পণ্যবাজার

বছরে ৩৫ লাখ টন ময়দা রফতানি তুরস্কের

বণিক বার্তা ডেস্ক | ১৯:৫৮:০০ মিনিট, আগস্ট ১৮, ২০১৮

চলতি শতকের শুরু থেকে তুরস্কের ময়দা উৎপাদন ও রফতানি খাতে প্রবৃদ্ধি বজায় রয়েছে। প্রবৃদ্ধির ধারাবাহিকতায় গত পাঁচ বছরে দেশটি থেকে ময়দা রফতানি কয়েক গুণ বেড়েছে। ২০১৭ সালে প্রায় ৩৫ লাখ টন ময়দা রফতানি করে খাদ্যপণ্যটির বৈশ্বিক বেচাকেনার এক-তৃতীয়াংশ এককভাবে জোগান দিয়েছে তুরস্ক। এর মধ্য দিয়ে ময়দা রফতানিকারকদের বৈশ্বিক তালিকায় শীর্ষ অবস্থান আরো জোরালো করেছে দেশটি। খবর ওয়ার্ল্ডগ্রেইন ডটকম।

তুরস্কের প্রায় সব প্রদেশে ময়দা মিল রয়েছে। এর মধ্যে সেন্ট্রাল আনাতোলিয়া প্রদেশে সবচেয়ে বেশি ময়দা উৎপাদন হয়। বর্তমানে তুরস্কে সক্রিয় ময়দা মিলের সংখ্যা ১ হাজার ২০০ ছাড়িয়েছে। এসব মিলের সম্মিলিত উৎপাদন সক্ষমতা বছরে তিন কোটি টন। তবে বর্তমানে তুরস্কে উৎপাদন সক্ষমতার মাত্র ৪৫ শতাংশের কম ময়দা উৎপাদন হয়, যার সিংহভাগই আন্তর্জাতিক বাজারে রফতানি করে দেশটি।

টার্কিশ স্ট্যাটিস্টিক্যাল ইনস্টিটিউটের (টিএসআই) তথ্য অনুযায়ী, চলতি শতকের শুরুতে (২০০০ সাল) দেশটি থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে সব মিলিয়ে ৩ লাখ ৫৫ হাজার ৪৮৭ টন ময়দা রফতানি হয়েছিল। পাঁচ বছরের ব্যবধানে ২০০৫ সালে দেশটি থেকে ময়দা রফতানি বেড়ে দাঁড়ায় ১৯ লাখ ৭৮ হাজার ৯০৩ টনে। ২০১০ সালে দেশটি থেকে মোট ১৮ লাখ ৩৬ হাজার ১০০ টন ময়দা রফতানি হয়েছিল। পরবর্তী পাঁচ বছরে তুরস্কের ময়দা রফতানি খাতে প্রবৃদ্ধি হয়েছে প্রায় ১০ লাখ টন। ২০১৫ সালে তুরস্ক মোট ২৭ লাখ ৯৬ হাজার ৩৩৯ টন ময়দা রফতানি করেছিল।

প্রবৃদ্ধির ধারাবাহিকতায় ২০১৬ সালে তুরস্ক থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে ময়দা রফতানির পরিমাণ দাঁড়িয়েছিল ৩৫ লাখ ৩২ হাজার ৪৮১ টনে। তবে সর্বশেষ ২০১৭ সালে দেশটি থেকে আগের বছরের তুলনায় সামান্য কমে ৩৪ লাখ ৮৯ হাজার ৩৫৪ টন ময়দা রফতানি হয়েছে বলে জানিয়েছে টিএসআই। গত বছর ময়দা রফতানি বাবদ ১১০ কোটি ডলার আয় করেছে তুরস্ক। এর মধ্য দিয়ে পাঁচ বছর ধরে ময়দা রফতানিকারকদের বৈশ্বিক তালিকায় নিজেদের শীর্ষ অবস্থান আরো জোরালো করেছে দেশটি।

এ বিষয়ে টার্কিশ ফ্লাওয়ার ইন্ডাস্ট্রিয়ালিস্ট ফেডারেশনের (টিইউএসএএফ) চেয়ারম্যান এরেন গুনহাম উলুসয় বলেন, ১৩-১৪ বছর ধরে তুরস্কের ময়দা রফতানি খাতে প্রবৃদ্ধি বজায় রয়েছে। তবে গত পাঁচ বছরে এ খাতে উল্লেখযোগ্য প্রবৃদ্ধির দেখা মিলেছে। গত এক দশকে সিরিয়া, ইরাক, বেনিন, অ্যাঙ্গোলা, সোমালিয়া, জাপান, যুক্তরাষ্ট্র, চীনসহ বিশ্বের ১৬০টি দেশে ময়দা রফতানি করেছে তুরস্ক।

তুরস্কের ময়দা উৎপাদন ও রফতানি খাতে প্রবৃদ্ধির পেছনে কারণ হিসেবে কাঁচামাল বা গমে স্বয়ংসম্পূর্ণতাকে চিহ্নিত করেছে টিইউএসএএফ। এছাড়া গম উৎপাদন ও ময়দা বিপণনে সুবিধাজনক ভৌগোলিক অবস্থান, কৃষকদের কাছ থেকে নায্যমূল্যে সরাসরি গম কেনার ব্যবস্থা, মিলগুলোর আধুনিকায়ন ও উৎপাদন সক্ষমতা বৃদ্ধিতে উদ্যোগ গ্রহণ, সরকারি পৃষ্ঠপোষকতাসহ কয়েকটি কারণে তুরস্কে ময়দা শিল্পের দ্রুত বিকাশ ঘটেছে বলে মনে করছে প্রতিষ্ঠানটি।