আন্তর্জাতিক খবর

মোজাম্বিকে শক্তিশালী সাইক্লোন : হাজার ছাড়িয়ে যেতে পারে মৃতের সংখ্যা

বণিক বার্তা ডেস্ক | ২১:২৮:০০ মিনিট, মার্চ ২০, ২০১৯

আফ্রিকার দেশ মোজাম্বিকে ভয়াবহ সাইক্লোন ও বন্যায় নিহতের সংখ্যা এক হাজার ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট। সম্প্রতি আঘাত হানা সাইক্লোন ইডাইয়ে নিহতের সংখ্যা নিয়ে গত সোমবার এ মন্তব্য করেন তিনি। খবর রয়টার্স।

মোজাম্বিকে এখন পর্যন্ত সাইক্লোন ইডাইয়ে ৮৪ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। মোজাম্বিক ছাড়াও সাইক্লোনটি আঘাত হেনেছে আফ্রিকার আরো দুই দেশ জিম্বাবুয়ে ও মালাওয়িতে। এসব দেশেও প্রাণহানি ও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া গেছে। বিশাল জনবসতি বন্যার পানিতে ভেসে গেছে, রাস্তাঘাট ধ্বংস হয়েছে এবং যোগাযোগ ব্যবস্থা সম্পূর্ণ ভেঙে পড়েছে।

রেডিও মোজাম্বিককে দেয়া এক সাক্ষাত্কারে দেশটির প্রেসিডেন্ট ফিলিপ এনুসি বলেন, তিনি সাইক্লোন আক্রান্ত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। সেখানে দুটি নদী প্লাবিত হয়েছে। গ্রামগুলো ঠাহর করা যাচ্ছে না, পানিতে ভাসছে মরদেহ। তিনি বলেন, সবকিছু দেখে মনে হচ্ছে, মৃতের সংখ্যা এক হাজার ছাড়িয়ে যাবে।

সাইক্লোন ইডাইয়ের আঘাতে জিম্বাবুয়েতে এখন পর্যন্ত ৯৮ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। দেশটির সরকারি তথ্য অনুযায়ী, এখনো ২০০-এর বেশি মানুষ নিখোঁজ রয়েছে। অন্যদিকে মালাওয়িতে অতিবৃষ্টি ও বন্যার কারণে নিহতের সংখ্যা ৫৬-তে দাঁড়িয়েছে।

ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব দ্য রেড ক্রসের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা ক্যারোলিন হাগা জানান, আশপাশের এলাকাগুলোয় পরিস্থিতি আরো খারাপ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এসব এলাকার সঙ্গে যোগাযোগ সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। তাছাড়া এসব এলাকার বাড়িঘরগুলোও মজবুত নয়।

মোজাম্বিকের চতুর্থ বৃহত্তম শহর বেইরায় পাঁচ লাখ মানুষের বসবাস। সাইক্লোন আক্রান্ত এলাকাটির একটি বৃহৎ বাঁধ ভেঙে পড়ায় উদ্ধার প্রক্রিয়া জটিল হয়ে পড়েছে। রাস্তাগুলো পানিতে ভেসে গেছে। কিছু রাস্তা দিয়ে মানুষকে হাঁটুসমান পানি ভেঙে যেতে দেখা গেছে। এসব পানিতে বিপজ্জনক ধাতব ও বর্জ্য পদার্থ রয়েছে। বিপজ্জনক পানি থেকে মানুষকে রক্ষা করতে উদ্ধারকারীরা নানা উপায় অবলম্বন করছেন। কোথাও কোথাও বুকসমান পানিতে ডিঙি নৌকা চালু করা হয়েছে। কোথাও দেয়া হয়েছে গাছের গুঁড়ি।

এদিকে জিম্বাবুয়ের সাইক্লোন আক্রান্ত চিমানিমানি অঞ্চলে পৌঁছতে হিমশিম খাচ্ছেন উদ্ধারকারীরা। মুষলধারে বৃষ্টির কারণে এলাকাটি পুরো দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। এখানকার রাস্তা, ঘরবাড়ি ও ব্রিজগুলো মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। রাস্তাঘাট ও ব্রিজ নির্মাণ এবং পানি, স্যানিটেশন ও বিদ্যুৎ সুবিধা প্রদানে এরই মধ্যে ১ কোটি ৮০ লাখ ডলার ব্যয়ের অনুমোদন দিয়েছে দেশটির অর্থ মন্ত্রণালয়।