টেলিকম ও প্রযুক্তি

তথ্যপ্রযুক্তি পণ্য রফতানিতে বাজার সম্পর্কে ধারণা জরুরি—সেমিনারে বক্তরা

নিজস্ব প্রতিবেদক | ২১:২৮:০০ মিনিট, মার্চ ২২, ২০১৯

তথ্যপ্রযুক্তি পণ্য ও সেবা রফতানি বাণিজ্যে সাফল্যের জন্য বড় প্রতিষ্ঠান হতে হবে, এমন কথার ভিত্তি নেই। তবে উদ্যোক্তাদের তার পণ্যের বাজার চাহিদা সম্পর্কে জানতে হবে। পণ্যের বাজার সম্পর্কে ব্যক্তিগতভাবে থাকতে হবে উপযুক্ত ধারণা। গতকাল বেসিস সফটএক্সপোর শেষ দিন ‘এক্সপোর্ট স্ট্র্যাটেজি অ্যান্ড মার্কেট রেডিনেস’ শীর্ষক সেমিনারে এসব কথা বলেন বক্তারা। সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন বেসিস সভাপতি আলমাস কবীর। বিশেষ অতিথি ছিলেন বেসিসের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি ফারহানা এ রহমান।

সিট্রেডের কান্ট্রিপ্রধান তানভীর আহমেদের সঞ্চালনায় সেমিনারে মূল বক্তব্য প্রদান করেন টিএফও কানাডার প্রোগাম পরিচালক এবং সাংবাদিক মেরি হেদার হোয়াইট। আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন টিএফও কানাডার বিপণন বিভাগের মিশেল হাসলা, আইটিসির জাজ ত্যাজম্যানসহ আরো অনেকে।

দেশীয় তথ্যপ্রযুক্তি পণ্য কানাডায় রফতানির সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করে বক্তারা জানান, কানাডায় মোট বাণিজ্যের ৩৭ শতাংশ সম্পন্ন হচ্ছে অনলাইনে এবং এ হার ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। কানাডায় অন্যান্য বাণিজ্যিক সম্ভাবনাসহ বাংলাদেশের উদ্যোক্তাদের জন্য সুযোগ-সুবিধা নিয়ে কথা বলেন বক্তারা।

দেশীয় তথ্যপ্রযুক্তি রফতানির ক্ষেত্রে পণ্যের চেয়ে সেবা রফতানিতে গুরুত্ব দেন বক্তারা। এছাড়া রফতানি বাণিজ্যে প্রস্তুতির ক্ষেত্রে পরিকল্পনা, স্ট্র্যাটেজি, ব্যয়, সুযোগ, চ্যালেঞ্জ, সিদ্ধান্ত এবং যথাযথ বিনিয়োগ বিষয়ে মনোযোগী হওয়ার ওপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে। পাশাপাশি যথাযথ ডকুমেন্টেশনে মনোযোগী হওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। সেমিনারে ব্লকচেইন সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা করেন বক্তারা।

বাংলাদেশে সিট্রেডের কাজের প্রশংসা করে বেসিস সভাপতি বলেন, প্রযুক্তিজগতে নারীদের কাজ করার সুযোগ অনেক এবং সিট্রেডের সহযোগিতায় নারী উদ্যোক্তারা আরো ভালো করবেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০২১ অনুযায়ী তথ্যপ্রযুক্তি রফতানির মাধ্যমে ৫ বিলিয়ন ডলার আয়ের লক্ষ্য অর্জন করতে নতুন জনবলের দক্ষতা বৃদ্ধি করে রফতানি বাড়ানোর ক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ অনস্বীকার্য বলেন তিনি।