টকিজ

দ্বিতীয়বার বিয়ের অনুষ্ঠান : বাজি পোড়ানোয় সমালোচনার মুখে প্রিয়াংকা

ফিচার ডেস্ক | ২১:৩৯:০০ মিনিট, ডিসেম্বর ০৪, ২০১৮

ভারতীয় হিন্দু রীতিতে দ্বিতীয়বার বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করলেন প্রিয়াংকা চোপড়া ও নিক জোনাস। হিন্দু রীতিতে এ যুগলের বিয়ে সম্পন্ন হয় রাজস্থানের যোধপুরের উমেদ ভবন প্যালেসে। এর আগে বলিউডের প্রখ্যাত এ অভিনেত্রী ও ‘চেইনস’ সংগীতখ্যাত গায়ক খ্রিস্টান রীতিতে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন গত শনিবার আর বিয়ে পড়ান বরের ধর্মযাজক পিতা কেভিন জোনাস সিনিয়র।

এ যুগলের স্মরণীয় বিয়ের অনুষ্ঠান শুরু হয় আরো আগে গত বুধবার, মুম্বাইয়ের পারিবারিক বাসস্থানে। এরপর যোধপুরে উমেদ ভবন প্যালেসে পৌঁছার পর গত শুক্রবার বরে-কনে দুজনই মেহেদি পরেন হাতে। আর সঙ্গে ছিল গানের আয়োজন।

হিন্দু রীতিতে বিয়ে সম্পন্ন হওয়ার আগে খ্রিস্টান রীতির বিয়ের অনুষ্ঠানে ব্যাপক বাজি পোড়ানোর আয়োজন রাখা হয়েছিল। যোধপুরের আকাশ আতশবাজির আলোয় ঝলমল করে ওঠে। প্রিয়াংকা চোপড়া বাজি পোড়ানোর নানা ছবি অনলাইনেও প্রকাশ করেন। এখানেই বিপত্তির শুরু: অনলাইন ছবি পোস্ট হওয়ার পর থেকেই নানা প্রান্ত থেকে সমালোচনার তীর ছুটে আসছে এ যুগলের দিকে, বিশেষ করে প্রিয়াংকা চোপড়াই বেশি আক্রমণের শিকার হচ্ছেন। কোনো কোনো পরিবেশবাদী তাকে ‘ভণ্ড’ বলে আখ্যাও দিয়েছেন। উল্লেখ্য, ভারতজুড়ে দিওয়ালি উৎসবের সময় পরিবেশবাদীরা দূষণবিরোধী প্রচারণা চালাচ্ছেন। আর ঠিক এ সময়েই বিপুল বাজি পুড়িয়ে বিয়ের অনুষ্ঠান করায় পরিবেশ আন্দোলনকারীদের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয়েছেন প্রিয়াংকা।

প্রিয়াংকা চোপড়ার ওপর ক্ষেপে ওঠার আরেকটি কারণ হলো, এ অভিনেত্রী নিজেও ‘ব্রেথফ্রি’ নামে একটি সংগঠনের শুভেচ্ছাদূত। সংগঠনটি মূলত অ্যাজমা আক্রান্তদের সঠিক চিকিৎসা ও ইনহেলার ব্যবহারের ক্ষেত্রে উদ্দীপ্ত করে থাকে, সঙ্গে বায়ু দূষণবিরোধী আন্দোলনও পরিচালনা করে। ফলে প্রিয়াংকার বিপুল খরচে বাজি পোড়ানোর এ মহা আয়োজনের বিরোধিতা করে টুইটার সামাজিক মাধ্যমে তাকে ভণ্ড, কপট প্রভৃতি বলে গালমন্দ করা হচ্ছে।

কেউ কেউ আরো এক ধাপ এগিয়ে ‘ব্রেথ’র প্রচারণায় ব্যবহূত প্রিয়াংকার বাণী নিয়েও ঠাট্টা-মশকরায় মেতে উঠেছে। কেউ কেউ ইন্টারনেটে কিছু মেমেও ছেড়েছেন প্রিয়াংকাকে উদ্দেশ করে।

 

সূত্র: পিপল, ডিএএনএ