খেলা

বার্সায় যাবেন না গুন্দোয়ান?

২৩:১৫:০০ মিনিট, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৮

জানুয়ারির দলবদলে ম্যানচেস্টার সিটির জার্মান মিডফিল্ডার ইকাই গুন্দোয়ানকে কেনার পরিকল্পনা বার্সেলোনার। তবে কাতালানদের ‘না’ বলে দিতে তৈরি এ খেলোয়াড়। ইতালির এসি মিলান ও বুন্দেসলিগার আরো দুয়েকটি ক্লাব তাকে পেতে চায়। তবে ২৭ বছর বয়সী এ খেলোয়াড় ম্যানসিটিতেই খেলে যেতে চান।

ম্যানসিটিতে গুন্দোয়ানের চুক্তির মেয়াদ আরো দুই বছর বাকি। ইংল্যান্ডের ধনী এ ক্লাবটিতে খেলে তিনি সপ্তাহে বেতন পান ৯০ হাজার পাউন্ড। এখন উন্নত চুক্তির হাতছানি তার সামনে। তবে তিনি এসবে প্রলুব্ধ না হয়ে ইতিহাদেই খেলে যেতে চান। দ্য সান গতকাল লিখেছে, সিটির সঙ্গে লম্বা চুক্তিতে স্বাক্ষর করার ইচ্ছা গুন্দোয়ানের। পত্রিকাটি দাবি করছে, স্প্যানিশ কোচ পেপ গার্দিওলার অধীনে খেলে খুশি গুন্দোয়ান, তাই ইংলিশ চ্যাম্পিয়নদের সঙ্গেই থাকতে চান। তাছাড়া এ ক্লাবটিতে তিনি বেশ স্বাচ্ছন্দ্যও অনুভব করেন।

২০১৬ সালে ম্যানসিটির দায়িত্ব নেয়ার পর পরই গুন্দোয়ানকে কিনে নেন গার্দিওলা। ওই সময় তাকে কেনা হয় ২ কোটি পাউন্ডে। হাঁটুর ইনজুরির কারণে সিটিতে প্রথম মৌসুমটি বাজে কেটেছে তার। তবে গত মৌসুমে ক্লাবটি রেকর্ড গড়ে শিরোপা জিতে নেয়, যাতে অনবদ্য ভূমিকা পালন করেন গুন্দোয়ান। ২০১৮ সালে সিটিকে লিগ শিরোপা ও কারাবাও কাপ জিততে সাহায্য করেন তিনি। মোট ৪৮ ম্যাচ খেলে গোল করেছেন ৬টি।

গুন্দোয়ানের থাকা-না থাকা নিয়ে ম্যানসিটির এক সূত্র দ্য সানকে বলেছেন, ‘গুন্দোয়ান এখানে সুখেই আছেন এবং ক্লাবও তাকে রেখে দিতে চায়। তাকে নিয়ে অন্যদের আগ্রহ আছে, কিন্তু আশা করা হচ্ছে সে ইতিহাদেই থাকবে। সে পেপের অধীনে খেলতে ভালোবাসে, আসলে এটা কে না ভালোবাসে? এছাড়া সে ম্যানচেস্টার শহর, এ ক্লাব ও সামগ্রিকভাবে সবকিছু উপভোগ করছে। তার চুক্তির এখনো কয়েকটি বছর বাকি রয়েছে। এখানে যোগ দেয়ার পর সে অসাধারণ খেলেছে, তাই আমরা শিগগিরই তার ব্যাপারটি সমাধান করে ফেলব।’

জার্মানির হয়ে উয়েফা নেশনস লিগ ম্যাচ খেলে ইতিহাদে ফিরছেন গুন্দোয়ান। গত সপ্তাহে ফ্রান্সের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র হওয়া ম্যাচে জার্মানির কিছু সমর্থক তাকে উদ্দেশ করে দুয়ো দিয়েছেন। গত জুনে বিশ্বকাপ শুরুর আগে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগানের সঙ্গে ছবি তুলে বিপাকে পড়েন গুন্দোয়ান আর মেসুত ওজিল। তাদের দুজনের শিকড় তুরস্কে। তবে জন্ম ও বেড়ে ওঠা জার্মানিতে, খেলেনও জার্মানিতে। জার্মানির চোখে ‘স্বৈরশাসক’ এরদোগানের সঙ্গে ছবি তোলায় দেশটিতে প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। বিশ্বকাপ ব্যর্থতার পর ওজিল পড়েন সমালোচনার মুখে। ফলে তিনি অবসরই নিয়ে নেন। যদিও এমন কঠিন সিদ্ধান্ত নেননি গুন্দোয়ান। তবে এবার তিনি সমর্থকদের অসন্তোষের মুখে পড়েন।

দ্য সান, মেইল অনলাইন