কলের গাড়ি

ভাতের মাড়ের যত ব্যবহার

ফিচার ডেস্ক | ২০:১২:০০ মিনিট, জানুয়ারি ০৯, ২০১৯

ভাত রান্না করার শেষ অংশটিই হচ্ছে যথাসময়ে ভালোভাবে মাড় ঝরিয়ে নেয়া। এ কাজ ভালোভাবে করা গেল তো ভাত ঝরঝরে হবে নিঃসন্দেহে। বলা হয়ে থাকে, ভাতের মাড়েই নাকি চলে যায় সব পুষ্টি উপাদান। তাই তো অনেকেই ভাতের মাড় ফেলতে চান না। কিন্তু যদি আপনার অভ্যাস হয়ে থাকে মাড় ফেলে দেয়া, তাহলে জেনে নিন, মাড় কিন্তু ব্যবহার করতে পারেন সৌন্দর্যচর্চায়।

শীতকাল এলেই ড্রেসিং টেবিলে জায়গা করে নেয় কত রকম ময়েশ্চারাইজার, ক্রিম, লোশন। অথচ জেনে খুব অবাক লাগবে, ভাতের মাড় শুষ্ক ত্বককে আর্দ্র রাখতে বেশ কার্যকরী। অর্থাৎ ময়েশ্চারাইজার হিসেবে ভালো কাজ করে ভাতের মাড়। ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখে অনেকক্ষণ। সেদিক থেকে ময়েশ্চারাইজার হিসেবে বেছে নিতে পারেন এ উপাদান।

মুখে, হাত-পায়ে ভাতের মাড় ব্যবহার করতে হয়তো অস্বস্তি কাজ করছে। সেক্ষেত্রে ময়েশ্চারাইজার হিসেবে ভাতের মাড় ব্যবহার না করলেও ভাতের মাড় লাগাতে পারেন ত্বক পরিষ্কারক হিসেবে।

চোখের নিচে কালো দাগ হয়ে যাওয়া এখন আর নতুন কিছু নয়। এ দাগ দূর করতে কত কী ব্যবহার করা হয়। অথচ জানেন কি, ভাতের মাড় বেশ কার্যকর ভূমিকা রাখে চোখের নিচের কালো দাগ দূর করতে। মাড় লাগিয়ে শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। শুকিয়ে গেলে ভালোভাবে ধুয়ে ফেললেই হবে। এভাবে চোখের নিচের অংশে মাড় লাগাতে পারেন টানা কয়দিন। দেখবেন দাগ উধাও।

ত্বকে অনেক সময়ই জ্বালাপোড়া, চুলকানি-জাতীয় সমস্যা দেখা দিতে পারে। এ সমস্যার সমাধানও করতে পারেন ভাতের মাড় দিয়েই। মাড় যেকোনো রকম চুলকানি, জ্বালাপোড়া সারাতে সক্ষম।

ত্বক নরম হয় নিয়মিত ভাতের মাড় ব্যবহারে। এছাড়া ত্বক টানটান রাখতেও নিয়মিত ভাতের মাড় ব্যবহারের জুড়ি নেই।

শুধু ত্বকই নয়, চুলের যত্নেও ব্যবহার করতে পারেন ভাতের মাড়। শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনারের পরিবর্তে ভাতের মাড় ব্যবহার করতে পারেন। এতে চুলের রুক্ষভাব দূর হবে।

 

সূত্র: ওয়ান গুড থিং