প্রথম পাতা

বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স : সর্বাধুনিক উড়োজাহাজটিই অপমৃত্যুর দিকে যাচ্ছে

বণিক বার্তা ডেস্ক | ০১:৪৪:০০ মিনিট, মার্চ ১৫, ২০১৯

বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রযুক্তির উড়োজাহাজ বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স। পাঁচ মাসের মধ্যে দুটি দুর্ঘটনার পর বিশ্বের সব দেশ এ মডেলের উড়োজাহাজের উড্ডয়ন বন্ধ করেছে। এখন পর্যন্ত বিক্রি হওয়া এ সিরিজের ৩০০-এর বেশি উড়োজাহাজ গ্রাউন্ডেড করার ঘোষণা দিয়েছে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বোয়িংও। অনিশ্চয়তায় পড়েছে সিরিজটির ভবিষ্যৎ উৎপাদনও। এর মধ্য দিয়ে সর্বাধুনিক উড়োজাহাজটি অপমৃত্যুর দিকে যাচ্ছে বলে মনে করছেন এভিয়েশন বিশেষজ্ঞরা।

যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল এভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফএএ) জানায়, দুর্ঘটনা তদন্তে উঠে আসা ও স্যাটেলাইট থেকে পাওয়া নতুন কিছু তথ্যের ভিত্তিতে দেশটিতে এ মডেলের জেট চলাচলের ওপর সাময়িক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। এর আগে দুর্ঘটনার পর পরই বিশ্বের বিভিন্ন দেশের আকাশসীমায় এ মডেলের উড়োজাহাজ চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হলেও এ ধরনের সিদ্ধান্ত থেকে বিরত ছিল এফএএ।

রোববারের ওই দুর্ঘটনায় ইথিওপিয়ান এয়ারলাইনসের পরিচালনাধীন বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স ৮ মডেলের একটি উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হয়। এ ঘটনায় উড়োজাহাজের ১৫৭ আরোহীর সবাই নিহত হন। বিধ্বস্ত উড়োজাহাজের ব্ল্যাকবক্স গতকালই তদন্তের জন্য প্যারিসে পাঠানো হয়েছে বলে এয়ারলাইনস সংস্থাটি জানিয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে ঘোষিত এক বার্তায় এয়ারলাইনস সংস্থাটি জানায়, অ্যাকসিডেন্ট ইনভেস্টিগেশন ব্যুরোর নেতৃত্বে ইথিওপীয় একদল প্রতিনিধি উড়োজাহাজের ফ্লাইট ডাটা রেকর্ডার ও ককপিট ভয়েস রেকর্ডার তদন্ত করে দেখার জন্য ফ্রান্সের প্যারিসে নিয়ে গেছেন।

এ ঘটনা নিয়ে এফএএর একটি দলও এরই মধ্যে তদন্ত কার্যক্রম শুরু করে দিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে পরিবহন নিরাপত্তা দেখভালে গঠিত ন্যাশনাল ট্রান্সপোর্টেশন সেফটি বোর্ডের সঙ্গে যৌথভাবে দুর্ঘটনাস্থলে তদন্ত চালাচ্ছে এফএএ।

এফএএর ভারপ্রাপ্ত প্রশাসক ড্যান এলওয়েল এ প্রসঙ্গে জানান, লায়ন এয়ারের ফ্লাইটটির সঙ্গে ইথিওপিয়ান এয়ারলাইনসের ফ্লাইটটির ট্র্যাক ও আচরণে মিল খুঁজে পাওয়া গেছে।

প্রসঙ্গত, গত বছরের অক্টোবরে ইন্দোনেশিয়ার লায়ন এয়ারের পরিচালনাধীন বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স মডেলের আরেকটি উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় পতিত হয়। ওই ঘটনায় উড়োজাহাজটির ১৮৯ আরোহীর সবাই নিহত হন। ইথিওপিয়ান এয়ারলাইনসের উড়োজাহাজের মতো ওই উড়োজাহাজটিও উড্ডয়নের কয়েক মিনিটের মধ্যেই বিধ্বস্ত হয়।

ড্যান এলওয়েল আরো জানান, উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হওয়ার স্থান থেকে আমরা যেসব প্রমাণ পেয়েছি, তাতে উভয় উড়োজাহাজের ফ্লাইট পাথের মধ্যকার সাদৃশ্যের ধারণাটি আরো জোরালো হয়েছে।

এর আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রাথমিকভাবে বলেছিলেন, ‘ঘটনাস্থল ও অন্যান্য স্থান থেকে পাওয়া নতুন তথ্যপ্রমাণ এবং কিছু অভিযোগের ভিত্তিতে এক জরুরি ঘোষণা দিতে যাচ্ছে এফএএ।’

অন্যদিকে বোয়িংয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়, ৭৩৭ ম্যাক্সের নিরাপত্তা ব্যবস্থার ওপর আস্থা রয়েছে বোয়িংয়ের। তবে প্রতিষ্ঠানটি আরো বলছে, এফএএ ও ন্যাশনাল ট্রান্সপোর্টেশন সেফটি বোর্ডের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে সতর্কতামূলক এবং আরোহী নিরাপত্তা নিশ্চিতকারী পদক্ষেপ হিসেবে সব ফ্লাইট প্রত্যাহার করা হবে।

বোয়িংয়ের প্রধান নির্বাহী ও চেয়ারম্যান ডেনিস মুইলেনবার্গ বলেন, তদন্তকারীদের সঙ্গে একযোগে দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধান, নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার এবং এ ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে আমাদের সাধ্য অনুযায়ী সবকিছুই আমরা করছি।

বর্তমানে বিশ্বব্যাপী এয়ারলাইনসগুলোর মধ্যে বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স মডেলের সর্বোচ্চসংখ্যক উড়োজাহাজ রয়েছে ডালাসভিত্তিক সাউথওয়েস্ট এয়ারলাইনসের মালিকানায়। নিজেদের বহরের ৩৪টি উড়োজাহাজকেই সার্ভিস থেকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে এয়ারলাইনসটি।

উড্ডয়নের সময় বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স মডেলের উড়োজাহাজের নিয়ন্ত্রণ রক্ষা অনেক কঠিন বলে গত বছরই বেশকিছু অভিযোগ তোলেন মার্কিন পাইলটরা। লায়ন এয়ারের উড়োজাহাজ বিধ্বস্তের ঘটনায় যেসব বিষয়কে দায়ী করা হচ্ছিল, তাদের অভিযোগগুলোও অনেকটা একই ধরনের ছিল। নভেম্বরেই উড্ডয়নের পর উড়োজাহাজটিকে আকাশে ভাসিয়ে রাখার জন্য স্থাপিত ৭৩৭ ম্যাক্সের অ্যান্টি-স্টলিং সিস্টেম নিয়ে অভিযোগ করেন বেশ কয়েকজন পাইলট। কৌণিক উড্ডয়নের সময় উড়োজাহাজের সামনের দিক যাতে বেশি উপরে উঠে না যায়, এজন্য এটি স্থাপন করা হয়েছিল। অন্যদিকে পাইলটদের অভিযোগ, এটি আসলে উড়োজাহাজের সামনের দিককে অতিমাত্রায় নিচু করে ফেলছে। ফলে উড়োজাহাজটির উচ্চতা হারানো ঠেকাতে পাইলটদের জরুরি পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হতে হচ্ছে।

সূত্র: খবর এএফপি ও বিবিসি।