তহবিল সংগ্রহ করেছে গ্র্যাব।

গত মাসে গ্র্যাবের প্রেসিডেন্ট ও সফটব্যাংকের সাবেক নির্বাহী কর্মকর্তা মিং মা জানান, চলমান তহবিল সংগ্রহের প্রক্রিয়ায় আরো অর্থ জোগাড়ের আশা করছে রাইড শেয়ারিং কোম্পানিটি।

জনবহুল দক্ষিণ এশিয়ায় যোগাযোগ, কেনাকাটা ও মূল্য পরিশোধের জন্য স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের সংখ্যা ক্রমে বাড়ছে। এ সুযোগে অঞ্চলটিতে রাইড শেয়ারিং, খাদ্য সরবরাহ, ই-কমার্স এবং ব্যাংকিং কার্যক্রমের মাধ্যমে শত শত কোটি ডলার কামিয়ে নিচ্ছে গ্র্যাব ও গো-জ্যাক। এ যাত্রায় গো-জ্যাকের পাশে রয়েছে তেমাসেক হোল্ডিংস, টেনসেন্ট এবং অ্যালফাবেট ইনকরপোরেশন নিয়ন্ত্রিত গুগল। আর গ্র্যাবকে সহায়তা করছে টয়োটা, মাইক্রোসফট, চীনের দিদি চুশিং ও হুন্দাই।